ডাক্তার প্রতিদিন

Published:
2020-05-18 09:48:22 BdST

কেন জ্বর হলেই আমার মনে হয় করোনা হয়েছে?


 

ডা. আদিল রানা,
মেডিসিন কনসালট্যান্ট
_________________

প্রস্তর যুগের মানুষদের কথা একটু ভাবি।

জীবন জীবিকার কারনে সবসময় তাকে যুদ্ধাবস্থায় থাকতে হতো। ছিলো না কোনো আশ্রয়, ছিলো না কোনো মারণাস্ত্র। অন্য অনেক প্রানির মতো তাঁকেও খাদ্যের, বেঁচে থাকার আর পাশাপাশি বংশ বিস্তারের যে Basic Instinct, এই তিনটিকে নিয়ে জীবন এগিয়ে নেয়ার যুদ্ধে "Survival for the fittest" নামক মনোজাগতিক Illusion সবসময় একটা তটস্থ অবস্থার মাঝে রাখতো তাকে।

এই তটস্থ অবস্থাকে আধুনিক বিজ্ঞান নাম দিয়েছে "Fight and Flight response ". "মারো অথবা মরো"।

শরীরের কোন অংশটি করতো এ কাজ?

লক্ষ্য করা যাক, একজন আদি মানুষের খাবার প্রয়োজন। খাবার খুজতে বেরিয়ে কাছাকাছি দুরে আর একটা প্রানি দেখতে পেলো সে এবং তার দলবল। প্রানিটি খরগোশ না বাঘ, ছাগল না শিয়াল জানা নেই। জানা নেই ভয়ংকর নাকি নিরেট নিরিহ প্রকৃতির। কারন, তাঁকে তো আর কেউ Input দেয়নি যে এটা ছাগল, খরগোশ, বাঘ নাকি শেয়াল। কে কার চেয়ে বেশি ভয়ংকর। অনেকটা ছোট বাচ্চাদের মতো।

ফলে যাই সে দেখতো, সেটাতেই সে ভয় পেতো।

কে যোগাতো এই ভয়।

সরাসরি উত্তর, ব্রেইনের নিচের দিকের যে অংশ, অর্থাৎ Emotional brain. আরও Specific ভাবে বললে আমাদের Amygdala.

এই ভয় পাওয়া এবং তদসঙ্গে আরও কিছু Insane কাজ ব্রেইন যে কারনে করে সেটা হয় Amygdala Hacking' র জন্য। By default, Amygdala'র কাজ হচ্ছে ভয় দেখানো।

Amygdala আমাদের logical mind, যেটা কিনা ব্রেইনের উপরের অংশে থাকে, যাকে আমরা বলি Prefrontal Cortex, সেটাকে Hack করে ফেলে। ফলে খরগোস দেখলেও ভয় পেতো সে।

সে অবস্থায় কি করতো সে?

অনেক দুর থেকে একটা পাথর মারতো।

আঘাত পেয়ে যদি খরগোশ পালাতো, তবে মানুষগুলো সবাই দৌড়ে গিয়ে তাকে ধরতো।

আর ঢিল খেয়ে বাঘ যদি হুংকার দিতো তবে সবাই পালাতো।

এক জন্তুু আর এক জন্তুুর মাঝে এই যে Survival খেলা, এটাই হচ্ছে "Fight and Flight response ". "আমি ওকে খাবো না ও আমাকে খাবে"।

হাজার বছর পর বিংশ শতাব্দীর মানুষ যত সুবিধা নিয়ে বাস করুক না কেন, তাঁর ব্রেইন থেকে তো আর Amygdala যায় নি। অতএব, যা হবার তাই হচ্ছে। সমস্ত বিধিনিয়ম পালন করার পরও তার যুক্তির মন কাজ করছে না। Amygdala বারবার তাকে বলছে; তোমার করোনা হয়েছে, তোমার করোনা হয়েছে।

আর করোনা যে ভয়ংকর এই Input সে কিভাবে পেলো। সে তো কোনো ঢিল মেরে দেখেনি।

এই Input দিয়েছে কোনো একজন মানুষ, কোনো একটি Media অথবা কোনো একটি পত্রিকা।

করোনা আসার আগেও এ ভুখন্ডে জ্বর হয়েছিলো।

আর করোনা যদি হয়েও যায় তবে একটা জিনিষ জানার দরকার। তা হলো, আমাদের Subconscious mind' র ক্ষমতা।

সুস্থ, সুন্দর লোকটা Retirement 'র এক অথবা দুই বছরের মাথায় মারা যায় কেন?

রিসার্চ বলে, ওই সময় সকলেই তাকে neglect করে। আর চারপাশের এ অবস্থা দেখে তার Subconscious mind অত্যন্ত দুর্বল হয়ে যায়।

সুতরাং Subconscious mind 'র ক্ষমতা দেখুন।

করোনায় মরি আর অন্য কোনো ভাবে?

মরবোই তো। আজ নয়তো কাল।

কিন্তুু সেই মরনের আগ পর্যন্ত সত্যিকারের বেঁচে থাকি না কেন?

একবার একটা সাহস ঢুকাইনা কেন আমার Subconscios mind'য়ে।

_____________

AD..

 

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়