Ameen Qudir

Published:
2017-03-13 06:47:04 BdST

বাংলাদেশের সত্যিকারের রজনীকান্ত


 

 


আহির ফা হিয়ান বুবকা
________________________________

 

 

দেশ থেকে ডাক্তার তাড়ালে একসময় প্রতিষ্ঠা পান বিশ্বসেরা মুখ হয়ে : পরে তারাই ফিরে আসেন দেশের কল্যাণে ।

এরকম একাধিক মহৎ দৃষ্টান্ত রয়েছে। দেশে তাদের কাজ করতে দেয়া হয় না। তাদের যোগ্যতা ও অধিকারকে স্বীকার করা হয় না। তাদেরকে দূর দূর করে তাড়ানো হয়।
ডাক্তারসহ পেশাজীবীদের অনেকের ভাগ্যেই এই দু:খজনক ঘটনা ঘটে চলেছে।

অথচ বাংলা দেশের প্রতি তাদের কী মহান কমিটমেন্ট দেখুন। বিশ্বসেরা মানুষ হওয়ার পর তারা আবার ফিরে অাসেন স্বদেশেই। মানুষের কল্যাণে নিয়োগ করেন নিজেদের। এটা মহাতারকা রজনীকান্তর সিনেমা নয়।

বাংলার মাটি জন্ম দিয়েছে সত্যিকারের রজনীকান্তকে।
মিডিয়ার তথ্য নিয়ে আজ জানাই বাংলার রজনীকান্ত ডা.কালি প্রদীপ চৌধুরীর কথা।

পরিশ্রম আর নিজ যোগ্যতায় ডা. কালি প্রদীপ চৌধুরী এখন বিশ্বের সেরা ধনাঢ্য ব্যক্তিদের একজন। বিশ্বের প্রায় ৮টি দেশ রয়েছে তাঁর ২৫ ধরণের ব্যবসা। ক্যালিফোর্নিয়ায় আছে সাড়ে ৩কি.মি. আয়তনের বিশাল বাড়ি। ভারতে আছে ১৬টি চা-বাগান, যার মধ্যে আছে ৫০০০০ একরের আয়তন বিশিষ্ট চা বাগান। ইউক্রেনে আছে নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট। যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতে আছে ১০০০ শয্যা বিশিষ্ট ২৬টি বিশ্বমানের মেডিকেল কলেজ।

এর বাইরে আছে বিশ্বের মোড়লদের সাথে সখ্য। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, সাবেক প্রেসিডেন্ট রিগ্যান, জর্জ বুশ, সিনিয়র বুশ, হিলারি ক্লিনটন এরা তার নিয়মিত ডিনার সঙ্গী। তাঁর সম্মানে যুক্তরাষ্ট্রে ৫৫ কি.মি দীর্ঘ সড়কের নামকরণ করা হয়েছে।

কালি প্রদীপ দত্ত চৌধুরীর জন্ম সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার ঢাকা দক্ষিণ এলাকার দত্তরাইল গ্রামে।

জমিদার পরিবারের সন্তান কালি প্রদীপ দত্ত চৌধুরীর ছেলেবেলা কেটেছে সিলেটেই। বিশ্বসেরা ব্যক্তিদের একজন তিনি। কিন্তু ভুলেননি স্বদেশকে। ছোটে এসেছেন অনেক স্বপ্ন নিয়ে। সিলেটের ঢাকা দক্ষিণে নিজ গ্রামেই প্রতিষ্ঠা করেছেন ৩টি কলেজ, এর মধ্যে একটিতে আছে ৫টি বিষয়ে অনার্স কোর্স। কিন্তু কালী প্রদীপ অন্যভাবে স্বপ্ন দেখছেন।

সারাদেশে আছে এখন পর্যন্ত একটিমাত্র মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। সিদ্ধান্ত নিলেন নিজ গ্রামে পৈতৃক সম্পত্তির ৩৫ একর জায়গা জুড়ে নির্মাণ করবেন বিশ্বমানের একটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। কালি প্রদীপ উদ্যোগে ঢাকা দক্ষিণে স্থাপিত হচ্ছে আরেকটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে অর্থমন্ত্রী এবং অর্থমন্ত্রীর সহোদর সাবেক রাষ্ট্রদূত একেএম আব্দুল মুবিন দায়িত্ব নিয়েছেন মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়টি তৈরির। প্রপিতামহ কালিকাপ্রসন্ন দত্ত চৌধুরীর স্বপ্ন বড় পরিসরে বাস্তবায়িত হবে এই স্বপ্ন দেখেন ডা. কালীপদ ও সহোদরা তৃঞ্চা দত্ত।

এদিকে বাংলাদেশের সহ বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম টাওয়ার নির্মাণের কাজ শুরু করেছেন ড. কালি প্রদীপ। রাজধানী ঢাকার পূর্বাচল এলাকায় ১৪২ তলা বিল্ডিং নির্মাণ করছেন কালি প্রদীপ। কালি প্রদীপ দত্ত চৌধুরী টাওয়ার, দত্তরাইল (কেপিসি টাওয়ার) নামের এই টাওয়ারটি আগামী ১২ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করার কথা। এর পরই শুরু হবে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ। মেডিকেল বাস্তবায়ন সহ অন্যান্য কাজে এলাকার সকলের সহযোগিতা চান সিলেটের এককালের দাপুটে জমিদার পরিবারের সন্তান ডা. কালি প্রদীপ চৌধুরী।

______________________________

আহির ফা হিয়ান বুবকা। নির্বাহী সম্পাদক, ডাক্তার প্রতিদিন।

আপনার মতামত দিন:


প্রিয় মুখ এর জনপ্রিয়