|

এত কম খরচে পৃথিবীর সুন্দরতম গ্রামে !


Published: 2017-02-27 11:00:15 BdST, Updated: 2017-12-18 20:45:14 BdST



আহির ফা হিয়ান বুবকা
___________________________


এত কম খরচে পৃথিবীর সুন্দরতম গ্রামটিতে বেড়িয়ে এলাম, কল্পনাও করতে পারবেন না।
সিলেট পর্যন্ত পৌছাতে পারলেই হল। তারপর তামাবিল পার হলেই মাওলিননং । পৃথিবীর সুন্দরতম গ্রাম।

মেঘালয়ের পর্দায় পৃথিবী যে কত সুন্দর; নিজ চোখে না দেখলে বিশ্বাসই হবে না। মাওলিননং যাওয়া মানে সারা পৃথিবীর মানুষের সঙ্গেও দেখা। বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে প্রতিদিন হাজারও পর্যটক ছুটে আসছে আর বাঙালীর কথা কি বলব। এত কম খরচের মধ্যে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সৌন্দর্য হাতের মুঠোয় ; সেখানে না যাওয়া যে জীবনটা ষোল আনাই মিছে।


তামাবিল পার হলেই
মেঘালয়। পূর্ব খাসি পাহাড় । মাওলিননং গ্রামটি এশিয়ার তথা বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন গ্রামের স্বীকৃতি পেয়েছে আন্তজার্তিক ভাবে। ।
তাই সবসময় পর্যটক আসছেই।

ওয়ার্ল্ড ক্লিনেস্ট ভিলেজ (World Cleanest Village)ও বলা হয় গ্রামটাকে!

কী অপূর্ব সুষমা গ্রাম জুড়ে।

এ গ্রামটিতে স্বাক্ষরতার হার ১০০ শতাংশ। মাতৃতান্ত্রিক । পারিবারিক সম্পত্তি মায়ের থেকে পরিবারের সবথেকে ছোট মেয়ের হাতে যায়। এই গ্রামের যাবতীয় বর্জ্য বাঁশ দিয়ে তৈরি ছোট ছোট ডাস্টবিনের মধ্যে সংগ্রহ করা হয়। তারপরে সেই বর্জ্য থেকেই সার তৈরি করা হয়।

অঅরও শুনবেন সুন্দরের গল্প।

ঘন নীল আকাশ, সবুজে ভরা গাছগাছালি, রকমারি ফুলবাহারি, কত প্রজাপতির ওড়াউড়ি। সুন্দর করে বাড়িগুলো সাজানো।

ট্রুখ ইজ বিউটি। বিউটি ইজ ট্রুথ। তার সঙ্গে যদি যুক্ত হয় মানবিক শিক্ষা; রুচি কালচার ; তবে তো কথাই নেই।
মাওলিননং এ
সুন্দর রুচির ছাপ সর্বত্র।

 

 

 

মাওলিননংএ ঝরনার পর্দায় সফরসঙ্গী ডাক্তার প্রতিদিন সম্পাদক ডা. সুলতানা আলগিন। জীবন্ত ছবি।_______________________

 

শুধু গ্রামকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রেখেই যে পৃথিবীর সেরা গ্রাম, তা নয়। গ্রামের মানুষের পোশাক-পরিচ্ছদ, বাড়িঘর, সব কিছু একদম ঝকঝকে, তকতকে। এখানে কেউ যত্রতত্র কিছু ফেলতে পারে না। কারোর সঙ্গে বিরূপ ব্যবহার করা যায় না, ফুল তোলা বা গাছের পাতা ছেড়াও নিষেধ।


সিলেট থেকে থেকে মাওলিননং একদম কাছে। ওই স্বর্গ থেকে নীচে বিশাল ক্যানভাসে সিলেটকেও দেখা যায়।টেলিটক, গ্রামীন ফোনে কথাও বলা যায়।

পাহাড়, জঙ্গল, ঝর্নায় ঘেরা এই গ্রামটি । গ্রামের পাহাড়ি একটি ঝর্নার উপরে গাছে জীবন্ত শিকড়ের তৈরি সাঁকোও সত্যি বিশ্বের এক বিস্ময়। মনে হবে অাদিম আদমের পৃথিবীতে ঢুকে পড়েছেন। একদম বাস্তব সত্য।


বাংলাদেশ থেকে যেতে তামাবিল-ডাউকি পোর্টের ভিসা নিতে হবে। ডাউকি থেকে ট্যাক্সি যোগে মাওলিননং যাওয়া যায়।
অনেক অভিযাত্রী দল আছে , যারা তামাবিল-ডাউকি থেকে হেঁটে পৌছে যায় মাওলিননং স্বর্গে।


মাওলিননং এ থাকার জন্যে বেশ কিছু হোমস্টে এর ব্যবস্থা আছে। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো – Ila Jong (09615043027), Ha La Rympei (+91 9615823660), আরেকটি হলো ভিলেজ গেস্ট হাউজ। যোগাযোগ যার সাথে করতে হবে তার নাম ক্যারল 09436104844 .খরচ পড়বে দিনপ্রতি ১৫০০ রুপী।
ফোন করে বুকিং দিয়ে যাবেন কিন্তু। খাওয়া দাওয়া এককথায় অপূর্ব। পাহাড়ি মুরগির কালাভুনা; সবজী, শাদা ভাত, ডাল থেকে যা খেতে মন চায় অতি সুলভে সব মিলবে।
মনে রাখবেন, মাওলিননং সেই পৃথিবীসেরা সুন্দরতম গ্রাম, যেখানে কেউ ঠকায় না। কেউ ঠকেও না।

_____________________________

 

আহির ফা হিয়ান বুবকা। নির্বাহী সম্পাদক , ডাক্তার প্রতিদিন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।