Ameen Qudir

Published:
2016-11-09 08:44:00 BdST

ট্রাম্পই আমেরিকান মুখ, হিলারী মুখোশ


 

ডা. রোকেয়া সুলতানা
রাজনৈতিক ভাষ্যকার
প্রমাণ হয়েই গেল ডোনাল্ড ট্রাম্পই আমেরিকানদের মুখ; হিলারী ক্লিনটন কেবলি মুখোশ। হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চলল বটে; কিন্তু পরাজয়কে এড়াতে পারলেন না ডেমোপ্রার্থী । রিপাবলিকানরা বসতে চলেছে ক্রম ক্ষয়িষ্ণু মার্কিন তখতে তাউশে।
হিলারীকে নিয়ে ডামাডোল হয়েছে কম নয়। ডোনাল্ডও কম যান নি। তবে ট্রাম্প ডোনাল্ড ডাক হয়ে লোক হাসাবে; সেটা ভাবা বাড়াবাড়িই ছিল। নির্বাচনের ফল তাই বলে।
এই নির্বাচন নিয়ে ছাগলের চার নম্বর বাচ্চার মত আমরা বাংলাদেশের নাগরিকরা দেশে বিদেশে লাফিয়েছি সবচেয়ে বেশী । কেন, সে আত্মজিজ্ঞাসার এখনই সময়।
হিলারী হলেও কি হত; ট্রাম্প হওয়ায় কি ই বা লাভ লোকসান হল। শেষ কথা হল, মার্কিনিরা তাদের স্বার্থ আদায়ে ষোল আনা তৎপর। নিজের ভাল ছাড়া কিছু বোঝে না।
আমরা যেদিন তা বুঝব, যত তাড়াতাড়ি ততই মঙ্গল।
যাক, সর্বশেষ রেজাল্ট দেখে নেয়া যাক।

 

 

 

                            

 

এএফপির দেওয়া তথ্যমতে, ট্রাম্প ২৪৫টি ও হিলারি ২১৫টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়েছেন। রয়টার্স বলছে, এখন পর্যন্ত যেসব অঙ্গরাজ্যের ভোটের প্রাথমিক ফলাফল পাওয়া গেছে, এর মধ্যে ট্রাম্প পেয়েছেন ২৪০টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট। আর হিলারি পেয়েছেন ২১৫টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট।

বিবিসির তথ্যে ট্রাম্প ২৪৪টি ও হিলারি ২১৫টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়েছেন। সিএনএন বলছে, ট্রাম্প ২৩৮টি ও হিলারি ২১৫টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়েছেন। প্রেসিডেন্ট হতে হলে ৫৩৮টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোটের মধ্যে ২৭০টি পেতে হবে।

হিলারি ক্লিনটন বা ডোনাল্ড ট্রাম্প, যেকোনো একজনকে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে বেছে নিতে ভোট দিয়েছেন মার্কিন ভোটাররা। বিভিন্ন সংস্থার জরিপে বলা হয়েছে, ৫৮তম এই নির্বাচনে প্রায় ৫৪ শতাংশ ভোটার ভোট দিয়েছেন। মঙ্গলবার ভোট গ্রহণ শেষে এখন চলছে গণনা। এখন পর্যন্ত প্রাপ্ত প্রাথমিক ফলাফলে বলা যায়, জয়ের কাছে পৌঁছে গেছেন ট্রাম্প।

 

                                        

এএফপির খবরে জানা যায়, রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্প অ্যালাবামায় ৯, আরকানসাসে ৬, ফ্লোরিডায় ২৯, আইডাহোতে ৪, ইন্ডিয়ানায় ১১, আইওয়াতে ৬, কানসাসে ৬, কেনটাকিতে ৮, লুইজিয়ানায় ৮, মিসিসিপিতে ৬, মিজৌরিতে ১০, মন্টানায় ৩, নেব্রাস্কায় ৫, নর্থ ক্যারোলাইনায় ১৫, নর্থ ডাকোটায় ৩, ওহাইওতে ১৮, ওকলাহোমায় ৭, সাউথ ক্যারোলাইনায় ৯, সাউথ ডাকোটায় ৩, টেনেসিতে ১১, টেক্সাসে ৩৮, ইউটাহতে ৬, ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ায় ৫ ও ওয়াইওমিংয়ে ৩টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়েছেন।


হিলারি ক্যালিফোর্নিয়ায় ৫৫, নেভাদা ৬, কলোরাডোতে ৯, কানেটিকাটে ৭, ডেলাওয়ারে ৩, হাওয়াইতে ৪, ইলিনয়ে ২০, মেরিল্যান্ডে ১০, ম্যাসাচুসেটসে ১১, নিউজার্সিতে ১৪, নিউ মেক্সিকো ৫, নিউইয়র্কে ২৯, অরেগনে ৭, রোড আইল্যান্ডে ৪, ভারমন্টে ৩, ভার্জিনিয়ায় ১৩, ওয়াশিংটনে ১২ ও ওয়াশিংটন ডিসিতে ৩টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়েছেন।


মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পদ্ধতি ও প্রক্রিয়া এমন যে সারা দেশে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটারের সমর্থনও বিজয়ের নিশ্চয়তা দেয় না। মোট ৫৩৮টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট রয়েছে এখানে। দুটি অঙ্গরাজ্য ছাড়া বাকি অঙ্গরাজ্যগুলোতে প্রাপ্ত সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে প্রার্থীরা ইলেকটোরাল কলেজ ভোটে বিজয়ী হন। সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট, অর্থাৎ ২৭০টি পেলেই একজন প্রার্থী নির্বাচিত হতে পারেন।

আপনার মতামত দিন:


বিনোদন এর জনপ্রিয়