Ameen Qudir

Published:
2019-08-20 10:57:48 BdST

ডেংগু রোগীদের ব্যবস্থাপনায় মশারীর বিকল্প প্রস্তাব


 


ডা সুরেশ তুলসান
______________________________


ডেংগু রোগীদের চিকিৎসার জন্য সরকারি সকল হাসপাতাল এবং কিছু কিছু বেসরকারি হাসপাতাল যে সকল উদ্যোগ গ্রহণ করেছে তার মধ্যে একটি সাধারণ চিত্র হলো মশারী।
কোথাও ডেংগু রোগীর জন্য অতিরিক্ত বিছানা,
কোথাওবা আলাদা ওয়ার্ড, কোন কোন হাসপাতালে স্থান সংকুলান এর অভাবে পেইং বেড সেবা বন্ধ করে দিয়ে ডেংগু ওয়ার্ড চালু ইত্যাদি।
তবে সকল হাসপাতালের অতি সাধারণ একটা চিত্র হলো প্রত্যেকটা রোগীর জন্য আলাদা আলাদা সাদা ঝকঝকে মশারী। কোনটা একটু নিচু করে বাঁধা তো কোনটা আবার উঁচু।
আর সারা ওয়ার্ড জুড়ে মশারী টাঁঙানোর ফিতা, সুতলি, স্যালাইনের পাইপ বা প্লাস্টিকের সরু ফিতা।
এই দড়ি সুতলি ফিতার বাধা ডিঙিয়ে মশারী তুলে তুলে আলাদা আলাদা রোগীর চিকিৎসা করাটা যে কতটা কষ্ট সাধ্য তা ভুক্তভোগী ডাক্তার নার্স এবং সংশ্লিষ্টরাই শুধু জানেন।
এর মধ্যে যে সকল রোগীর অবস্থা সংকটাপন্ন তাদের ক্ষেত্রে অসুবিধা আরও বেশি।
উপরন্ত সব রোগী বিছানায় থাকলে না হয় কথা ছিলো।
বিছানায় যা রোগী আছে তারচে বেশি আছে ফ্লোরে।
তারপর আবার এখনকার আবহাওয়া হলো গরম আর আদ্রতাপূর্ন তাই রোগীদের সবারই হাঁসফাঁশ অবস্থা।
অবশ্য যেখানে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ওয়ার্ড সেখানকার অবস্থা অবশ্য আলাদা।
এরই মধ্যে গরমে অতিষ্ঠ এক রোগী প্রশ্ন করলেন, আমার যা হওয়ার (অর্থাৎ ডেংগু) তা তো হয়েই গেছে, আমাকে আবার মশারীর মধ্যে রাখছেন কেন ?
ডাক্তার কিছু বলার আগেই পাশেই ফ্লোরে শুয়ে থাকা আরেক রোগী উত্তর দিলেন, আমাদের শরীর থেকে ডেংগু যেন উনাদের ( চিকিৎসক, চিকিৎসা কর্মী) গায়ে বা বাইরে কোথাও যেন যেতে না পারে সেইজন্যই এই ব্যবস্থা।

এমনটা কি করা যেত না ?

১) যেসকল ডেংগু ওয়ার্ডে সম্ভব সেই সকল ওয়ার্ডে জানালা বা বারান্দায় মশা প্রতিরোধী নেট।
দিয়ে ঘিরে দেয়া।
ঠিক যেভাবে অনেকেই বাসা বাড়িতে মশা প্রতিরোধী নেট দিয়ে ঘিরে থাকেন।
২) ওয়ার্ডের ভিতরে মশা প্রতিরোধী বিভিন্ন গেজেট যেমন লিকুইড ইনসেক্টিসাইড ইভাপোরেটর ( সাধারণ ভাষায় বলতে গেলে লিকুইড, যেটা বৈদ্যুতিক সকেটে লাগিয়ে রাখলে ঘরে মশা থাকে না।)
অন্যান্য বিভিন্ন গেজেট সমুহ।
৩) ওয়ার্ডের এন্ট্রি পথে অর্থাৎ দরজায় এক বা দুই স্তরে পর্দার ব্যাবস্থা করা।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগন যদি বিষয়টি ভেবে দেখার মত একটু সময় পেতেন।

ডা সুরেশ তুলসান।
কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ।

আপনার মতামত দিন:


ক্লিনিক-হাসপাতাল এর জনপ্রিয়