SAHA ANTAR

Published:
2020-11-01 14:00:19 BdST

সহজ ১২টি নিয়ম মানলেই ওজন নিয়ে দুশ্চিন্তা দূর


 


ডা. সুলতানা আলগিন সহযোগী অধ্যাপক
মনোরোগ বিদ্যা বিভাগ
কনসালটেন্ট ওসিডি ক্লিনিক ও জেরিয়াট্রিক ক্লিনিক
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা
_______________________________

লোকমুখে শুনে অভিনেত্রী মিষ্টি চক্রবর্ত্তীর মত কিটো কঠিন ডায়েট করতে হবে না। না খেয়ে পেটের পিত্তিও জ্বালাতে হবে না। সহজ ১২টি নিয়ম মানলেই ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকবে। কমবেও।

১. খাওয়া দাওয়ায় নিয়ন্ত্রণ চাই। মন খুশি খাওয়া চলবে না।

২. নিয়মিত সহজ ঘরের কাজ , নিজের কাজগুলো করতে হবে। যত কাজ তোমার জন্য করবে অন্যে। সেটা ওজন বাড়ার কারণ তোমার জন্যে। নিজের কাপড় নিজেই কাঁচুন। কি সুন্দর ব্যায়ামটা হয়ে যাবে। ঘরে ঝাঁট দিতে লজ্জা পেয়ে বাবুগিরি, বিবিগিরি করবেন না। নিজে করলে নিজেরই লাভ।

৩. নিয়ম করে প্রতিদিন ২৫ থেকে ৩৫ মিনিট হাঁটতে হবে। হালকা ব্যায়াম, নাচ, কসরত করতে পারেন। যার যে ধর্ম, সে ধর্মের ইবাদত উপাসনার ব্যায়ামগুলো মানুন। এগুলো খুব কাজের। খুব সকালে ওঠা, নামাজ , যোগ ব্যায়াম করা। এসব খুব উপকারী। নিয়ম উপবাস, রোজা, সজল বা নির্জল উপবাস নিজ ধর্ম অনুযায়ী করতে পারেন। শরীর ভাল থাকবে।
৪. একদিকে ভাবছেন, খাবেন অবিরাম। আর কাজে প্রবল আলস্য; এটা চলবে না। আপনার ওজন বেড়ে যাওয়ার বড় কারণ এই দুয়ের মাঝে ফারাক। খাওয়াটা হিসাব করে। আর কাজ পরিশ্রম ও তার সঙ্গে মিলিয়ে। অতিরিক্ত পরিশ্রম , অতিরিক্ত খাওয়া, অতিরিক্ত ডায়েট কন্ট্রোল সবই শরীরের শত্রু। শরীরে জন্য ক্ষতিকর।
৫. কিটো ডায়েট , যাদু ডায়েট, ম্যাজিক ডায়েট এসব কিছুই শুনে করবেন না। ডায়েটকে সাজিয়ে গুছিয়ে নিয়ন্ত্রণ করতে চাইলে কোন ভাল পেশাদার ডায়েটিশিয়ানের পরামর্শ নিন।
৬. যতটা খাচ্ছেন , ততটা মেদ ঝরাতে পরিশ্রম করছেন কিনা, সেটা হিসাব করুন। যদি নিজে না পারেন, কোন বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নিন।
৭. আপনার প্রাত্যতিক খাবারে অত্যধিক ভাত, রেড মিট , গরু শুকর , ভেড়া ছাগল , উট দুম্বা পরিহার করুন। এখন খাবার রাখুন কোন উৎসব উপলক্ষে। তাও পরিমিত।
৮. সবুজ শাক সবজী নিয়মিত পাতে রাখুন। নানা রঙের সব্জী পাতে রাখুন। সসা, টমেটো সালাদ রাখুন। লেবু রাখুন।
৯. চিনির সঙ্গে বেশী মিষ্ট সম্পর্ক করবেন না। চিনির ব্যবহারে খুব কৃপণ হন।
১০. ফলাহার চলুক। ফল খাবেন নানা রঙ মিলিয়ে। রঙদার সবজী ফলমূল মানসিক স্বাস্থ্যর জন্যও খুব উপকারী।
১১. বাজারে বাহারি খাবার আছে। নিত্য নতুন আসছেও। এই এরাবিয়ান ফুড এলো। চলো খাই। এই ইউরোআমেরিকান খাবার এলো। চলো খাই। এই খাই খাই একদম বাদ। বার্গার, ফাস্ট ফুড, মাংসদার খাবার একদম খুব কম কম। বাঁচতে চাইলে বেশী বেশী, জিহবার আগ্রাসন নিয়ন্ত্রণ করতেই হবে।
শরমা খেতে শরম পেতে হবে। বয়কট করতে হবে সবরকম বেশী মাংসল , বেশী তেলযুক্ত খাবার। বয়কট করতে হবে নানা লোভনীয় খাবার। কবাব খেতে হবে কম কম।
কোন কিছুই একদম ছেড়ে দিতে বলছি না। তবে, বেশি বেশী একদম নয়।
মোগলদের মত প্রতিদিন মোগলাই বা বাদশাহী খাবার নয়। বরং বাঙালির মত পরিমিত খান। দীর্ঘ আয়ু নিন। কেরালায় এক আম্মা ৯৬ বছর বয়েসে এবার হেটে চলে ক্লাস এইট পাশে ফার্স্ট হয়েছেন। সারাজীবন সবাইকে খাইয়ে তিনি নিজে খেয়েছেন পরিমিত। তাই মন মেজাজ শরীরে এখনও আছেন ফুরফুরে।
১২. দুধ খাবেন। ননী নিয়ন্ত্রিত। তেল খাবেন কম। তাতে আপনার দম ক্ষমতা বাড়বে। ওজন নিয়ন্ত্রিত থাকবে। সুস্থ আয়ুও দীর্ঘ হবে।

আপনার মতামত দিন:


মন জানে এর জনপ্রিয়