|

কষ্ট করে যাওয়ার কি দরকার : জাপান নিজেই এলো বাংলাতেই


Published: 2017-02-27 20:13:17 BdST, Updated: 2017-12-18 20:48:55 BdST

বেনাপোল। পেট্রাপোল। তারপর কাছেই

নেতাজী সুভাষ বসু বিমানবন্দরের অনতিদূরেই জাপান ।


সৌরভ দত্ত

_________________________

 

 

যান পান জাপান! স্বাদে এবং আহ্লাদে। কোথায়? ইকো পার্কে। কবে? মঙ্গলবার। ওই দিনই তো ‘জাপানিজ ফরেস্টে’র উদ্বোধন হওয়ার কথা।


নববর্ষের আগে তিন একর জমির উপরে ভিন্ন স্বাদের অভিজ্ঞতা উপহার দিতে চলেছেন হিডকো কর্তৃপক্ষ। মোদ্দা কথা হল— নামে যেমন দর্শনেও তেমন।


জাপানি উদ্যানের বৈশিষ্ট্য মেনে লতাপাতায় সাজানো বাঁশের ছাউনি, সিংটো পারগোলা, বৃত্তাকার সেতু, লাফিং বুদ্ধ, বৌদ্ধমন্দির, প্রার্থনা পাত্র, ‘ডেমিগড’, সৌভাগ্যের সাত দেবতার সঙ্গে মিলেমিশে গিয়েছে শান্তিনিকেতন, রাজস্থান।

‘ডেমিগড’ শান্তিনিকেতনে তৈরি। আর স্যান্ডস্টোনের লণ্ঠন এসেছে রাজস্থান থেকে। প্রবেশ পথের সামনেই থাকছে বুদ্ধের সুবিশাল মূর্তি। যা আনা হয়েছে সুরুচি সঙ্ঘ থেকে। আর সবশেষে পাত পেড়ে জাপানে থাকার আনন্দ। ইকো পার্কেই মিলবে সুশি, প্রন টেম্পুরা, চিকেন টেরিয়াকির স্বাদ। যা পরিবেশনের দায়িত্বে রয়েছে জাপানিজ খাবারে পারদর্শী একটি বিখ্যাত রেস্তোরাঁ সংস্থা।


হিডকোর চেয়ারম্যান দেবাশিস সেনের কথায়, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য হল, বাঙালি ঘুরতে ভালবাসেন। কিন্তু সময়ের অভাবে সবসময় সুযোগ হয় না। ইকো পার্কে যেন সেই সংস্থান করা হয়। তারই অঙ্গ হিসাবে জাপানিজ ফরেস্ট গড়ে তোলা হয়েছে।’’ শুধু গড়া হয়নি। খুঁটিনাটি বিষয়ে নজর দেওয়া হয়েছে। সে জন্যই তো গত ডিসেম্বরে জাপানের ‘ল্যান্ডস্ক্যাপ আর্কিটেক্ট অ্যাসোসিয়েশনে’র সভাপতি মাকাতো সুজিকি’কে কলকাতায় উড়িয়ে আনা হয়েছিল। হিডকো সূত্রের খবর, জাপানি রীতি অনুযায়ী, প্রার্থনা পাত্রে কয়েন ফেলে তা আবার তুলে নিতে হয়। কিন্তু প্রথমে তা জানা ছিল না। মাকাতো বিষয়টি জানানোর পরে সেই ব্যবস্থা করা হয়। মাকাতোর দেওয়া ১৪ লাইনের জাপানি কবিতা প্রতিটি সিংটোর গায়ে লেখা রয়েছে।

 

মূল কাজটি করেছেন স্থপতি অনুরাধা রাঠৌর। তিনি জানান, জঙ্গলের অনুভূতি দিতে ওয়াডিলিয়া (লতানো গাছ) যেমন রয়েছে তেমনই রয়েছে মধুমালতী। আগামিদিনে সেই গাছগুলি বড় হলে জঙ্গলের ঘনত্ব এবং রহস্য, দুইই উপভোগ করা যাবে। দেবাশিসের কথায়, ‘‘উদ্দেশ্য একটাই, মানুষ যাতে সহজেই প্রকৃতির সঙ্গে একাত্ম হতে পারেন।’’

_________________________
এ বেলা -র সৌজন্যে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।