Ameen Qudir

Published:
2019-09-23 12:15:02 BdST

ডিলিউশনাল ডিসওর্ডার"রাত বিরাতে ছোট ছেলে ঘরে না থাকলে মেজো ছেলেটা নাকি ছোট বউয়ের ঘরে ঢুকে যায়"


ডা. সাঈদ এনাম
সাইকিয়াট্রিস্ট

__________________________

কেইস হিস্ট্রি -১
স্যার আমার শ্বশুর মশায় কে নিয়ে আসছি। আপনাকে আগে একটু বলে ফেলি। উনার সামনে সব বলা যাবেনা।
আমার শ্বশুর ইদানীং খুব সন্দেহ করেন। যাকে তাকে নিয়ে সন্দেহ করেন। কোন বাছবিচার নেই। আর সন্দেহ এমন সব, যা বলার মতো না। এই ধরুন আমার শ্যালক এসেছে বিদেশ থেকে। তাকে বিয়ে করিয়েছেন। এখন তিনি ছোট বউকে সন্দেহ করেন। মেজো ছেলের নাকি ছোট বউ এর সাথে সম্পর্ক। রাত বিরাত ছোট ছেলে ঘরে না থাকলে মেজো ছেলেটা নাকি ছোট বউয়ের ঘরে ঢুকে যায়।
প্রমান চাইলে, তিনি বলেন আমি সব বুঝি। তিনি নাকি রাতে সব টের পান। আর কেবল সন্দেহ হলে কথা ছিলো। ক'দিন আগে মেজো বউকে ডেকে তিনি ফিসফিস করে বলেছেন, 'জামাইয়ের খবর টবর কিছু রাখো'। এনিয়ে মেজো ছেলে তার বউকে বুঝিয়েছে, 'দু'মাস আগে মা মারা যাবার পর থেকে তাদের বাবার সন্দেহ রোগ দেখা দিয়েছে'। মেজো বউ তা বিশ্বাস করেন নি। তিনি এসব কথাবার্তায় বিশ্রী কান্ডকীর্তি করে বাপের বাড়ি চলে গেছেন।
আবার ছোট ছেলেকে ডেকে বলেছেন, 'তুইতো বোকা। কিচ্ছু বুঝস না। মেজো ছেলের চরিত্র ভালো না'। ছোট ছেলে এসব বিশ্বাস করেননা। সে বলে, 'মেজো ভাইজান এমন না'। এ নিয়ে বাবা ছোট ছেলের ঝগড়া চলছে, কথাবার্তা বন্ধ।
এখন আবার ক'দিন থেকে বলছেন, 'ছোট ছেলেটা বেয়াদব। তার চরিত্র ও ভালো না। তার নাকি বড় ছেলের বউ এর সাথে সম্পর্ক। রাতবেরাত ঢুকে পড়ে'। সেটা আবার ঘরের নতুন ছোট বউকে ঢেকে বলেছেন। এ শুনে ছোট বউয়ের অবস্থা খারাপ। সে মূর্ছা যাচ্ছে বার বার। এ আমি কোন পরিবারে আসলাম। আমি ভয়ে আছি স্যার৷ বেচারির নতুন বিয়ে। এসব কথাবার্তায় না জানি সুইসাইড করে বসে।
'ত' আপনি কেনো নিয়ে আসলেন? বড়ছেলে, মেজোছেলে, ছোটছেলে ওরা কেউ আসেনি?'
'না স্যার। ওরা আসেনি, বিরক্ত হয়ে ওরা কেউ কথা বলেনা আমার শ্বশুরের সাথে। কত আর সহ্য করবে। আর আমি বাড়ির একমাত্র জামাই। আমাকে সবাই খুব মানেন। কিন্তু আমি আছি ভয়ে কবে আমাকে সন্দেহ করে বসেন। বাপরে বাপরে বাপ আমার বউ যে রাগী। শ্বশুর মশাই খামাখা কিছু বললে আমাকে আমার বউ সাক্ষাৎ মেরে ফেলবে। যা দজ্জাল বউ আমার।
এমনিতেই সারাক্ষণ আমারে সন্দেহ করে দৌড়ানীর উপর রাখছেন। রাস্তায় হাটাহাটি করি মাটির দিকে চেয়ে, খামাখা বলে, আমি নাকি এ মহিলার দিকে তাকাই, ঐ মহিলার দিকে তাকাই। আর বাপের মুখে যদি কিছু শুনে, সব শেষ। বাপের সন্দেহ রোগ, টন্দেহ রোগ এসব বুঝাবুঝি নাই। শ্বশুরালয় আমার জন্যে কুল্লে হারাম হয়ে যাবে'।
'স্যার আপনার দোহাই লাগে আমাদের বাঁচান। উনি যেভাবে আমাদের একজনের বউ এর সাথে আরেকজনের বউ নিয়ে উল্টো সিধা বলাবলি করছেন তাতে পাড়ায় ছি ছি পড়ে গেছে। যা রটে তার কিছুতো বটে। তার উপর রটনাকারী বাহিরের কেউ নয়, নিজেরই আপন বাপ'।
"কি ব্যাপার, চাচা আপনি কেমন আছেন"?
"জ্বী বাবা ভালো ছিলাম। কিন্তু সমস্যায় আছি"
"কি সমস্যা?"
"এই জামাই, তুমি বাইরে যাও। আমি একা কথা বলবো ডাক্তার সাহেবের সাথে। ডাক্তার সাব আপনাকে কানে কানে বলি, কাউরে বলবেন না। আমার জামাইর স্বভাবটা ইদানীং ভালো ঠেকতেছেনা। আমার ছোট ছেলের বউয়ের সাথে খালি ফুটুস ফাটুস করে। বুঝেনতো, যা জমানা আসছে। কাউরে দিয়া বিশ্বাস নাই..."
কেইস হিস্ট্রি -২
'স্যার আমার মায়ের অদ্ভুত সমস্যা। সারাক্ষণ বলেন, উনার গায়ের উপর দিয়ে নাকি পোকা হাটাহাটি আর কিলবিল করে। কালো কালো পোকা। অনেকটা মৌমাছির ছানাদের মতো সাদা আর হলুদ। তিনি চিমটি দিয়ে দিয়ে হাতে নেন আর আমাদের বলেন, 'দেখছিস কত পোকা। তোরা আমার গা মুছে দে, আমাকে গোসল করিয়ে দে'। সারাক্ষণ আমরা উনার গায় থেকে পোকা ধরে ধরে ফেলতে হয়। আর কিসের পোকা। আমরা শান্ত রাখতে উনার কথায় সায় দেই, আর পোকা ঝাড়ি'
'স্যার আর কত। কি হলো আমাদের মায়ের। উনার গায়েতো আদৌ কোন পোকা হাটাহাটি করেনা। একটা উকুন ও নেই মাথায়। যদি উকুন থাকতো তাহলে হয়তো না বুঝতাম উকুনের জ্বালায় হয়তো এমন করছেন। ডাক্তার দেখিয়েছি অনেক। কোন লাভ হয় নি। আমাদের বাঁচান। সারাদিন পোকা ঝাড়ার হাত থেকে বাঁচান। আমাদের সংসারের অন্য কাজকর্ম আছেতো..'

আপনার মতামত দিন:


ক্লিনিক-হাসপাতাল এর জনপ্রিয়