Desk

Published:
2022-07-17 09:29:38 BdST

লিফটে হামলার শিকার চট্টগ্রাম মেডিকেলের অধ্যাপক-ডাক্তার সুবিচার পাবেন কি



সংবাদদাতা
_____________________

লিফটে সিএমসির অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরীর ওপর ন্যক্কারজনক হামলা, হুমকি-ধামকি র ঘটনায় উত্তেজনা বিরাজ করছে চট্টগ্রামের সর্বস্তরের চিকিৎসক মহলে। সারাদেশে শিক্ষক , অধ্যক্ষ মারপিটের ঘটনায় সর্বস্তরে তোলপাড় চললেও চট্টগ্রামে মেডিকেল অধ্যাপকের ওপর নিকৃষ্ট হামলা বিচার হবে কিনা, এ নিয়ে সংশয় চিকিৎসক মহলে। তবে , চট্টগ্রামে প্রতিবাদ চলছে। এই প্রতিবাদ যেন বিচার সুনিশ্চিত করে , এটাই ডাক্তারদের দাবি। ডাক্তাররা কাজের পরিবেশ চান, নিরাপত্তা চান , মানুষের জীবন রক্ষার বিনিময়ে তারা নিজেদের জীবন সন্ত্রাসীদের হাতে নিয়মিত মারপিটের শিকার হচ্ছেন , এই করুণ চিত্রের পরিবর্তন দেখতে চান ডাক্তাররা।


চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ শিক্ষক সমিতি, চট্টগ্রাম বিএমএ ও কেন্দ্রীয় বিএমএ পৃথক বিবৃতিতে জানান,
গত ৩রা জুলাই ২০২২ তারিখে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের লিফটে অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর মোঃ রিয়াজুল ইসলাম তার কতিপয় সহযোগীসহ শারীরিকভাবে আক্রমণ করে। পরবর্তীতে উক্ত ব্যক্তি তার প্রভাবশালী আত্মীয় উপ-সচিব এর নাম উল্লেখ করে বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধামকি প্রদান করে।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ শিক্ষক সমিতির
সাধারণ সম্পাদক
ডা. প্রণয় কুমার দত্ত এক বিবৃতিতে জানান,


চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডাঃ মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর সংঘটিত ন্যাক্কারজনক

হামলা এবং পরবর্তীতে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়েরের প্রতিবাদে মানব বন্ধন ও সমাবেশ করেছে সর্বস্তরের চিকিৎসক শিক্ষক নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, কর্মকর্তা ও কর্মচারী সংগঠনসমূহ ।

 

বৃহস্পতিবার (৭ জুলাই) দুপুর ১২ টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের প্রধান ফটকের সামনে ওই মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

 

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ মনোয়ার উল হক এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক ডা. প্রণয় কুমার দত্ত এর সঞ্চালনায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন চট্টগ্রাম শাখার সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. মুজিবুল হক খান, সাধারণ সম্পাদক ডাঃ ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক ডা. মোহাম্মদ শরীফ, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক সাহেনা আক্তার, উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মো. হাফিজুল ইসলাম, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সিনিয়র স্টোর অফিসার ডা. মো. হুমায়ুন কবির, পোস্ট গ্রাজুয়েট স্টুডেন্টস ডক্টর্স অ্যাসোসিয়েশন এর সভাপতি ডা. মো. সাইফ উদ্দিন, বাংলাদেশ নার্সেস অ্যাসোসিয়েশন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এর সহ সভাপতি নাজনীন আক্তার, তৃতীয় শ্রেণীর মেডিকেল সরকারি কর্মচারী সমিতির সভাপতি এস এম হেলাল উদ্দিন পান্না, চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারী সমিতির শাখার সভাপতি আব্দুল মানিক প্রমূখ।

 

