Ameen Qudir

Published:
2019-06-20 10:51:26 BdST

"ভারতীয় চিকিৎসক এনে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়ার অনুমতি প্রদানের অপচেষ্টা!"


 


ডা. বাহারুল আলম


_______________________

বাংলাদেশে চিকিৎসা করার অনুমতি প্রদানের বিষয়ে সরকার বিএমডিসি-কে পাশ কাটিয়ে চলে। সরকারের সম্মতিতে বিএমডিসির অনুমতি ছাড়া বিদেশী চিকিৎসকরা বাংলাদেশে রোগী দেখা আইনের লঙ্ঘন ও সরকারের এখতিয়ার বহির্ভূত । স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বিএমডিসির আইনের তোয়াক্কা না করে কেবল বেসরকারি পর্যায়ে নয়, সরকারি হাসপাতালেও (কুয়েত মৈত্রী বাংলাদেশ) রোগী দেখার অনুমতি দিয়েছে এবং পত্রিকায় বিজ্ঞাপন আকারে প্রকাশিত হয়েছে। রাষ্ট্র কর্তৃক নিয়োগকৃত নয় এরূপ চিকিৎসক কখনও সরকারি হাসপাতালে রোগী দেখার বিধান নাই। সরকারি বেসরকারি যে কোন স্তরের চিকিৎসকদের বাংলাদেশে প্রাকটিসের জন্য বিএমডিসি-র নিকট যোগ্যতা প্রমাণ করতে হয় ।

বাংলাদেশে বিএমডিসি সরকার দ্বারা গঠিত এবং তার প্রতি এতোটাই অনুগত যে, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কোন সিদ্ধান্তের মেডিকেল এথিকস লঙ্ঘিত হলে বিএমডিসি সে বিষয়ে প্রতিবাদ করতে পারে না।

‘নারায়না হেলথ’ –এই শিরোনামে বাংলাদেশের কুয়েত মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে রোগী দেখবে বলে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করছে , যদিও তাদের নামে বিএমডিসির অনুমতি নাই। কেবল সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশের চিকিৎসা ব্যবস্থার প্রতি অবজ্ঞা প্রদর্শনের ধৃষ্টতা দেখাতে পারল ভারতীয় নারায়নার এ চিকিৎসকরা । দেবিশেঠি বাংলাদেশ সরকার ও তার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উপর যে শক্তিশালী প্রভাব সৃষ্টি করেছে , সেই ক্ষমতায় অন্ধ হয়ে বিএমডিসির নিয়ম কানুন মানতে চাচ্ছে না। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে দেবিশেঠির কাছে বাংলাদেশ অসহায় । তার ‘নারায়না’র চিকিৎসকরা যখন তখন , যেখানে সেখানে রোগী দেখার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে –কেউ তাদের বাধা দিতে পারবে না।

বাংলাদেশে চিকিৎসায় উচ্চশিক্ষার পথ সংকোচিত , পদন্নোতির শম্বুক গতি , প্রয়োজনীয় পদ সৃষ্ট নাই – এসব বিষয়ে কোন সমাধান না টেনে বিদেশী চিকিৎসক ও চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানকে বাংলাদেশে এনে চিকিৎসা দেওয়ার হুজ্জতিতে পেয়ে বসেছে রাষ্ট্রকে । অথচ নিজ স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নয়নের কোন পরিকল্পনা নাই। রাষ্ট্রের এ বজ্জাতির বিরুদ্ধে বিএমএ , বিএমডিসি চুপ। বাংলাদেশী চিকিৎসকদের শূন্য পদ থাকা সত্ত্বেও নিয়োগ দেওয়া হয় না অথচ ভারতীয় চিকিৎসকদের এনে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর খায়েশ মেটানো হচ্ছে ।

সাধারণ চিকিৎসকদের মধ্যে বিশেষ করে তরুণরা বিদেশী চিকিৎসকদের এ আগ্রাসন ঠেকাতে না পারলে বিদেশী পুঁজির থাবায় ক্ষত-বিক্ষত হবে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা। সে কারণেই দেশের চিকিৎসকদের এ সব উদ্যোগের মাধ্যমে নাগরিকদের কাছে অবিশ্বস্ত করে তোলা হচ্ছে।
____________________________
ডা. বাহারুল আলম। প্রখ্যাত পেশাজীবি নেতা।

 

সম্পাদকীয় নোটস : পরবর্তীতে কুয়েত মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে ওই চিকিৎসা ক্যাম্প স্থগিত করেছে সরকার।

আপনার মতামত দিন:


মেডিক্যাল ক্যাম্প এর জনপ্রিয়