Ameen Qudir

Published:
2019-11-19 13:06:20 BdST

"ভিখারিনী সুরেলা"র র‍্যাম্পে মডেলিং : পাবলিক ট্রলিং: একটি নির্মোহ বিশ্লেষণ




পিয়ালী দাস
_________________________

তাকে নিয়ে লেখার কোনদিনই ইচ্ছে,উৎসাহ, আগ্রহ হয়নি। তাগিদ বা কারনও ছিলো না। আজ লিখছি তার জন্য নয়, কিছু শিক্ষিত মানুষের জন্য যারা মূল বিষয়টাকে এড়িয়ে গৌন বিষয়টিকে একটি সেন্টিমেন্টের অবস্থানে নিয়ে গেছেন!

ভারতবর্ষে মেধার অভাব নেই! এই উপমহাদেশের আনাচেকানাচে কত মেধা কত বিস্ময় কত স্বতন্ত্রতা কত ব্যাতিক্রম ছড়িয়ে আছে, আমরা তার কতটুকু জানি? আজকাল তাও খানিক জানতে পারছি মোবাইল ও সোশাল মিডিয়ার কারনে! আবার এই সোশাল মিডিয়ায় কাউকে ন্যায় বিচার দিচ্ছে, কারো মুখোশ খুলে মুখ স্পষ্ট করছে! আবার ক্ষনিকে ওঠাতে - নামাতেও সোশাল মিডিয়ার জুড়ি মেলা ভার!

রানু মন্ডল কিন্তু এর ব্যাতিক্রম নন! তিনি কত সুরেলা তার চেয়েও বড় কথা হয়ে দাঁড়িয়েছে যে তিনি "ভিখারীনি সুরেলা!"......এটাই তার অন্যতম বড় পরিচয়! এদেশে কিন্তু সোনার চামচ মুখে নিয়ে কতিপয়ই জন্মান! ভিন্ন ভিন্ন ক্ষেত্রে খ্যাতির শীর্ষে পৌছনো বহু মানুষই কিন্তু প্রত্যন্ত গ্রামের অত্যন্ত দরিদ্র পরিবার থেকে উঠে এসেছেন! যাদের কাছে দুবেলা পেটভরে খাওয়াটাই বিলাসিতা! কেউ কেউ জাত ধর্মর কারনে স্কুলের ক্লাসের বাইরে বসে পড়া শুনে লেখাপড়া করেও ভারত তথা পৃথিবী বিখ্যাত হয়েছেন! হারিয়ানা, ত্রিপুরা, আসাম, মনিপুর, মিজোরাম ভারতবর্ষকে খেলার জগতে সমগ্র পৃথিবীর সামনে বারংবার সন্মানিত করেছে......তাদের অধিকাংশই কি ঘর থেকে কতটা দারিদ্র্যতার সাথে লড়াই করে তাদের মুখটা আপনাদের দেখাতে পেরেছে খবর রাখেন কি? কেনো রাখেন না বলুন তো? কারন একটা সীমিত সময়ের পরে মিডিয়া টি আর পি পায়না বলে আর তাদের পেছনে ছোটেনা! কারন তারা সংযত, স্থিতধী, বাড়তি কথা বলেননা যা দিয়ে "খবর" তৈরী করা যায়। তারা জানেন তাদের রুটটা! তাই তারা মাটিতে দাঁড়িয়ে আকাশ ছোয়ার স্পর্ধা দ্যাখান! রানু মন্ডল ঠিক তার উলটো! লাগামছাড়া মুখ, অহংকারী।

মিডিয়া কি করবে? তারা ব্যাবসায়ী! করপোরেট ইঁদুর দৌড়ে টিকে থাকতে গেলে ওদের " রানু মন্ডল" আইটেমই দরকার কারন আমরা তো ওটাই খাই! আমরা যদি শিক্ষিত হতাম তাহলে প্রসেনজিতের মতো তুখোড় অভিনেতাকে লালন, দোসর, নেতাজি, অটোগ্রাফ করলেই চলতো! বাবা কেনো চাকর/ সিদুরের দিব্যি এসবে অভিনয় করতে হোতনা! কিন্তু এসবেরই বিক্রি তো অধিক! রিয়ালিটি শো তে "পাতি পাব্লিক" ভোট যদি শিল্পীদের মাপকাঠি ও রেসাল্ট ডিসাইড করে, তাহলে তার পরিনতি হিসেবে পাব্লিক কোনদিন ডোভার লেনের মিউজিক কনফারেন্সে মিস শেফালিকে নাচাতেও দ্বিধা নাও করতে পারে! আগে তো জানতাম, সমাজের শিক্ষিত স্বজ্জন ভদ্রলোকেরা রাজনীতি করতেন! এখন কাদের আমরা ভোট দিই? জেতাই? গালিও দিই সাড়ম্বরে! তা গালিই যখন দিই তাহলে এদেরই ভোট দিয়ে জেতাই কেনো? কারন এতে আমরা অভ্যস্ত হয়ে গেছি এবং আমাদের কাছে দ্বিতীয় অপশন নেই! নোটায় ক্লিক করবার মতো শিক্ষিত বা মানসিক জোরের আমরা এখনো হইনি।

