Desk

Published:
2022-07-03 10:08:39 BdST

'আস্থার প্রতীক ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল' শিরনামে যা লিখেছে ইত্তেফাক


সৌজন্যে দৈনিক ইত্তেফাক;ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে বেড না পেয়ে প্রতিদিন মেঝেতে অবস্থান করে বিপুলসংখ্যক রোগী। আর এখানে থেকেই তারা পাচ্ছে জটিল অপারেশনসহ অন্যান্য রোগের চিকিত্সা। গতকাল সকালে হাসপাতালের সিঁড়ি থেকে তোলা ছবি —আব্দুল গনি


ডেস্ক
_______________

'আস্থার প্রতীক ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল' শিরনামে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ঢাকার পুরোনো দৈনিক ইত্তেফাক। পুরো রিপোর্টটি ইত্তেফাকের সৌজন্যে এখানে পাঠকদের জন্য প্রকাশ হল।
ডা. আতিকুজ্জামান ফিলিপ এই রিপোর্ট সম্পর্কে লিখেছেন ,
দৈনিক ইত্তেফাকে সাংবাদিক আবুল খায়ের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে নিয়ে একটি রিপোর্ট করেছেন। শিরোনাম করেছেন,
'আস্থার প্রতীক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।'

শিরোনামটি তিনি যথার্থই দিয়েছেন। এ যেন খাজা বাবার দরবার, এখান থেকে কেউ ফেরে না খালি হাতে। যার কোথাও আর যাওয়ার জায়গা নেই তার শেষ আশ্রয় এই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।
দেশের অপরাপর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কিংবা জেলা হাসপাতালগুলোতেও আমরা চিকিৎসকরা তাদের সর্বোচ্চটা দিয়ে রুগিদের সেবা দেওয়ার চেষ্টা করি। তারপরেও বিভিন্ন সঙ্গতকারনে রুগিদেরকে অনেকসময়ই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা ছাড়া আমাদের চিকিৎসকদেরও আর কোন উপায় থাকে না।
এভাবে অন্যান্য জেলা হাসপাতাল বা মেডিকেল কলেজ কলেজ হাসপাতালগুলো বিভিন্ন যৌক্তিক কারনে রুগি ফিরিয়ে(রেফার) দিলেও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে যেন রুগি ফিরিয়ে দেওয়ার আর কোন উপায় নেই।
তাই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল যথার্থই রুগিদের শেষ আশ্রয়স্থল।
রিপোর্টটিতে ঢাকা মেডিকেল কলেজের প্রকৃতচিত্র ফুটে উঠেছে। সীমীত জনবল আর ভগ্নপ্রায় লজিস্টিক সাপোর্ট নিয়ে বছরের পর বছর ধরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ ঢাকাসহ সারাদেশের রুগিদের যে সেবা দিয়ে আসছে তা সত্যিই এক বিরল দৃষ্টান্ত।
বিশ্বের কোথাও এমন ছয় আনার লজিস্টিক সাপোর্ট দিয়ে ষোল আনার সার্ভিস দেওয়ার নজির নেই।
জনবল এবং লজিস্টিক সাপোর্টের ক্ষেত্রে দেশের সকল হাসপাতালের চিত্রই প্রায় একইরকম। ছয় আনার লজিস্টিক সাপোর্ট দিয়ে ষোল আনার সার্ভিস!
সাংবাদিক আবুল খায়েরকে ধন্যবাদ এমন একটি ইতিবাচক রিপোর্ট করে দেশের চিকিৎসাসেবার প্রকৃত চিত্র তুলে ধরার জন্য।


'আস্থার প্রতীক ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল'
_________________________

আবুল খায়ের


দেশের সাধারণ মানুষের চিকিত্সা সেবা পাওয়ার শেষ ভরসাস্থল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের। প্রাচীন এই হাসপাতালে রয়েছে তীব্র শয্যা সংকট। নেই পর্যাপ্ত জনবল। এই সীমাবদ্ধতার মধ্যেও হাসপাতালটি সাধারণ মানুষের আস্থার প্রতীক হয়ে ওঠেছে। কারণ, দুর্ঘটনায় আহত/জখম, আগুনে দগ্ধ, জটিল ও দূরারোগ্যসহ নানা রোগে আক্রান্ত যেকোনো রোগী এই হাসপাতালে পৌঁছতে পারলে চিকিত্সা সেবা পাবেনই-এমনটা মনে করেন। আর তাই সারাদেশের প্রত্যন্ত এলাকা থেকে প্রতিদিন বহু রোগী ছুটে আসেন এই হাসপাতালে।

