Dr. Aminul Islam

Published:
2021-11-30 19:41:07 BdST

আফ্রিকা থেকে আসা ২৪০ জনের সবার মুঠোফোন বন্ধ: সাসপেক্টদের ট্রেস করা যাচ্ছে না


প্রতীকী ছবি

 


সংবাদ সংস্থা
___________________

আফ্রিকা থেকে আসা ২৪০ জনের সবার মুঠোফোন বন্ধ: তাদের খুঁজেও পাওয়া যাচ্ছে না। দেশে ফিরে ভোজবাজির মত উধাও হয়ে সারাদেশে ওমিক্রন সাসপেক্ট হিসেবে সাসপেন্স থ্রিলারের পরিস্থিতি তৈরি করেছে তারা।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, গত এক মাসে ২৪০ জন মানুষ দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে এসেছেন। তাঁদের ‘কন্ট্রাক্ট ট্রেসিং’ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু তাঁরা মুঠোফোন ফোন বন্ধ করে রেখেছেন। এমনকি ঠিকানাও ভুল দিয়েছেন।


আজ মঙ্গলবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে করোনার নতুন ধরন অমিক্রন নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে আয়োজিত আন্তমন্ত্রণালয় সভা শেষে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা জানাতে গিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসব তথ্য জানান।

 

সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার নতুন একটি ধরন শনাক্ত হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই ধরনের নাম দিয়েছে অমিক্রন। বলা হচ্ছে, করোনার নতুন ধরনটি আগের সব ধরনের চেয়ে বেশি সংক্রামক হতে পারে। এর স্পাইক প্রোটিন মূল করোনাভাইরাসের স্পাইক প্রোটিন থেকে ভিন্ন হওয়ায় এই ধরন প্রতিরোধে এখন পর্যন্ত উদ্ভাবিত টিকাগুলো কার্যকর না–ও হতে পারে। করোনার এই ধরন প্রতিরোধে বিশ্বজুড়ে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে অনেকগুলো দেশ আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলীয় দেশগুলোর সঙ্গে ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, বিদেশ থেকে যাঁরা আসবেন, তাঁদের তদারকির মধ্যে রাখা এবং প্রয়োজনে পতাকা টাঙিয়ে দেওয়া হবে। যাঁরা এর মধ্যে আফ্রিকা থেকে এসেছেন, তাঁদের বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়ার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আশ্চর্যের বিষয় আমাদের দেশে ২৪০ জন লোক গত এক মাসে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে এসেছেন এবং তাঁদের আমরা কন্ট্রাক্ট ট্রেসিং করার চেষ্টা করছি। কিন্তু আফসোসের বিষয় তাঁরা সবাই তাঁদের মুঠোফোন ফোন বন্ধ করে রেখেছেন। পরে তাঁদের খুঁজে বের করার জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে বলতে হয়েছে। তাঁরা ঠিকানাটাও ভুল দিয়েছেন। এই ধরনের কাজও হয়ে থাকে। এ বিষয়ে আরও সতর্ক হতে হবে।’

 

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, করোনার নতুন ধরন অমিক্রন নিয়ন্ত্রণে আফ্রিকার দেশগুলো থেকে আসা নিরুৎসাহিত করা হবে। আসতে হলেও তাঁদের ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। তাঁরা চান এই কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থাপনাটি সশস্ত্র বাহিনী করুক। এ ছাড়া অন্যান্য দেশ থেকে করোনা পরীক্ষার সনদ নিয়ে আসতে হবে। আর যদি ওই সব দেশেও করোনার সংক্রমণ বেড়ে যায়, তাহলে সেখান থেকে আসলেও ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনের কথা ভাবা হচ্ছে।


মন্ত্রী বলেন, প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন ঢাকার দিয়াবাড়িতে হতে পারে। এ ছাড়া ১০০-এর মতো হোটেলে এই ব্যবস্থা থাকবে। তবে হোটেলের বেশির ভাগ খরচ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে দিতে হবে। একেবারে কেউ না দিতে পারলে সেটা পরে বিবেচনা করা হবে।
চিকিৎসার জন্য হাসপাতালগুলোও প্রস্তুত আছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, করোনা পরীক্ষার ফল দেওয়ার সময় ৭২ ঘণ্টার পরিবর্তে ২৪ ঘণ্টা বা ৪৮ ঘণ্টায় নামিয়ে আনার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।

 

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সীমান্তে তদারকি আরও জোরদার করতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে সেখানে কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থাটি বৃদ্ধি করার কথা বলা হয়েছে। পার্শ্ববর্তী দেশে অনেক লোক যাওয়া–আসা করেন। সেটিকেও একটু কমিয়ে আনা যায় কি না, তা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

অমিক্রন নিয়ন্ত্রণে সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান সীমিত করার পরামর্শ দেওয়ার কথা জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। এ ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্লাসের সময় এখন যেমন আছে, তাই রাখতে বলা হয়েছে। পরবর্তী সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সময় যেন না বাড়ানো হয়। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আসন্ন এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা চলবে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়