ডেস্ক

Published:
2022-09-11 09:35:13 BdST

ক্লিনিকের ম্যানেজার কাম রিসেপশনিস্টের তেজ ও যন্ত্রণায় চাকুরি ছাড়া ডাক্তার এখন বাংলাদেশের জনপ্রিয় কথাশিল্পী


ডা . মো. ফুয়াদ আল ফিদাহ

 


ডেস্ক
_________

ক্লিনিকের নন মেডিকেল ম্যানেজার কাম রিসেপশনিস্টের তেজ ও যন্ত্রণায় চাকুরি ছেড়ে বেকার বসেছিলেন এক তরুণ বাংলাদেশি চিকিৎসক। দুশ্চিন্তায় পেরেশান হয়ে শুরু করলেন লেখালেখি।
অবিশ্বাস্য হলেও সত্য মাত্র ১০ বছরের কম সময়ে সেই ডাক্তার এখন বাংলাদেশের কথাসাহিত্যর  জনপ্রিয় মুখ।
সম্প্রতি প্রকাশ হল তাঁর শততম বই। বিচিত্র সব বিষয়ে লেখেন তিনি। কোন কিছু বাদ যায় না। এটা এনে দিয়েছে তাঁকে অবিশ্বাস্য সাফল্য।
তাঁর নাম ডা . মো. ফুয়াদ আল ফিদাহ। বহুমাত্রিক বহুমুখী প্রতিভা।
তাঁর জবানীতে শোনা যাক তার লেখক হওয়ার কাহিনি।

ডা . মো. ফুয়াদ আল ফিদাহ
"
২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরের দিকে যখন ইন্টার্নশিপ শেষ হয়, তখন ঢাকায় চলে আসি৷ কিন্তু সিম্পল এমবিবিএসের অত্যধিক স্যাচুরেটেড মার্কেটে চাকরি পাইনি দুই মাস। একটা লোকাল হাসপাতালে ৪টা ডিউটি পেতাম মাসে। কিন্তু তার ম্যানেজার কাম রিসেপশনিস্ট (অবশ্যই নন-মেডিক্যাল)-এর তেজে সেটাও করা হয়নি।
বাসায় বসে বসে একঘেয়েমিতা আর ক্যারিয়ার নিয়ে দুশ্চিন্তার হাত থেকে বাঁচতে বই পড়তে আর রিভিউ লিখতে শুরু করি। সেই রিভিউ পড়ে একবার এক পাঠক বলেছিলেন—এত পারলে নিজে লেখে দেখান।
সেখান থেকে শুরু, কিন্তু শেষ হয়নি। এক-এক করে বই বের হতে থাকে। এরইমাঝে ২০২০ সালে প্রতিষ্ঠা করি বিবলিওফাইল। বাংলাদেশে আগাথা ক্রিস্টি, জেমস রলিন্স, স্টিফেন কিং (কিছু বই) সহ আরও বেশ কয়েকজন লেখকের অনুমোদিত অনুবাদ প্রকাশের অধিকার একমাত্র আমাদেরই।
তবে নিজের লেখাও থেমে থাকেনি। অনুবাদ, মৌলিক, সংকলিত গ্রন্থ—সব মিলিয়ে বের হতে যাচ্ছে আমার ১০০ তম বইটি। এদের মাঝে আছে সেবা, রোদেলা, ভূমিপ্রকাশ, অন্যধারা, আফসার ব্রাদার্স, বাতিঘর এবং আরও কিছু ছোটো-বড়ো প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত বই।
জনরা হিসেবে আমার লিখিত/অনুবাদিত বইয়ের মাঝে আছে থ্রিলার, মেডিক্যাল থ্রিলার, নন-ফিকশন, থিয়োলজি, সাই-ফাই, ফ্যান্টাসি, ইয়াং অ্যাডাল্ট, মিথলজি, নাটক, সেলফ হেল্প।
আসছে ২৪ সেপ্টেম্বর আমার ১০০-তম বইটির সম্ভাব্য প্রকাশের তারিখ। আমি সাধারণত নিজের সেক্টরের কোথাও কিছু বলি না, কেননা এখানে এসব কাজকে প্রায় সবাই তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের দৃষ্টিতে দেখে। কিন্তু উচ্ছ্বাসটুকু দাবিয়ে রাখা কঠিন।
আমার জন্য, আমার প্রকাশনীর জন্য দোয়া করবেন।
ধন্যবাদ

দেবী প্রতিমা কন্যার সঙ্গে লেখক ডা . মো. ফুয়াদ আল ফিদাহ

২.

সেই ২০১৫ সালে যখন প্রথম বইটি বের হয়, তখন কি ভেবেছিলাম যে ১০০ বইয়ের মাইলফলক ছোঁব?

