Ameen Qudir

Published:
2018-09-24 07:25:30 BdST

জি বাংলায় 'নোবেল': লিজেন্ডদেরকে আরো শ্রদ্ধা সহকারে সম্বোধন করবেন, আশা করি


 

ডা. মোশাররফ হোসেন পলাশ
___________________________________

শনিবার রাতে জি বাংলায় "নোবেল" নামের ঢাকা থেকে পার্টিসিপেট করা ছেলেটির গাওয়া গান শুনলাম ও দেখলাম। খুব সুন্দর ও দরাজ কন্ঠ তার।মুগ্ধ হওয়ার মতো প্রতিভা।
প্রোগ্রাম শেষে ফেসবুকে ঢুকে ত আমার চোখ একেবারে ছানাবড়া! জেট বিমানের গতিতে শেয়ার হচ্ছে সেই গানের ভিডিও।

অনেকের খারাপ লাগলেও স্রোতের বিপরীতে কিছু কথা বলি এবার।

জেমসের কন্ঠে "বাবা" ও "মা" গানদুটো আমাদের প্রজন্মের কোটি যুবকের আবেগের গভীরতম স্থানের নাম। যতবারই এ গান দুটো শুনেছি, অজানা কারনে চোখের পানি আটকাতে পারিনি। অথচ সেই গান কিনা শুরু হল পার্টিসিপেটদের খিলখিলে হাসি ও মাজা দুলনির মধ্যে দিয়ে। শুধু তাই নয়, গানের মাঝখানে শ্রদ্ধেয় বিচারকমন্ডলীদেরও দেখলাম দাড়িয়ে শিষ দিচ্ছেন। আমার এ ছোট্ট মস্তিষ্কে কিছুতেই ঢুকল না, আবেগের প্রকাশ তো দুঃখও হতে পারে, সেখানে এরকম গানে উচ্ছ্বসিত আনন্দ ও নাচ কতটুকু যুক্তিযুক্ত?

ছেলেটার বয়স খুব কম মনে হল। আর গুরু জেমস শুধু আমাদেরই না, তারো আগের কয়েক প্রজন্মকে মন্ত্রমুগ্ধ করে রেখেছেন। একজন নবীন গায়ক, যে কি না কেবল পায়ের নিচে মাটি খুঁজছে, তার অবশ্যই লিজেন্ডদেরকে আরো শ্রদ্ধা সহকারে সম্বোধন করবেন, সেটাই আশা করি।

কলকাতার ছেলেমেয়েরা দুদিন আগের শিল্পী 'অরিজিৎ সিং' কে স্যার স্যার বলতে বলতে মুখে ফেনা তুলে ফেলে। আর এ গানের গীতিকার, সুরকার ও কম্পোজার যে একজন বিখ্যাত মানুষ তার নাম উল্লেখেরও কোনো বালাই নেই।

ছেলেটার উচ্চারণে যথেষ্ট প্রবলেম আছে। যারা আবৃত্তি করেন তারা জানেন, উচ্চারণে শুদ্ধতা আনতে কতটা পরিশ্রম ও ধৈর্য দরকার।আমার অত্যন্ত প্রিয় বাংলাদেশের স্বনামধন্য আবৃত্তিকার 'জয়দেব ভাদুড়ি' স্যারের চেম্বারে যখনই যেতাম, দেখতাম স্যার এই বয়সেও উচ্চারণের শুদ্ধতা ধরে রাখার জন্য মুখের মধ্যে কাচের গুলি রেখে কথা বলার প্রাকটিস করছেন।


আর সে কি না সবার প্রিয় আইয়ুব বাচ্চুর গাওয়া
"সেই তুমি" গানের মাঝে বলে বসল,
"ঠূমি কেন বুঝনা......"
তখন মনে হচ্ছিল লজ্জায় মাথা লুকাই।

সবশেষে আমার প্রিয় কণ্ঠশিল্পী দের একজন পার্থ বড়ূয়ার একটি কথা দিয়ে শেষ করি। তিনি একটি লাইভ প্রোগ্রামে বলেছিলেন, "এখনকার তরুণ প্রজন্মের ফিফটি পার্সেন্ট শিল্পীরা ঠিকমতো "আকাশ" শব্দটাই উচ্চারণ করতে পারেনা...... "

আশাকরি এই ছেলেটা এসব ভূল উৎরায়ে অনেক দূর যাবে এবং আমাদের মুখ আরো উজ্জ্বল করবে।আর আমরা বাংগালীরাও একটু একটু করে পজিটিভ ক্রিটিসিজম করা শিখব, অন্ধের মতো কোন কিছু ভাইরাল করার আগে।

https://www.facebook.com/1471231536/posts/10217880459671084/


Play
-8:29
Additional Visual Settings
Enter Watch And ScrollClick to enlarge Unmute
_____________________________

ডা. মোশাররফ হোসেন পলাশ

Life Member , Swadhinata Chikitsak Parishad-Swachip
Publications and Public Relations Secretary, Bangladesh Medical Association,Naogaon branch.
MD resident anaesthesiology , Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University-BSMMU

আপনার মতামত দিন:


বিনোদন এর জনপ্রিয়