Dr. Aminul Islam

Published:
2020-10-25 18:24:40 BdST

" সোনার হরিণ ""তোমার মাথার মধ্যে ব্রম্ম দৈত্য ঢুকেছে, একটা' 'এম আর আই' করে দেখতে হবে"


 

ডা. সুকুমার সুর রায়


_____________________________

(পঁচিশতম- পর্ব)

একদিন একজন রোগী এলো। নাম তার নসু মিয়া। সাকিন - হাওড়া। না, এটা কোলকাতার হাওড়া নয়, গ্রামের নাম - হাওড়া।

নসু মিয়ার বয়স অনুমান তিরিশ। পেশায় কৃষি শ্রমিক। সে কোন লেখা পড়া জানে না। তবে মুখে চোখে পুরো দস্তুর চালাক চতুর।

কি সমস্যার কারনে ডাক্তারের কাছে এসেছে জানতে চাওয়ায় সে জানায় যে, তার বেশ কিছুদিন হল মাথা ও ঘাড়ে ব্যাথা।

কত দিন হলো ব্যাথা এবং আগে কোথাও কোন চিকিৎসা নিয়েছে কিনা তা জানতে চাওয়ায়, সে যে কাহিনীর অবতারনা করলো তা নিম্নরূপ :

'' অনেকদিন আগেত থনে এল্লা এল্লা মাথা ব্যাতা করে। তা তেমুন মালুম করি নাই। গ্যালো হপ্তা খানেক আগে গেরাম থনে' মাছ, আর 'দুধ' নিয়্যা নাগরুহা গেরামে বইনের বাড়ি যাতি কালে' মাথা আর ঘাড়ে' সেইরহম ব্যাতা শুরু অয়। মাছ আর দুধ বইনের বাড়ি নামায়্যা দিয়া বাড়ি ফির‍্যা আসলি মাথা ব্যাতা কইম্যা যায়।''

" তা মাছ আর দুধের সাথে তোমার মাথা ব্যাথার কী সম্পর্ক? "

" সম্পক্ক আচে। এই ঘটনার একদিন আগে,হুইন্দ্যা ব্যালা আমাগের গেরামের পচ্চিমে চন্দগাঁতি গেরামের শশ্মান ঘটের বোগোল দিয়্যা বাড়ি ফিইর‍্যা আসতিছিলাম।
আমি আগেত থনে জানি ওত্তরে ' ভয়' আচে।

শশ্মানের বোগল দিয়্যা আসার সমায় আমার 'মাথা' আর শরীল 'ভার ' অইয়্যা আছিলো!। মা হুইন্যা কইলো -' উহুনে উপড়া' আচে, তোরে উপড়া ভর কইরছ্যে!তোর কপাল বালো, মাইনষেক লাইয়ের পাতা বিলাইচিল্যাম জন্যি 'জানে ' বাঁইচ্যা আচু।"

" আচ্ছা সেতো শশ্মানের ব্যাপার, তা মাছ - দুধের সাথে কি সম্পর্ক? "

"বাড়িত ফির‍্যা আসলি পরে মা কইল, 'বর্ম দৈত্য ' বইল্যা একরহমের উপড়া আচে, হ্যারা 'মাচ- দুদ 'পচন্দ করে।

" তার পর কি হল? "

'মা কইল কইবর‍্যাজ বাড়ি যাতি হবি।'

" তার পর কি কবিরাজ বাড়ি গিয়েছিলে ? "

'' জ্বি। পরের দিন আছোর ওক্তে কইবর‍্যাজ বাড়ি গেচিল্যাম। মা আগেই হুইন্যা আচিলো, তিনডো বোতল নিয়্যা যাইব্যার কচিল।"

"তিনটি বোতল কি জন্য? "

''এক বোতলে পানি পড়া, এক বোতলে ত্যাল পড়া, আরাক বতলে....।''

" আরেক বোতলে কি? "

''আরাক বোতলে "বর্ম দৈত্য''ক আটকাইয়া ফ্যালাইবো!''

"দারুন ইন্টারেস্টিং তো! তোমার পুরা কাহিনী খুলে বল। " :

"ঐতো আছোর ওক্তে কইবর‍্যাজ বাড়ি গ্যালাম আমি, মা আর ভাবী।
মাগরেব এর পর কইবর‍্যাজ জলচোকির উপুড় এক খান জায়নামাজ বিছায়্যা বইসলো। আমাগের কাছাকাছি নীচে বসাইলো।"

" কবিরাজ কি পুরুষ নাকি মহিলা? "

"জ্বি, মহিল্যা, বুড়ি মানুষ।
আগে দশ ট্যাহা দিয়্যা নালিশ দিতি অয়। নালিশ দেওয়ার পর কইলো -
'তোর সুকারের দোষ আচে। তুই পচ্চিমে বিলের ধারে গেচিলু।
পচ্চিম মুরার দোষ তোর মদ্যে ঢুইক্যা গ্যাচে।"

"এইকথা হুইন্যা, আমার বিশ্ব্যাস ধইর‍্যা গ্যালো!ঠিকইতো পচ্চিম মুরার শশ্মান ঘাটের কাছে এল্লা ভয় পাচিল্যাম, আমার 'মাথা' আর , 'শরীল' ভার অইয়া গ্যাচিলো! আমার সুকার ও কাটে!"