যে জনবল রয়েছে, সেই জনবল দিয়েই দিন-রাত চব্বিশ ঘণ্টা সেবা দেন প্রতিষ্ঠানটির চিকিৎসক-নার্স ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। দেশের সব বিভাগ, জেলা ও উপজেলা থেকে শুরু করে রাজধানীর সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলোও অনেক রোগী ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। চিকিৎসার জন্য আসা কোনো রোগীকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ফেরত পাঠায় না। বেডে না হোক, ফ্লোরে, ওয়ার্ডের বারান্দায়, সিঁড়ির নিচে, হাসপাতাল-২ এর সংযোগকারী ফুটওভার ব্রিজের মাঝামাঝি ও বাথরুমের বারান্দায় হলেও ঠাঁই হয়। তবে যেখানেই রোগীরা থাকুক না কেন তাদের সুচিকিত্সা নিশ্চিত করা হয়। করোনার ভয়াবহ থাবার সময় কোভিড ও নন- কোভিড রোগীদের সমানতালে চিকিত্সা সেবা দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করে এই হাসপাতাল। ওই সময় কোভিডের জন্য নন- কোভিড রোগীদের চিকিত্সা সেবায় কোনো ধরনের সমস্যা হয়নি। গতকাল শনিবার ইত্তেফাকের এই প্রতিনিধি সরেজমিনে হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে কর্তব্যরত চিকিৎসক, নার্স ও রোগী ও তাদের অভিভাবকদের সঙ্গে চিকিত্সা সেবা নিয়ে বিস্তারিত আলাপ করেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল-২ ও সাবেক বার্ন ইউনিট মিলে প্রতিষ্ঠানটিতে বর্তমানে দুই হাজার ৯০০ শয্যা রয়েছে। যদিও এখানে প্রতিদিন গড়ে চার সহস্রাধিক রোগী চিকিৎসাধীন থাকেন। জরুরি বিভাগ এবং বহির্বিভাগ মিলে প্রতিদিন প্রায় ১০ হাজার মানুষ এই হাসপাতালে চিকিত্সা নেন। একই ছাতার নিচে মেলে সব ধরনের চিকিত্সা সেবা। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ৪২টি অপারেশন থিয়েটার আছে। গাইনির জন্য পৃথক অপারেশন থিয়েটার আছে। নিউরো সার্জারি, গাইনি ও ক্যাজুয়েলটিসহ সব ধরনের জরুরি অপারেশন ২৪ ঘণ্টাতেই হয়ে থাকে। প্রতিদিন ঘটনা-দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের সংকটাপন্ন গড়ে দুই শতাধিক রোগী জরুরি বিভাগে চিকিৎসার জন্য আসেন। এরমধ্যে ৯৫ ভাগ রোগীকে ভর্তি করা হয়। জরুরি বিভাগ ২৪ ঘণ্টাই খোলা থাকে। কার্ডিয়াক সার্জারি, ডায়াবেটিস, গ্যাস্ট্রোলিভার, থোরাসিক সার্জারি, ক্যান্সার, কিডনিসহ সব ধরনের বিশেষায়িত ইউনিট আছে। সব মিলিয়ে মোট ৩৭টি বিভাগ আছে। প্রায় ১৮০০ চিকিৎসক, ২৬৫০ নার্স ও অন্যান্য কর্মচারী দিনরাত চিকিত্সা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এনেসথেসিওলজিস্ট সংকট প্রকট। ডাক্তার, নার্সসহ স্বাস্থ্য সেবা কর্মীদের টানা ২৪ ঘণ্টা জরুরি অপারেশনসহ চিকিত্সা সেবা দিতে হয়। রোগীদেরকে নিজের সন্তান, বাবা-মা, ভাই-বোন মনে করে চিকিত্সা সেবা প্রদান করেন। সাব- স্পেশালাইজড ইউনিটে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক আছেন। কিন্তু ওই ধরনের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত অন্যান্য জনবল নেই। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ২০১০ সালের পর থেকে কোন জনবল নিয়োগ দেওয়া হয়নি। অথচ এই সময় পর্যন্ত তিন ভাগের এক ভাগ জনবল অবসরে চলে গেছেন। দুই শতাধিক জনবলের পদ শূন্য রয়েছে।


ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের নিজস্ব প্রায় ২৫ একর জমিতে রয়েছে বিভিন্ন স্থাপনা। এসবের মধ্যে রয়েছে কলেজ ভবন, মিলনায়তন, পরমাণু চিকিত্সা কেন্দ্র, ছাত্র ও ছাত্রী হোস্টেল, বার্ন ইউনিট। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শুরুতে তৎকালীন ব্রিটিশ সরকারের কাছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কাউন্সিল মেডিক্যাল কলেজ স্থাপনের প্রস্তাব দেয়। ১৯৪৬ সালের ১০ জুলাই ঢাকা মেডিকেল কলেজ চালু হয়। ১৯৫৫ সালে একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য কলেজ ভবন নির্মাণ করা হয়। ১৯৭৫ সালে প্রশাসনিক সুবিধার্থে কলেজ ও হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ পৃথক করা হয়। কলেজের দায়িত্ব ন্যস্ত হয় অধ্যক্ষের ওপর, হাসপাতাল পরিচালনার দায়িত্ব অর্পণ হয় পরিচালকের ওপর। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঐহিতহাসিক ভূমিকা পালন করা প্রতিষ্ঠানটি ধনী-গরীব সবারই আস্থা অর্জন করেছে। চাহিদার ৯৫ ভাগ ওষুধই রোগীদের বিনামূল্যে দেওয়া হয়। আগত রোগীদের মধ্যে ৯০ ভাগই দরিদ্র-যাদের বাইরে চিকিত্সা ব্যয় বহন করা সম্ভব না।

গোপালগঞ্জের মকসুদপুরের মনোগ্রামের বাসিন্দা পান্থ মন্ডল (২৪) পেশায় মুদি দোকানদার। সড়ক দুর্ঘটনায় মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে তিনি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আসেন। তিনি বলেন, এই হাসপাতালে চিকিত্সা সেবা পেয়ে আমি সুস্থ। কোনো খরচ লাগেনি। নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের বাসিন্দা আনছার সদস্য ইমাম হোসেন (৩৩)। তার ব্রেন টিউমার হয়েছে। তিনি বলেন, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে অপারেশন করার পর তিনি এখন সুস্থ। বাইরে এই অপারেশন করার ব্যয় বহন করা আমার পক্ষে সম্ভব ছিল না। স্কুল ছাত্র জনি (১৫) গাছ থেকে পড়ে গিয়ে ঘাড়ে ব্যথা পেয়ে এই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের একলাসপুর গ্রামের বাসিন্দা সুজন (৩৫) পেশায় রাজমিস্ত্রী। দুর্ঘটনায় মাথায় আঘাত পেয়ে গত মঙ্গলবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। তিনি বলেন, কত জায়গায় গেছি, সঠিক চিকিত্সা সেবা পাইনি। শেষমেষ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিত্সা সেবা পেয়ে সুস্থ হয়েছি।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাজমুল হক বলেন, আমাদের জনবলের তীব্র সংকট রয়েছে। তারপরেও বিরামহীনভাবে চিকিত্সা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন ডাক্তার-নার্সসহ স্বাস্থ্যসেবা কর্মীরা। দেশের সাধারণ মানুষের চিকিত্সা সেবা পাওয়ার শেষ ভরসাস্থল এটি। সেই আস্থা ধরে রাখা বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমরা এই জনবল দিয়ে সর্বোচ্চ চিকিত্সা সেবা দেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল ক্যাম্পাসে আরো ৫ হাজার বেডের একটি হাসপাতাল তৈরি করার কার্যক্রম চলছে। এই হাসপাতালটি প্রতিষ্ঠিত হলে জনবলসহ অবকাঠামো বৃদ্ধি পাবে। রোগীদের শয্যা পেতে কোনো সমস্যা থাকবে না। রোগীরা বিনামূল্যে পাবেন অত্যাধুনিক চিকিত্সা।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. আশরাফুল আলম বলেন, করোনার ভয়াল থাবার মধ্যেও একাই ছাতার নিচে কোভিড ও নন-কোভিড রোগীদের চিকিত্সা সেবার ব্যবস্থা করেছিল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। ওই সময় দিনে দুই সহস্রাধিক নন- কোভিড রোগী চিকিৎসাধীন ছিল। একই সঙ্গে কোভিড রোগী ৯০০ থেকে এক হাজার ভর্তি ছিল। সীমিত জনবল দিয়ে এতো বড় চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হয়েছে। তিনি বলেন, এই হাসপাতালে করোনার প্রতিকারমূলক ব্যবস্থাও আছে। আট লক্ষাধিক মানুষের করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে। করোনার সময় ডাবলের চেয়ে বেশি জনবল থাকার কথা ছিল। কিন্তু জনবল বাড়েনি।

আপনার মতামত দিন:


ক্লিনিক-হাসপাতাল এর জনপ্রিয়