Ameen Qudir

Published:
2019-12-02 12:24:05 BdST

চিকিৎসক দম্পতি জেসন এবং মেরিন্ডাকে নিয়ে মানুষজনের মাত্রাতিরিক্ত প্রতিক্রিয়া প্রসঙ্গে


ডেস্ক
____________________

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী প্রখ্যাত চিকিৎসক, গবেষক, লেখক অধ্যাপক ডা. সেজান মাহমুদ বাংলাদেশের সাম্প্রতিককালে ব্যাপক আলোচিত এক ইস্যুতে বলেছেন, যে যে কারণেই হোক, পৃথিবীর যে প্রান্তেই হোক, মানবতা নিয়ে কাজ করুক। নিরাপদে থাকুক। জেসন এবং মিরান্ডার যেন বাংলাদেশে গ্রাহাম স্টেইনসের মতো করুন পরিণতি না হয়। জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক। এ নিয়ে বিস্তারিত লেখাটি পাঠকদের জন্য প্রকাশ করা হল।


অধ্যাপক ডা. সেজান মাহমুদ
____________________

বাংলাদেশে আমেরিকান চিকিৎসক দম্পতি জেসন এবং মেরিন্ডা গ্রামে গিয়ে কাজ করেন জন্যে মানুষজনের মাত্রাতিরিক্ত প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে। কেউ কেউ ডাক্তারদের লজ্জা দিতে, নিজেদের লজ্জা দিতে উঠেপড়ে লেগেছে, কেউ কেউ আমেরিকার ষড়যন্ত্র খুঁজছে, কেউ কেউ যথারীতি খ্রীশ্চানদের ধর্মান্তরিত করার তত্ত্ব খুঁজছে। এগুলো কর্মহীন, মাথাশুন্য লোকজনের অকাম ছাড়া আর কিছু না। আমি কয়েকটা পয়েন্ট বলিঃ

এক। কে কোথায় গিয়ে জীবনের অর্থ খুঁজে পাবে তা তাঁদের নিজস্ব জীবনের অভিজ্ঞতা, পরিস্থিতির সঙ্গে যুক্ত। ইউরোপ বা আমেরিকার অনেকেরই জীবনে এতো বেশি প্রাপ্তি যে এঁরা অন্য গরীব দেশে গিয়ে সেবা দিয়ে জীবনের অর্থ খুঁজে পায়। আপনারা "মেজলো'স হায়েরেরকি অব নিডস" পড়ুন। কিছুটা বুঝতে পারবেন। সেখানে পিরামিডের মধ্যদিয়ে দেখানো হয় কীভাবে প্রথমে অন্ন-বস্ত্র, বেসিক চাহিদা, তারপর ধীরের ধীরে বুদ্ধিবৃত্তিক, তারপর দর্শনগত চাহিদা ইত্যাদি আসে জীবনে। আমাদের দেশের ডাক্তারদের নিজের পরিবারের খাওয়ানো পড়ানো কতো কিছুর দরকার। নিরাপত্তা দরকার। শুধু গ্রামে গিয়ে কাজ করলেই তো ইহকাল আর পরকাল নিশ্চিত হবে না। এদের সঙ্গে তুলনা করেন কোন আক্কেলে? তবে আমি এখানে লোভী ডাক্তার যে নেই তা বলছি না। ব্যতিক্রম অন্য বিষয়।

 

দুই। অন্যদিকে এরকম পরার্থপর লোকগুলো যখন সেবা দিতে আসেন, আপনাদের মনে আছে গ্রাহাম স্টেইন্সের কথা? কুষ্ঠরোগীদের সেবা দিতে এসেছিলেন ইন্ডিয়ায় আর সবাইকে খ্রিশ্চান বানাবে প্রচার চালিয়ে হিন্দু মৌলবাদীরা তাঁর পরিবারসহ পুড়িয়ে মেরেছিল তাঁদের? আমরা নিজের দেশে যতো সেবাই দিই না কেন, যদি আপনার বিশ্বাস বা ধর্মান্ধতা নিয়ে কথা বলি, এক্ষুনি আপনাদের মানবতা ঝুড়ির তলায় পৌঁছে যাবে এবং এখন চাপাতিওয়ালাদের প্রকাশ্যে বা অপ্রকশ্যে সাপোর্ট করবেন আপনারাই।

তিন। আমার এই ছবিগুলো লক্ষ্য করুন। আমিও দুই বছর আফ্রিকার গভীর গ্রামের হাসপাতালে গিয়ে মধ্যস্তরের স্বাস্থ্যকর্মীদের ট্রেইনিং দিয়েছি। মেডিক্যাল কলেজে শিক্ষা দিয়েছি নতুন স্বাস্থ্যকর্মী তৈরি করার যারা গ্রামে থাকবে। সেখানে হাসপাতালে পানি নেই, প্লাস্টিকের বাকেটে করে পানি দিয়ে সার্জারি হয়, বাচ্চা ডেলিভারি হয়। আমার সঙ্গের ডাক্তারটি আমেরিকার এক নম্বর মেডিক্যাল স্কুল জন্স হপকিন্স থেকে পাশ-করা নাক-কান-গলা বিশেষজ্ঞ। ওখানে সপরিবারে থাকেন। তাঁর আমেরিকার জীবনে বিশাল সুখ শান্তি, বিত্ত ছিল কিন্তু মানব সেবার মধ্যেই শান্তি খুঁজে পান। এটা তাঁদের পছন্দের ব্যাপার। কারণ, তারা চাইলেই বিত্তবান জীবনে ফেরত আসতে পারেন। যাঁদের কিছুই নেই তারাও যে পারবে না তা নয়, কিন্তু মানুষের নিজের মৌলিক চাহিদা আগে পূরণ দরকার। সবাই মাদার তেরেসা হবেন বা দাতা হাতেম তাই হবেন ভাবাটা অন্যায়। তাই আসুন, বাস্তববাদী হোন। ডাক্তারদের মধ্যেও ভালমন্দ থাকবে। কিন্তু মানবতা, সহমর্মীতা শিক্ষা দিই আমাদের ডাক্তারদের, নিরাপত্তা দিই, বিশ্বাস দিই তাঁদের আমাদের পাশে দাঁড়াবার। আপনারাই কিন্তু সন্তানদের ৩০-৪০ লাখ টাকা দিয়ে নিম্নমানের মেডিক্যালে দিয়ে কোটি কোটি টাকা ফেরতের আশায় বসে থাকেন। নিজেদের মানসিকতা বদলানোও জরুরী।

সবশেষে বলি, যে যে কারণেই হোক, পৃথিবীর যে প্রান্তেই হোক, মানবতা নিয়ে কাজ করুক। নিরাপদে থাকুক। জেসন এবং মিরান্ডার যেন বাংলাদেশে গ্রাহাম স্টেইনসের মতো করুন পরিণতি না হয়। জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক।

আপনার মতামত দিন:


মেডিক্যাল ক্যাম্প এর জনপ্রিয়