মা'ও কইলো -''যেইই 'ভর' কইর‍্যা থাহুক, ধইর‍্যা বোতলে আটকান লাইগব্যো, তা না হলি ছাওয়ালেক বারে বারে খিতাবী কইরব্যো!"

কইবর‍্যাজ কইলো-" সাড়ে তিন শো ট্যাহা লাইগব্যো!"
"আমরা রাজি অইয়া গ্যালাম।"

''তারপর মন্তর পড়া শুরু অইলো।

এল্লাবাদে' - 'কাইজ্যা' শুরু অইয়া গ্যালো।

কইবর‍্যাজ : " তোর নাম কী? "

ব্রম্মদৈত্য : " হিঁ হিঁ হিঁ -' শাক চুন্নি ' হিঁ হিঁ!"

কইবর‍্যাজ -: "তুই অ'রে ধইরচ্যোস ক্যা?"

ব্রম্ম দৈত্য : "হিঁ হিঁ হিঁ... তাঁতে তোঁর কি??"

কইব্র‍্যাজ : "ছাওয়ালডো কষ্ট পাইত্যাচে, অ'রে ছাইড়্যা দে। "

ব্রম্ম দৈত্য : " নাঁ নাঁ নাঁ, অ'রে ছাড়মু না... ।"

কইবর‍্যাজ : " বালোই বালোই ছারবু, নাইলে ধইর‍্যা বতলে ভরমু!"

ব্রম্ম দৈত্য: "ওঁরে বাবা রে, ওঁরে বাবা রে, বতলে ভরিস ন্যা... ।"

কইবর‍্যাজ : " তাইলে যেহান থাইক্যা আচু সেহেনে চইল্যা যা! "

ব্রম্মদৈত্য : " যাঁমুনা যাঁমুনা যাঁমুনা....... ।"

কইবর‍্যাজ : " তবেরে.... হারাম জাদি.."

ব্রম্মদৈত্য : " এঁক ছঁড়ি কঁলা আর দ্যাড় স্যার দুঁদের বোগ দে।"

কইবর‍্যাজ : " মুছুলমান মানুষ বোগ দেওয়া যায় না। "

ব্রম্মদৈত্য : " তাঁইলি এঁকটো কুঁড়হা আর এঁক কাঁঠা চাইলের সিঁন্নি দে। "

কইবর‍্যাজ : " আইচ্চ্যা, সিন্নি দেওয়া অইবো।অঁরে ছাইড়্যা দে। "

ব্রম্মদৈত্য : " অঁরে ছাইড়্যা যাঁমুনা যাঁমুনা....।"

কইবর‍্যাজ :" তাইলে বতলে ডোক.. ..ডোক...,. .।"

ব্রম্মদৈত্য :" বঁতলে... উঁড়ি বাবা.. উঁড়ি বাবা....। মাঁইর‍্যা হালাইলো রে.... ইঁ ইঁ ইঁ.... ।"

" দুইজনের পাছড়া পাছড়ি শুরু হয়্যা গ্যালো!
কিচুক্ষন বাদে বতলের মদ্যে ভইর‍্যা ছিপি আটকাইয়া দিচে!"

"তারপর কি হলো?"

" তাবাদে ত্যাল পড়া আর পানি পড়া দিয়্যা দিচে, এক হপ্তা অইলো পানি পড়া খাইত্যাচি, ত্যাল মালিশ কইরত্যাচি।"

"বোতলের কি হল?"

'' বর্মদৈত্যের বতোল বাড়িত আইন্যা মাটির নীচে গাইড়্যা থুচি!"

" তা এখন কেমন বুঝছো? "

"এল্লা ব্যাতা কইমচে।"

" তা তোমার 'ব্রম্ম দৈত্য ' বোতলে ভরা হয়ে গেছে! পানি পড়া, তেল পড়া চলছে, একটু উপকারও পেয়েছো , তার পরে ডাক্তারের কাছে কি মনে ক'রে এসেছো?"

" ওই ব্যাবাক মাইনষে কইল, এল্লা ডাক্তারও দেহাও।"

" বিড় বিড় করে বললাম, তোমার মাথার মধ্যে ব্রম্ম দৈত্য ঢুকেছে, একটা' 'এম আর আই' করে দেখতে হবে।"

''কি 'আই 'ছার? ''
জোরে বললাম -- " এম, আর, আই,"!!

চলবে

আপনার মতামত দিন:


মেডিক্যাল ক্যাম্প এর জনপ্রিয়