Ameen Qudir

Published:
2020-02-13 12:58:24 BdST

কনকর্ড আর্কেডিয়ায় হাসপাতাল: ল্যাবএইড ও ব্যবসায়ীদের পাল্টাপাল্টি বক্তব্য


ডেস্ক
______________

মার্কেটের জায়গা কিনে সেখানে ল্যাবএইড কর্তৃপক্ষ হাসপাতাল সম্প্রসারণ করেছে। এতে ব্যবসায় ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার অভিযোগ করেছেন ধানমণ্ডির কনকর্ড আর্কেডিয়া শপিং মলের দোকান মালিকরা।
ল্যাবএইড কর্তৃপক্ষ জবাবে বলেছে, কনকর্ড শপিং কমপ্লেক্সের কয়েকটি দোকান ল্যাবএইড কর্তৃপক্ষ কিনে নেয়। এরপর বিভিন্ন সময়ে দোকানগুলোতে সানাউল হকের লোকজন চাঁদাবাজি করে এবং দোকানগুলো জোরপূর্বক বন্ধ করে দেওয়া হয়।
একদিন দোকানগুলোতে রঙ মিস্ত্রীরা রঙ করার সময় তাদের উপর হামলা চালানো হয়। এক পর্যায়ে অস্ত্র ঠেকিয়ে সানাউল হকের লোকজন হুমকি দেয়। এরপর শখানেক লোকের দল নিয়ে ল্যাবএইডের ইমার্জেন্সিতে হামলা চালানো হয়। রোগীসহ অ্যাম্বুলেন্স পর্যন্ত আটকে দেওয়া হয়। তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ এসে সানাউল হককে গ্রেপ্তার করে। এরপর তিনি জামিনে ছাড়া পান।

মার্কেটের তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম তলাকে হাসপাতালের সঙ্গে এক করে দেওয়ার অভিযোগও অস্বীকার করে ল্যাবএইড কর্মকর্তারা।
ল্যাবএইডের এই কর্মকর্তারা বলেন, শপিং মলের পঞ্চম তলা মূলত ল্যাবএইডের ডক্টরস চেম্বারের জন্য বরাদ্দকৃত এবং এটি হাসপাতালের ক্রয়কৃত সম্পত্তি।
ব্যবসায়ীদের বক্তব্য
___________________
ওদিকে ল্যাবএইড হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বহিরাগতরা হামলা-ভাঙচুরের পর ‘মিথ্যা’ মামলা দিয়েছে অভিযোগ করে এর প্রতিবাদে বুধবার দুপুরে ওই শপিং মলের নিচতলায় সংবাদ সম্মেলন করে শপিং মলটির ওনার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন।

সেখানে বলা হয়, ২০০২ সালে কনকর্ড আর্কেডিয়া চালুর পর একে একে এর শতাধিক দোকান কিনে নেয় ল্যাবএইড কর্তৃপক্ষ। কেনার পর মার্কেটের তৃতীয় ও চতুর্থ তলায় হাসপাতালের কার্যক্রম সম্প্রসারিত করে তারা।

অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সানাউল হক নীরু বলেন, “হঠাৎ করে ২০০৫ সালে আমরা জানতে পারি, মার্কেটের তৃতীয় তলার ও চতুর্থ তলার মোট ১০২টি দোকান এবং পঞ্চম তলার ৭ হাজার বর্গফুট অফিস স্পেস কিনে নিয়েছে ল্যাবএইডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. এ এম শামীম।
দোকানগুলো কিনে নেওয়ার পর পর মার্কেটের তৃতীয়, চতুর্থ তলা ও পঞ্চম তলা ল্যাবএইডের পাশের অংশ ভেঙে হাসপাতালের সঙ্গে এক করে দেয়। এবং ওই ফ্লোরগুলোতে সাধারণ ক্রেতা ও মার্কেটের সংশ্লিষ্ট লোকজনের চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়।
রাজউকের নকশা অমান্য করে ল্যাবএইড মার্কেটে হাসপাতাল বানিয়েছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, রাজউক চতুর্থ তলা পর্যন্ত মার্কেটের অনুমতি দিয়েছে, কিন্তু ল্যাবএইড জোর করে হাসপাতাল বানিয়ে ফেলছে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শপিং মলের ওনার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি আল আমিন ও শাহীদ আহমেদ বাবু, সাধারণ সম্পাদক মোক্তার হোসেন, কোষাধ্যক্ষ ওয়াহিদুর রহমান, সদস্য ফরিদা রিফায়ার, সিরাজুল ইসলাম আকন্দ, মো. শাহীন ও খোরশেদ আলম।

তবে মার্কেটের দোকান ব্যবসায়ীদের অভিযোগ নাকচ করে উল্টো তাদের বিরুদ্ধেই হামলার অভিযোগ করেছে ল্যাবএইড কর্তৃপক্ষ।

আপনার মতামত দিন:


ক্লিনিক-হাসপাতাল এর জনপ্রিয়