আমার লেখালেখির ইতিহাস প্রতিকূলতার ইতিহাস। শুরুতে আমাকে পাঠক লেখক/অনুবাদক হিসেবে কম, অন্য কারণে চিনত বেশি। যেখানেই গেছি শুরু ৪টা বছরে, প্রথম থেকে হোক/মাঝে হোক/শেষে হোক, আমাকে আমার দুর্বল দিক ধরে আঘাত দেওয়া হয়েছে।

জানেন, এককালে প্রকাশনীতে আমার নাম জমা পড়ত—ব্ল্যাকলিস্ট করার জন্য। আবার বড়ো ভাই সুলভ আচরণ ভালোমানুষি দেখিয়ে, আমাকে একটা কিছু করতে বলে সেটারই বিপরীত কথা বলা হতো প্রকাশককে। আমার একটা বই রিজেক্ট হবার আনন্দে দুই সিনিয়র অনুবাদক পারলে মিলাদ দিতেন!

দেশের প্রখ্যাত দুটো প্রকাশনীর কাছে আমি লাখখানেকের বেশি টাকা পাই। অখ্যাত প্রকাশকের কাছে ৬০/৭০ হাজার। এই চারজন প্রকাশকের জন্য আমি নতুন কোনো প্রকাশনীর সঙ্গে কাজ করি না (আমার জন্য নতুন)।

পথচলায় লেখক/অনুবাদক হিসেবে মারুফ হোসেন, শুভঙ্কর শুভ পাশে না থাকলে আমি অনেক আগেই বন্ধ হয়ে যেতাম। গত তিন বছরে তো Sabbir Hossain ছিলই সাপোর্ট সিস্টেম হিসেবে। তার আগে ছিল আর এখনও আছে বড়ো বোন, বউ, Sharif Mohammad (শেষের জনের কাছে কমপ্লিমেন্ট চেয়ে নিতে হয়—এই যা)।

Zakir Hossain, Md Faruk Hossain, Riaz Khan—এই তিনজন নির্ভরতার জায়গা হয়ে উঠেছে। জাকির ভাই তো একটু বেশিই আপন হয়ে গেছেন!

প্রতিটা মানুষের কিছু স্ট্রিক্টনেস থাকে। যখন প্রশ্নটা পেশার, তখন মূল পেশা না হলে সেই স্ট্রিক্টনেসটা কিংবা ড্যাম কেয়ার ভাবটা বেড়ে যায়, এক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। হয়তো সেজন্যই অনেকের সঙ্গেই আর স্পিকিং টার্মসে নেই৷ তবে থাকতে পারলে ভালো হইত৷ দোষটা আমারই, সেজন্য আফসোসও হয়।

১০০-তম বই বেরোতে যাচ্ছে৷ এর মাঝে বেনামে লেখা পুরো/আংশিক বই নেই। আবার সর্বসাকুল্যে ৭/৮টা বই আছে যেখানে কোনো না কোনো কারণে সহ-অনুবাদকদের নাম নেই। বেনামি বইয়ের সংখ্যা এর দ্বিগুণ হবে।

বই বের হইছে, এই মর্মে ধরেই ১০০। কেননা আমি একমাত্র একটা বই-ই সংকলনে ছিলাম। মানে প্রচ্ছদে আমার নাম ছিল। সম্মানিত প্রকাশক অধিকাংশ গল্প রেখে আমাকে বাদ দেওয়ার জন্য আমার গল্পই কেটে ফেলেছেন। তবে বইয়ের যে অংশগুলো ও গল্পগুলো আমার সম্পাদনা করা, সেগুলো কী করেছেন তা জানা নেই। আমি অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি, তাঁর প্রকাশনী থেকে বের হওয়া অন্যান্য বইগুলো কী করেন, তা দেখার জন্য।

যাক সে কথা, এমন বোধহয় অল্প কিছু বই নেই বাজারে। তাই এটাকেও তার মাঝে ফেলেই ১০০-তম বই হিসেবে ধরে নিলাম জাপানের পুরাণকে।

পরবর্তী টার্গেট—২৫০ বই। হবে? নাকি হবে না? সময়ই তা বলে দেবে।

প্রি-অর্ডার করা যাবে— বিবলিওফাইলের পেজে ও Bibidh - বিবিধ-এ। বাকি কোথাও নেবে কি না, জানি না; তবে এটাও একটা মজার ব্যাপার। বুক চিতিয়ে বলা যায়—আমি যা, তা নিজের গরজেই। না কখনও কোনো প্রকাশনীর নাম আমার কাজে এসেছে, আর না আমাকে নিয়ে কেউ কাজ করেছে।
এই পরিচয়টাও খারাপ না।

__________

ডা. মো. ফুয়াদ আল ফিদাহ
শেবাচিম_২০০৫-০৬
এমফিল ক্যান্ডিটেড (পিএসএম)
নিপসম।"

আপনার মতামত দিন:


প্রিয় মুখ এর জনপ্রিয়