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তরা বলেন, গত ৩ জুলাই, ২০২২ তারিখে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসাইন এর আত্মীয় পরিচয়ে জৈনিক রিয়াজুল ইসলাম চিকিৎসক ও স্টাফদের জন্যে সংরক্ষিত লিফটে জোরপূর্বক প্রবেশ এবং এ নিয়ে সৃষ্ট বচসায় কোন সংশ্লিষ্টতা না থাকা সত্ত্বেও সম্পূর্ণ উস্কানিমূলকভাবে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অর্থোপেডিক সার্জারী বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ মোঃ মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর হামলা করে উনাকে মারাত্মকভাবে আহত করা হয়। এ ঘটনায় হাসপাতালের পরিচালক মহোদয়ের নির্দেশে অভিযুক্ত সন্ত্রাসীকে তাৎক্ষণিকভাবে ধরে পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয় এবং অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। পরবর্তীতে অভিযুক্ত ব্যক্তি জামিনে মুক্ত হয়ে সেই কথিত আত্মীয়ের প্রভাব খাটিয়ে তার স্ত্রীকে দিয়ে হামলা ও নারী নির্যাতনের একটি মিথ্যা মামলা প্রথমে থানায় চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে পরে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দায়ের করে।

 

বক্তারা ডাঃ মোঃ মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর সংঘটিত ন্যাক্কারজনক হামলা এবং পরবর্তীতে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়েরের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে বলেন, চিকিৎসকদের জন্যে কাজের নিরাপদ ও সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিতের দাবিতে চিকিৎসক সমাজ সর্বদা সোচ্চার ভূমিকা পালন করে আসছে এবং বক্তারা মনে করে, হাসপাতালে এরকম ঘৃণ্য কার্যকলাপ চলতে থাকলে এর ফলে রোগীদের সেবা প্রদান মারাত্মকভাবে ব্যাহত হবে।

 

তদুপরি কিছু বিপথগামী প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী কর্তৃক অন্যায়ভাবে প্রভাব খাটানো বা প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করে অন্যায় কাজকে উৎসাহিত করা কোনভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়। এধরণের ঘৃণ্য কার্যকলাপ কঠোরভাবে দমন করার দাবি জানান।

 

বক্তারা এধরণের কার্যকলাপের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে।

 

চিকিৎসকসমাজ নিবিড়ভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে এবং অবিলম্বে ডাঃ মোঃ মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছে।

 

অন্যথায় আগামীতে আরো কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

 

 

ডা. প্রনয় কুমার দত্ত

আর এক বিবৃতিতে জানান,


চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অর্থোপেডিক সার্জারী বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর রোগীর দর্শনার্থী কর্তৃক হামলা এবং হয়রানীমুলক মিথ্যা মামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ।

গত ৩রা জুলাই ২০২২ তারিখে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের লিফটে অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর মোঃ রিয়াজুল ইসলাম তার কতিপয় সহযোগীসহ শারীরিকভাবে আক্রমণ করে। পরবর্তীতে উক্ত ব্যক্তি তার প্রভাবশালী আত্মীয় উপ-সচিব এর নাম উল্লেখ করে বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধামকি প্রদান করে।

চিকিৎসকদের সরকারি কাজে বাধা প্রদান করেও তারা ক্ষান্ত হয় নাই উপরন্তু গত ৫ জুলাই ২০২২ তারিখে মিথ্যা ও বানোয়াট নারী নির্যাতনের অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করে।

ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের একজন সিনিয়র শিক্ষক ও চিকিৎসক। অদ্য ৬ জুলাই ২০২২ তারিখ সকাল সাড়ে ৯ টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ শিক্ষক সমিতির এক জরুরী সভায় এই চিকিৎসকের উপর নির্যাতন ও মিথ্যা মামলার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে ।

সারাদেশে শিক্ষক নির্যাতনের ধারাবাহিকতায় শিক্ষকের উপর এই আক্রমণে চট্টগ্রাম মেডিকেল শিক্ষক সমিতি মর্মাহত। শিক্ষক সমিতি শিক্ষকদের নিরাপত্তা ও সুষ্ঠু কর্মপরিবেশ রক্ষায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী প্রতিষ্ঠান ও রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ কামনা করে।

বার্তা প্রেরক

 

ডা. প্রণয় কুমার দত্ত

সাধারণ সম্পাদক

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ শিক্ষক সমিতি।

------------
চট্টগ্রাম বিএমএ এর সভাপতি অধ্যাপক ডা. মুজিবুল হক খান এবং সাধারণ সম্পাদক ডা. মোঃ ফয়সল ইকবাল চৌধুরী বিবৃতিতে যা বলেন ,

 


চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অর্থোপেডিক সার্জারী বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর রোগীর দর্শনার্থী কর্তৃক হামলা এবং হয়রানীমুলক মিথ্যা মামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ অর্থোপেডিক সার্জারী বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর রোগীর দর্শনার্থী কর্তৃক হামলার ঘটনায় চট্টগ্রাম বিএমএ এর সভাপতি অধ্যাপক ডা. মুজিবুল হক খান এবং সাধারণ সম্পাদক ডা. মোঃ ফয়সল ইকবাল চৌধুরী তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এক যুক্ত বিবৃতিতে তারা বলেন, গত ৩রা জুলাই ২০২২ তারিখে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের লিফটে অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর মোঃ রিয়াজুল ইসলাম তার কতিপয় সহযোগীসহ শারীরিকভাবে আক্রমণ করে। পরবর্তীতে উক্ত ব্যক্তি তার প্রভাবশালী আত্মীয় উপ-সচিব এর নাম উল্লেখ করে বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধামকি প্রদান করে।

চিকিৎসকদের সরকারি কাজে বাধা প্রদান করেও তারা ক্ষান্ত হয় নাই উপরন্তু গত ৫ই জুলাই ২০২২ তারিখে মিথ্যা ও বানোয়াট নারী নির্যাতনের অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করে।

ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের একজন সিনিয়র শিক্ষক ও চিকিৎসক। অদ্য ৬ই জুলাই ২০২২ তারিখ এক জরুরি সভায় চট্টগ্রাম বিএমএ চিকিৎসকের উপর নির্যাতন ও মিথ্যা মামলার বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে। এই ঘটনার প্রতিবাদে আগামীকাল ৭ই জুলাই দুপুর ১২টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এর প্রধান ফটকে এক প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন আয়োজন এর সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। চিকিৎসক নির্যাতন এবং মিথ্যা মামলা অনতিবিলম্বে প্রত্যাহার না করা হলে কর্মবিরতিসহ কঠোর পদক্ষেপ নিতে চট্টগ্রাম বিএমএ বাধ্য হবে।

সারাদেশে চিকিৎসক নির্যাতনের ধারাবাহিকতায় চিকিৎসকের উপর এই আক্রমণে চট্টগ্রাম বিএমএ মর্মাহত। চট্টগ্রাম বিএমএ চিকিৎসকদের নিরাপত্তা ও সুষ্ঠু কর্মপরিবেশ রক্ষায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী প্রতিষ্ঠান ও রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ কামনা করে।

 

বার্তাপ্রেরক

 

ডা. মোহাম্মদ ফয়সল ইকবাল চৌধুরী

সাধারন সম্পাদক

বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন

চট্টগ্রাম শাখা।


---------------------------

কেন্দ্রীয় বিএম এ যা বলছে,

বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন (বিএমএ)’র সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন এবং মহাসচিব ডা. মোঃ ইহতেশামুল হক চৌধুরী নিন্মলিখিত বিবৃতি প্রদান করেনঃ-

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ অর্থোপেডিক সার্জারী বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর রোগীর দর্শনার্থী কর্তৃক হামলার ঘটনায় বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করছে ।

গত ৩রা জুলাই ২০২২ খ্রিঃ তারিখে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের লিফটের মধ্যে কতিপয় সহযোগীসহ এক রোগীর দর্শনার্থী মোঃ রিয়াজুল ইসলাম অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর শারীরিকভাবে আক্রমণ করে। পরবর্তীতে উক্ত আক্রমণকারী সরকারের উপ-সচিব পদধারী তার এক আত্মীয়ের নাম উল্লেখ করে চিকিৎসককে বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রদর্শন করে। একজন সরকারি চিকিৎসকের ডিউটিকালীন সময়ে সরকারি কাজে বাধা প্রদান করার পর গত ৫ই জুলাই ২০২২ খ্রিঃ তারিখে আক্রমণকারী উক্ত চিকিৎসকের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করে।

বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন ডা. মিজানুর রহমান চৌধুরীর উপর আক্রমণকারীদের অবিলম্বে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি প্রদান ও তার বিরুদ্ধে আনীত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নিকট জোর দাবী জানাচ্ছে ।

বার্তা প্রেরক-

ডা. মোহাঃ শেখ শহীদ উল্লাহ
দপ্তর সম্পাদক
বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন

 

আপনার মতামত দিন:


ক্লিনিক-হাসপাতাল এর জনপ্রিয়