নিশ্চই বলবেন শিক্ষা! হ্যা শিক্ষার অভাব তো বটেই! কিন্তু শিক্ষা কিন্তু ডিগ্রি দিয়ে হয়না! শিক্ষা হয় নৈতিক, মূল্যবোধের..... যা চিরন্তন। চা বাগানে, কোলিয়ারিতে, বড় শহরগুলির কন্সট্রাকশন সাইটে গেলে দেখতে পাবেন পুরুষের থেকে মহিলার সংখ্যা কোন অংশে কম নয়! বরং অনেকক্ষেত্রে মহিলারা অধিক পরিশ্রমী। পিঠে বাচ্চা বেধে বা সন্তানসম্ভবা অবস্থায় তারা অক্লান্ত পরিশ্রম করছে! তারা আমেরিকা ইউরোপ মিডল ইস্টের জীবনধারায় চলেনা! কিন্তু ভিক্ষাবৃত্তিও করেনা! অনেক ক্ষেত্রেই ভিক্ষা করাটা স্বভাব! প্রতিবন্ধী বহু মানুষকে আমি দেখেছি যারা ভিক্ষা করেন কিন্তু গান গেয়ে বা সামান্য কিছু বিক্রি করে!
সিগন্যালে গাড়ী দাড়ালে দেখবেন, বাচ্চাগুলো ছুটে আসে খুব সামান্য ছোট্ট কিছু বিক্রি করতে বা গাড়ীর কাচ মুছে দিতে! ওরাও কাজ করে পয়সা আয় করছে! আবার এও দেখবেন যে কেউ কেউ দুটো তিনটে বাচ্চা কোলেকাখে করে নিয়ে এসে "খাবার নেই" অঙ্গ সঞ্চালিত করে দ্যাখান! প্রশ্ন কি ওঠেনা যে, তাহলে এতোগুলো বাচ্চার জন্ম কি আমায় জিজ্ঞেস করে দিয়েছিলে বাছা?
আজকাল কেন্দ্র রাজ্য যথেষ্ট সচেতন এদের সচেতনতা বাড়াতে! প্রচুর সরকারি স্কিম আছে এদের জন্য। সরকারি বাদেও বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা বিভিন্নভাবে এদের নিয়ে এদের জন্য কাজ করে......কিন্তু ফল শূন্য কারন "স্বভাব"!

রানু মন্ডল গায়িকা! কোন গায়িকাকেই আপনি কি খুব একটা র‍্যাম্পে হাটতে দেখেছেন? স্বাভাবিক ভাবে তাদের কি ওটার প্রয়োজন আছে? গানের সাথে কি ওটির কোন সখ্যতা আদৌ হয়? ধরে নিলাম যে উনি সেই অর্থে শিক্ষিত নন বা বোকা বলে তিনি এভাবে "ইউজ" হচ্ছেন! কিন্তু তা কি করে? যে মানুষ জীবনের টানাপোড়েন লড়াই দেখেছেন, জীবনের অনুভব উপলব্ধি যার আছে, তিনি এতোটা বোকা হবেন? তবে কি লোভ? না"কি হাভাতেপনা?

আমি মেকআপের কিস্যু বুঝিনা! কিন্তু এটুকু বুঝি যে, শুধু প্লাস্টার অফ প্যারিসের গোলা ঢেলে সাদা করাই যদি মেকআপ হয় তাহলে আফ্রিকান কান্ট্রির মানুষেরা বা কৃষাঙ্গ মানুষেরা জীবনে কক্ষনো র‍্যাম্পে বা ফ্যাশনে আসতে পারতেন না! কিন্তু তা তো হয়না ! তাহলে হয় মেকআপ আরটিস্ট আদৌ জানেন না কার জন্য কোথায় কিভাবে মেকআপকে স্থিত করতে হয়! অথবা রানু মন্ডল কে কি জাস্ট খোরাক বানিয়ে এরা ফায়দা লুটছেন?

বহু অতি সাধারন হতগরীব মানুষ পৃথিবীতে সন্মানিত হয়েছেন, হচ্ছেন অথচ তারা ট্রোলড হননি কারন তারা কি ছিলেন আর কি হয়েছেন দুটোই জানেন! আর রানু মন্ডল ভিক্ষাবৃত্তির সময়ই জানতেন যে "তিনি কি"..... এটাই তফাৎ।
রানাঘাট স্টেশনে অতীন্দ্র বাবু দ্বারা সুরেলা রানু আবিস্কার হবার পরের থেকে আজ অব্দি ঘটনাপ্রবাহ প্রমান করেছে, সুগায়িকার পাশাপাশি হয় মহিলার মানসিক সমস্যা আছে নতুবা তিনি একটি আস্ত বাচাল!

না আমরা সুস্থ মানুষেরা কেউ তাকে নিয়ে হিংসা বা হীনমন্যতায় ভুগিনা! প্রশ্নই ওঠেনা। তার মুম্বাইতে ফ্ল্যাট বলে ভারতবাসী হিংসে করছে এসব বড্ড বোগাস ভাবনা! এটাও চাইনা যে তিনি আবার আগের জীবনে ফিরে যান! তবে এটা নিশ্চই চাই যে তিনি অন্তত যেটা করতে গেছেন, সেই গানটা ঠিকমতো মন দিয়ে করুন! গানটা আমরা অনেকেই ভীষন ভালোবাসি! আর মুখে একটা লাগাম দিন। সত্যি তিনি সুরেলা, সুগায়িকা! যারা তাকে নিয়ে যারপরনাই আবেগমথিত তাদের বলি, বুকে হাত দিয়ে বলুন তো, ভালোমনে শ্বাশুড়ি একখান জ্ঞ্যানের কথা বললে মনেমনে বা প্রকাশ্যে কিরকম খিচিয়ে উঠে কয়েকখান বাক্যবান চালিয়ে দেন ????
তা টিভি বা মোবাইল খুললেই যদি হোয়াইট ওয়াশ করে বা বাচালতা করে স্ক্রিনজুড়ে গানবিহীন একখান রানু মন্ডল বিরাজ করে তাহলে তিনি ট্রোলড বা খিস্তি খাবেন না, এমন গ্যারান্টি বা পেশেন্সের পরীক্ষা ভারতবাসী ক্যামনে দেবে?

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়