ডাক্তার প্রতিদিন

Published:
2020-05-11 12:08:18 BdST

করোনা জয় করে আবারও রোগীর সেবায় পরমবীর চিকিৎসক


 

 

ডেস্ক
করোনাজয়ী বীর চিকিৎসক ডা. আসিফুল হককে নিয়ে অনন্য প্রতিবেদন করেছে ঢাকার শীর্ষ দৈনিক প্রথম আলো। তারা লিখেছেন,
হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। এরপর সবকিছু এলোমেলো হয়ে যায়। তবে মনে ছিল সাহস। চালিয়ে গেছেন করোনার বিরুদ্ধে চিকিৎসা, জিতেও গেছেন। সুস্থ হয়ে আবারও ফিরেছেন সেই কর্মস্থলে, দিচ্ছেন রোগীদের সেবা।

এই চিকিৎসকের নাম আসিফুল হক। তিনি চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা কর্মকর্তা। অসুস্থ হওয়ার ২৫ দিন পর  রোববার কাজে যোগ দিয়েছেন তিনি।


গতকাল সকালে হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম বা পিপিই পরে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছেন আসিফুল হক। করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে সাবান দিয়ে ঘন ঘন হাত ধোয়া, মুখে হাত না দেওয়াসহ রোগীদের নানা ধরনের পরামর্শ দিচ্ছিলেন তিনি।

বাঁশখালীর বৈলছড়ির বাসিন্দা এই চিকিৎসক বলেন, করোনা থেকে সুস্থ হওয়ার পর স্বাভাবিকভাবে শরীরে রোগ প্রতিরোধক্ষমতা (অ্যান্টিবডি) জন্মাবে। সে হিসেবে পুনরায় করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ। তবু সতর্ক হয়ে হাসপাতালের দায়িত্ব পালন করছি। আসিফুল হক বলেন, ‘সরকারি চিকিৎসক হিসেবে কাজে যোগ দিতে হবে, সেটাই স্বাভাবিক। আমাকে দেখে আরও অনেকে সাহসী হোক। করোনার যুদ্ধে আমাদের জিততে হবেই।’

আসিফুল হক চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস ৫২তম ব্যাচের ছাত্র ছিলেন। ৩৯তম বিসিএসে উত্তীর্ণ হয়ে গত বছরের শেষের দিকে বাঁশখালীতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগ দেন। সরকারি চিকিৎসক হিসেবে এটাই তাঁর প্রথম কর্মস্থল।

নমুনা পরীক্ষার পর গত ১৪ এপ্রিল করোনা পজিটিভ হয় চিকিৎসক আসিফের। এর চার দিন আগে তাঁর জ্বর আসে। সন্দেহ হওয়ায় ১২ এপ্রিল নিজ উদ্যোগে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটের বিআইটিআইডি হাসপাতালে গিয়ে নমুনা দিয়ে আসেন। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি হন। সেখানে দেখা দেয় অন্যান্য উপসর্গ। তবে শেষ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে ২৪ এপ্রিল তিনি হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পান। এরপর আরও ১৪ দিন বাসায় কোয়ারেন্টিনে ছিলেন।

এই চিকিৎসকের ধারণা, নিজ কর্মস্থলে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বাঁশখালীতে বিভিন্ন জেলা-উপজেলার মানুষজনের আনাগোনা রয়েছে। সে হিসাবে বাঁশখালীতে করোনা রোগী থাকাটা স্বাভাবিক।

আসিফুল হক বলেন, ‘আমাদের একটি সংগঠনের পক্ষ থেকে বাঁশখালীতে লকডাউন হওয়া তিনটি বাড়িতে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছি। আমি নিজেই গিয়েছি এসব বাড়িতে। করোনায় আক্রান্ত হওয়া দোষের কিছু নয়। করোনায় আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াতে হবে। এ জন্য সবার সহযোগিতা দরকার।’

তাঁর মতে, করোনায় আক্রান্ত হলে মনোবল হারালে চলবে না। ভয় পেলে ক্ষতি আরও বেশি। ভিটামিন সি, ই-জাতীয় খাবার ও ফলমূল খেলে এবং বাসায় ব্যায়ামের মাধ্যমে শরীরের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ানো যায়। একটু বয়স্কদের জন্য এটা খুবই কার্যকর।

সৌজন্য দৈনিক প্রথম আলো /হিমেল বড়ুয়া, বাঁশখালী, চট্টগ্রাম

আপনার মতামত দিন:


মেডিক্যাল ক্যাম্প এর জনপ্রিয়