Dr. Aminul Islam

Published:
2021-06-23 11:46:31 BdST

অধ্যাপক ডা. সাইফুল ইসলাম ডেভিড স্যারকে যেমন দেখেছি


 

ডা. মীনাক্ষী শবনম
_____________________

বাংলাদেশের ফরেনসিক মেডিসিনের বিশেষজ্ঞদের মধ্যে অন্যতম একজন চিকিৎসক, অধ্যাপক ডা. কে এম সাইফুল ইসলাম ডেভিড স্যার; যিনি একাধারে একজন উচুঁ মানের শিক্ষক,গুণী চিকিৎসক,ভালো ফরেনসিক এক্সপার্ট এবং সাদা মনের হাসিখুশী একজন মানুষ।

  ২১.০৬.২০২১ এর ভোর ০৫:০০ ঘটিকায় তিনি ইন্তেকাল করেন। ‎

ডেভিড স্যারের জন্ম ০৬ই আগস্ট ১৯৫৮ সালে, রাজশাহীর জয়পুরহাটে। পড়াশুনা করেছেন জয়পুরহাট সরকারী কলেজে।চিকিৎসক হবার ব্রত নিয়ে ভর্তি হোন রাজশাহী মেডিকেল কলেজে। কৃতিত্বের সাথে এমবিবিএস  পাশ করে সিদ্ধান্ত নেন ফরেনসিক বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রি নেয়ার এবং ভর্তি হোন।  কোর্স ১৯৯৮-৯৯ সেশনে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে সফলভাবে পোস্ট-গ্রেড সম্পন্ন করে ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ হিসাবে কর্মজীবন শুরু করেন।

দেশের স্বনামধন্য মেডিকেল কলেজসমূহে কাজ করার অভিজ্ঞতা তাঁর ছিল। ২০০২ সালে বগুড়ার  জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে লেকচারার হিসাবে কর্মজীবন শুরু করেন।এরপর সততা ও নিষ্ঠার স্বীকৃতিস্বরূপ প্রথমে সহকারী অধ্যাপক এবং পরে সহযোগী অধ্যাপকের দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৭ সালে অবসরে যাওয়ার আগে, কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ নামের আগে অধ্যাপক পদবী জুড়ে যায়। দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা হিসাবে উক্ত মেডিকেলের ফরেনসিক মেডিসিন এন্ড টক্সিকোলজি বিভাগের প্রধান হিসাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ও পালন করেছেন,সফলভাবে। ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে বগুড়ার টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ এই বিশেষজ্ঞকে নিজেদের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগে নিয়োগ দেয় এবং শিক্ষার্থীদের সাথে একজন চৌকষ অধ্যাপককে পরিচয় করিয়ে দেয়। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিঁনি এই প্রতিষ্ঠানের সাথেই ছিলেন। ব্যক্তিগতভাবে, আনোয়ার ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন প্রায় দেড় যুগ।

ব্যক্তিগত জীবনে অত্যন্ত সৌখিন, সদালাপী ও বৃক্ষপ্রেমিক ছিলেন। বিবাহিত জীবন শুরু করেন ১৯৮৫ সালে এবং তাঁর ছেলে ও একজন এমবিবিএস ডাক্তার। মানুষের সাথে কথা বলতেন হাসিমুখে এবং যথেষ্ট অতিথিপরায়ণ ছিলেন। তাঁর শখের মধ্যে বাগান করাটা ছিল অন্যতম। সবুজের মাঝে সবসময় থাকতেন বলেই হয়তো,চারপাশের ময়লা-নোংরা তাঁর অন্তরকে স্পর্শ করতে পারে নি। নীতিহীন ও আদর্শহীন অসৎ মানুষে ভরপুর প্রচলিত সমাজে,একজন ভদ্রলোক ও ভাল মানুষ হিসাবে চিকিৎসক কে. এম. সাইফুল ইসলাম ডেভিড স্যারের জীবন দর্শন আমাদের কাছে অনুকরণীয় ও অনুসরণীয় হয়ে থাকবে সবসময়। বাংলাদেশের চিকিৎসক সমাজের জন্য এ এক অপূরণীয় ক্ষতি। ফরেনসিক মেডিসিন পরিবারের জন্য এই ক্ষতি কোনভাবেই পূরণ হবার নয়।

 

আপনার মতামত দিন:


ক্যাম্পাস এর জনপ্রিয়