SAHA ANTAR

Published:
2021-01-04 22:53:41 BdST

সাইকিয়াট্রিস্ট অধ্যাপক ডা. এনায়েত মানুষের ভালবাসায় বেঁচে থাকবেন চিরকাল


অধ্যাপক এনায়েতুল ইসলাম--প্রণতি আমার

 

অধ্যাপক ডা. শহিদুল ইসলাম মল্লিক 

---------------------------------------

কোভিড এ আক্রান্ত হয়ে সদ্য চলে গেলেন তিনি | তাঁর সাথে কেটেছে আমার সুদীর্ঘ সময় | প্রথম তাঁকে দেখি পাবনা মানসিক হাসপাতালে যখন বদলী হয়ে যাই | তিনি সেই সময় হাসপাতালের পরিচালক | দীর্ঘ,গৌরকান্তি,সৌম্য,সাহেবি চেহারার মানুষটিকে প্রথম দর্শনেই ভালো লেগেছিলো | ছিলেন সরল-সুন্দর কিন্তু দৃঢ় এক মানুষ যাঁর মধ্যে ছিল অসীম কর্তব্যবোধ আর ভালোবাসা | কী গভীর মমতায় জীর্ন ও অবহেলিত মানসিক হাসপাতালটিকে তিনি অপরূপ করে সাজিয়েছেন---শুধু বাইরের ঝকঝকে চেহারায় নয়, উন্নত সেবার ক্ষেত্রেও ! মানুষ কতোটা জানে জানিনা, হাসপাতালটির প্রতিটি ইঁট তা জানে | 'ঘরে ফেরা' নামের কর্মসূচি হাতে নিয়ে বছরের পর বছর ধরে থাকা আপাত পরিত্যাক্ত কিন্তু সুস্থ মানসিক রোগীদের তিনি বাড়ি পাঠাবার ব্যবস্থা করেছিলেন | সেই কাজে অংশ নিয়ে আমাদের সমাজের চালচিত্রের অসাধারণ এক মিশ্র অভিজ্ঞতার সাথে তাঁর জেদী প্রত্যয়ের কথা আমার আজো মনে পড়ে | শেষ পর্যন্ত হাসপাতালের ঘরে ও বাইরের দুষ্টচক্রের হাতে নাকাল হয়ে তাঁকে পাবনা ছাড়তে হয়, কিন্তু অন্যায়ের কাছে কখনোই নত হননি | পরবর্তীতে মাথা উঁচু করেই তাঁর প্রিয় জায়গায় ফিরে গিয়েছিলেন |

এনায়েত স্যার এরপর এস এস এম সি মিটফোর্ড হাসপাতালে এলেন সাইকিয়াট্রি বিভাগের প্রধান হয়ে | সে সময় ছোটো আকারের ইনস্টিটিউট অব মেন্টাল হেলথ এন্ড রিসার্চও মিটফোর্ডে --হিদায়েত স্যার পরিচালক | ওখানে মাসুদা আপা ,আমি , ঝুনু , রেজওয়ানা, রুবেল ভাই , হাফিজ ও পরে এনায়েত ভাই অবিস্মরণীয় সময় কাটিয়েছি তাঁর সাহচর্যে | আরো গভীর করে দেখেছি এই সহজ সরল মানুষটিকে | শুধু শিক্ষক নয়, বন্ধুর মত আমাদের সাথে মিশেছেন, সময় কাটিয়েছেন | সবার তিনি প্রিয় ও আপন ছিলেন | এরপর মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের পরিচালক হয়ে স্বরাষ্ট্র ও স্বাস্থ্যের দৈত্ব শাসনের মধ্যেও ওই প্রতিষ্ঠানটির যথেষ্ট উন্নতি করেছিলেন | এরপর এলেন তখনকার আই পি জি এম আর এর মনোরোগ বিদ্যার প্রধান হয়ে | অল্প সময়েই সবার পছন্দের ও ভালোবাসার মানুষ হয়ে গিয়েছিলেন | মাসুদা আপা , ঝুনু ও আমি তখন ওই বিভাগের শিক্ষক | উদ্যোগী মানুষ তিনি | সুন্দর একটা টিমের নেতৃত্ব দিয়েছেন | তাঁর চেষ্টায় ডি পি এম ডিগ্রিটি এম ফিল সাইকিয়াট্রি হয় যা পরবর্তীতে সহজেই এম ডি তে রূপান্তরিত হতে পেরেছিলো | দায়িত্ব নিয়ে তিনি বিভাগের দীর্ঘদিনের অভাব মহিলা ওয়ার্ড খুলেছিলেন | বিভাগের উন্নতির জন্য সাধ্যমত চেষ্টা করেছেন | এজন্য নিয়মতান্ত্রিক জটিলতার জাল তাঁকে থামাতে পারেনি |

চাকরি থেকে অবসর নেয়ার কিছুকাল পর তিনি লন্ডনে আবাস গড়েন | দেশে এলেই আমাদের সাথে যোগাযোগ করতেন | দেখা এবং কথা না হলে অনুযোগ অভিমান করতেন | তাঁর এরকম সম্পর্ক সবার সাথেই ছিল | দেশের মানসিক স্বাস্থ্যের কোনো ধরণের অগ্রগামিতা তাঁকে খুশি করতো | তাঁর রেখে যাওয়া আই পি জি এম আর এর মনোরোগ বিদ্যা বিভাগ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্ধিষ্ণু মনোরোগবিদ্যা বিভাগ হতে দেখে তিনি খুব খুশি হয়েছিলেন | হেদায়েত স্যার ঢাকাতে জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট করতে প্রচুর বাধার মুখে আপ্রাণ চেষ্টা করে গেছেন | আনোয়ারা ম্যাডাম সেই কাজটি এগিয়ে নিতে সামনে দেখে নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং করে ছেড়েছেন | একদল চাইছিলো এটা পাবনায় হোক | এনায়েত স্যার তাঁর পাবনায় চাকরির অভিজ্ঞতা থেকে বুঝেছিলেন ওখানে ইনস্টিটিউট viable হবে না | তাই ঢাকায় ইনস্টিটিউট করার জন্য সোজাসাপ্টা সমর্থন দিয়েছিলেন | দেশে আসলে শেরে বাংলা নগরে সেই স্বপ্নের ইনস্টিটিউট দেখে খুব খুশি হয়েছিলেন |

পদ ,ক্ষমতা.প্রশংসা, স্বীকৃতি, দলাদলি--এসব তাঁকে কখনো টানতো না | ইংলন্ডে ডিগ্রি নিয়ে ফিরে এসে সরাসরি পাবনাতে চাকুরীতে নিযুক্ত হয়েছিলেন | অনুযোগ করেন নি | কাজকে ভালোবেসে কাজ করেছেন | তাঁর মহৎ সারল্যকে অনেকে বোকামি ভেবেছেন | কিন্তু খুব সহজেই এই মহৎপ্রাণ মানুষটি সবার হৃদয় জয় করে নিয়েছিলেন |

স্যার , আপনি বলেছিলেন মল্লিক, বিলেতে আসলে আমার বাসায় আসবেন , এই রইলো আমার ফোন নম্বর | তা আর হলোনা | আপনার কাছে ক্ষমা চাইবার সময় ও সুযোগ পেলাম না | স্যার, আমরা আপনাকে ভালোবাসি--খুব ভালোবাসি | আপনি থাকবেন আমাদের হৃদয়ে চিরকাল | 

আপনার মতামত দিন:


মেডিক্যাল ক্যাম্প এর জনপ্রিয়