Ameen Qudir

Published:
2019-06-04 17:42:09 BdST

জামালপুরে নারী উপ সহকারী চিকিৎসককে লুঙ্গি উচিয়ে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি ও যৌনহয়রানির হুমকি


 


জামালপুর সংবাদদাতা
_______________________

 

জামালপুরের ৫০ শয্যা বিশিষ্ট মেলান্দহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন নারী উপ সহকারী চিকিৎসককে যৌন হয়রানির হুমকি দিয়েছেন তারা মিয়া নামের স্থানীয় এক চা দোকানি। এ নিয়ে প্রতিবাদ চলাকালে তারা মিয়ার ছেলে ও সহযোগীরা লাঠিসোটা নিয়ে ওই নারী উপ সহকারী চিকিৎসককের কক্ষে হানা দিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়েছে। ২৭ মে সকাল ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
মেলান্দহ পৌরসভার গোয়ালপাড়া গ্রামের চা দোকানি তারা মিয়া তার মেয়ে তাহমিনার এক বছরের কন্যাশিশু মাশরুফাকে জ্বর ও ঠাণ্ডাজনিত রোগের চিকিৎসা করাতে সেদিন সকাল ১০টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান। বহির্বিভাগের রোগীর টিকিট কেটে শিশু মাশরুফাকে দেখাতে উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসারের কক্ষে যান তারা।

সিরিয়াল ছাড়াই রোগী দেখার আবদার করেন তারা। এ সময় ওই নারী উপ সহকারী চিকিৎসক রোগীদের সিরিয়াল মতো আসতে বলেন। এতে তারা মিয়া ক্ষুব্ধ হয়ে অন্যান্য সবার সামনেই ওই নারী চিকিৎসককে উচ্চস্বরে অশ্লীল ভাষায় গালি দেন। এক পর্যায়ে তারা মিয়া তার পরনের লুঙ্গি উচিয়ে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি ও যৌনহয়রানির হুমকি দেন। এ ঘটনা জানাজানি হলে গোটা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই তারা মিয়ার ছেলে জনি ও তার সহযোগীরা লাঠিসোটা নিয়ে সেখানে হানা দিয়ে ওই নারী উপ সহকারী চিকিৎসককে মারতে যায়। এ সময় তারাও তাকে অশ্লীল কটূক্তি এবং দেখে নেয়ার হুমকি দেয়।

এ ঘটনার পর তারা মিয়া গা ঢাকা দেওয়ায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে তার মেয়ে তাহমিনা খাতুন বলেন, ‘আমরা হাসপাতালে গিয়ে দেখি কয়েকজন লোকের সাথে কথা বলছেন ওই নারী । এ নিয়ে আমার বাবা কথা বলতে গেলে তিনি রাগ করেন এবং আমাদের সিরিয়াল মতো আসতে বলেন। তাই আমার বাবাও রাগের মাথায় কিছু কথা বলেছেন।’

এদিকে ওই নারী উপ সহকারী চিকিৎসক বলেন, ‘তারা মিয়ার মেয়ের অভিযোগ সঠিক নয়। সিরিয়াল মতো রোগী দেখার কথা বলামাত্রই তারা মিয়া আমাকে অশ্লীল ও অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। এক পর্যায়ে তিনি লুঙ্গি উচিয়ে আমাকে যৌনহয়রানির হুমকি দেন। ঘটনাটি আমি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে লিখিতভাবে জানিয়ে সুষ্ঠু বিচার চেয়েছি।’

মেলান্দহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা এবং আরএমও ডা. আহসান হাবিব আদনান এ ঘটনা প্রসঙ্গে বলেন, ‘সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে ওই সাকমোকে লক্ষ্য করে অশ্লীল কটূক্তি ও লুঙ্গি উচিয়ে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি ও যৌনহয়রানির হুমকি দিয়েছেন তারা মিয়া। ঘটনাটি ইতিমধ্যে মেলান্দহ থানায় অবহিত করেছি।

মেলান্দহ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নীল কমল চক্রবর্তী বলেন, ‘ওই নারী সাকমো তার কর্মকর্তার কাছে যে অভিযোগটি জমা দিয়েছেন, সেটির একটি অনুলিপি আমরা পেয়েছি। ঘটনা তদন্ত করে দেখছি।

আপনার মতামত দিন:


ক্লিনিক-হাসপাতাল এর জনপ্রিয়