Ameen Qudir

Published:
2017-01-19 06:55:50 BdST

জন্মদিনে বাবা শান্তস্বরে বললেন


 

ডা. তিতাস মাহমুদ
___________________________

দেশবরেণ্য সাহিত্যিক , নাট্যজন শিক্ষক মমতাজ উদ্দিন আহমদের জন্মদিনে তাঁর সন্তানের শ্রদ্ধার্ঘ্য।


১৮ জানুয়ারী আমার বাবার জন্মদিন (১৮ জানুয়ারী ১৯৩৫)। জন্মদিনে আমরা কি করি? পছন্দের নানারকম প্রিয় জিনিস কিনে উপহার দেই। আমার বড় ছেলে জুনায়েদের জন্মদিনে, আমার বাবা হাসতাপাতালের কেবিনে একটি কলম এবং ছোটদের জন্যে তাঁর লেখা মুক্তিযুদ্ধের বই 'সজল, তোমার ভালেবাসা' নিয়ে এসেছিলেন। আজ আমার বাবা ৮৩ বছরে পা দিলেন। তাঁকে জন্মদিনে কি উপহার দেবো, তাই ভাবছি!

 

আমি যদি শিল্পী Tajul Imam হতাম, এমনি একটি পোট্রেট এঁকে আজ তাঁর দু'টো পা জড়িয়ে বসে থাকতাম।

সকালে ঘুম ভাঙার পর থেকেই ভাবছি এবং সত্যি দেখলাম, আমি এই জীবনে আমার বাবাকে কোন উপহার দেই নি। তিনি আমেরিকায় বেড়াতে এলেন, আমি পুরো শহর তন্ন তন্ন করে খুঁজে তাঁর জন্যে আড়াই হাত বহরের পছন্দের কোন পান্জাবীর কাপড় পেলাম না।

 

সকালে বাবাকে ফোন করে ' শুভ জন্মদিন' জানালাম। লজ্জার মাথা কুঁটে তাঁকে বললাম, 'আব্বা, আমার মন আজ খুব খারাপ। আপনি আমাকে সবই দিয়েছেন, কিন্তু আমি আপনাকে কিছুই দেই নি, এমনকি আপনার কোন জন্মদিনেও না। আমি আপনার সেই অক্ষম ছেলে, যে কিনা তার বাবার এতটুকু অভাব মেটাতে পারে না।'

আমার বাবা শান্ত স্বরে ওপার থেকে বললেন, 'আমার তো কোন অভাব নেই বাবা। তুমি আমাকে জুনায়েদ, জুবায়ের দিয়েছো, আমার মতো স্বয়ংসম্পূর্ণ মানুষ এ পৃথিবীতে আর কেউ নেই।'

আমি আমার চোখের জল লুকিয়ে Shaila Chowdhury র হাতে ফোনটা দিলাম। তাঁর বাকি কথা 'মা মনি' র সাথেই হোক। মামনি ছাড়া শায়লার যে আরো দু'টো নাম আছে, তিনি তা ভুলেই গেছেন।


____________________________

ডা. তিতাস মাহমুদ । কবি ও প্রখ্যাত আবৃত্তি শিল্পী। সিএমসি ২৮।

আপনার মতামত দিন:


প্রিয় মুখ এর জনপ্রিয়