Ameen Qudir

Published:
2019-05-19 10:58:12 BdST

আবারো রক্তাক্ত চিকিৎসক ফরিদপুরে


আবারো রক্তাক্ত চিকিৎসক ফরিদপুরে। আহত রক্তাক্ত। গুরুতর আহত।

 

 

ডেস্ক
____________________

আবারো রক্তাক্ত চিকিৎসক ফরিদপুরে। আহত রক্তাক্ত। গুরুতর আহত। এ এক বিস্ময়কর ডাক্তার নির্যাতনের ঘটনা।
সারাদেশব্যাপী চিকিৎসক নির্যাতনের তালিকা ক্রমশ দীর্ঘ হচ্ছে। এর শেষ কোথায়?

প্রখ্যাত কবি চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. মিল্টন হাসনাত এ বিষয়ে লিখেছেন বিস্তারিত। তার প্রতিবাদী লেখার কিছু অংশ এখানে পরিমার্জন করে পাঠকদের জন্য প্রকাশ করা হল। 

 

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে লেখকের ছবি। ৮ অক্টোবর ২০১৮ সালের। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় গনভবনে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে জননেত্রীর সকাশে তাঁরই স্নেহধন্য কবি ও অধ্যাপক ডা. মিল্টন হাসনাত--------------------


ডা. মিল্টন হাসনাত লিখেছেন,
আবারো রক্তাক্ত চিকিৎসক, তবু বিচার চাই না!

রমজান মাসে সেহেরি শেষে চা খেতে গিয়েছিল ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ইন্টার্ণী ডা. রায়হান, সাথে আরেক ইন্টার্ণী ডা. আদনান এবং একজন ছাত্র ছিল। চায়ের দোকানে আগে থেকেই লোকজনসহ ছিল জেলা ছাত্রলীগের নেতা । সাথের ডা. আদনানের অপরাধ ছিল নেতার উপস্থিতি খেয়াল না করে সে তখন সিগ্রেট টানছিল। কী বিশাল অপরাধ! ভাইয়ের সামনে সিগ্রেট টানা? ঠাস করে এক চড় কষে দেওয়া হলো আদনানের গালে। সাথে ধাক্কাধাক্কি। আদনান পাল্টা এক চড় কষাতেই শুরু হয়ে গেলো মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন।

দশ-বারোজন মিলে তিনজনকে এমন পিটান পিটিয়েছে যে কয়েকটা চ্যালাকাঠ ভেঙ্গেছে। চায়ের দোকান থেকে ছুরি নিয়ে সমানে চালিয়েছে তাদের শরীরে। কোন সুস্থ-স্বাভাবিক মানুষের পক্ষে সম্ভব এমনভাবে নির্যাতন করা? ছাত্রলীগ নামধারী এই সন্ত্রাসীগুলো কি আসলে স্বাভাবিক ছিল ? স্বাভাবিক অবস্থায় তো এমন আচরণ করা মানুষের পক্ষে সম্ভব না।

নির্যাতিত ডাক্তার এবং ছাত্র আশংকাজনক অবস্থায় এখন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। পুরো মেডিক্যাল কলেজ জুড়েই আতংক। মামলা করা, বিচার চাওয়ার ন্যূনতম সাহসটুকু কারো ভেতরে অবশিষ্ট নাই। মার খেয়েও তারা আতংকিত। তাদের অবস্থা হল ভিক্ষা চাই না কুত্তা ঠেকানোর মত।

 

আহত ইনটার্ন চিকিৎসকের রক্তমাখা প্যান্ট ও পোষাক।----------------------------

 

ডা. মিল্টন হাসনাত লিখেছেন, ফরিদপুরে মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দকে অমানুষিক নির্যাতনের বিচার চাই না। পুলিশ মামলা নেবে না, নিলেও হাস্যকর দুর্বল কোন ধারায় নেবে।
কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের মুরোদ নেই ফরিদপুরের জেলা ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীদের বিচার করার। ইতিমধ্যে প্রমানিত, ডিজিটাল নেতৃবৃন্দ যতই ফেসবুকে লম্ফঝম্ফ করুক, বাস্তবের মাঠে তাদের তেমন খবর নাই।

সারাদেশব্যাপী চিকিৎসক নির্যাতনের তালিকা ক্রমশ দীর্ঘ হচ্ছে। এর শেষ কোথায়?

আমরা আর বিচার চাইবো না। নীরবতাই হোক আমাদের প্রতিবাদ।
অধ্যাপক ডা. মিল্টন হাসনাত হলেন,
Professor of Public Health, Northern University, a physician, consultant and poet.
Studied at Christian Medical College, Vellore, India
Studied at Dhaka Medical College
Studied at The Australian National University

আপনার মতামত দিন:


ক্যাম্পাস এর জনপ্রিয়