Ameen Qudir

Published:
2019-11-06 12:06:15 BdST

শেষ বয়সে কোমরের মাপ নির্দেশ করে পূর্ণ বয়স্কদের ডিমেনশিয়ার ঝুঁকি!!


 

অধ্যাপক ডা. শুভাগত চৌধুরী
বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসাহিত্যের পথিকৃৎ
___________________________


শেষ বয়সে কোমরের মাপ কি নির্দেশ করে এশিয়ান পূর্ণ বয়স্কদের মধ্যে ডিমেনশিয়ার ঝুঁকি ?
বড় রকমের গবেষণায় দেখা গেল , যে পুরুষদের কোমরের মাপ ৯০ সেন্টিমিটারের বেশি আর নারীদের ৮৫ সেন্টিমিটারের বেশি এদের ডি মেন শিয়ার ঝুকি তাৎপর্য পূর্ণ ভাবে বেশি ।
" For all the physicians who deal with geriatric medicine, obesity and dementia , this study emphasizes that waist circumference should be considered in the assessment of obesity related dementia risk in the elderly "........Hye Jin Yoo. (Koriyan research team )
নারী আর পুরুষ উভয়ই এখন কোমরের মাপ নিন

২.
ব্যায়ামে কত গুণ

যাদের আলঝাইমার রোগের ঝুঁকি এদের মগজের সুরক্ষা করে ব্যায়াম

নিয়মিত ব্যায়ামের আরও আছে হিত করী ফল

১। মন মেজাজ চনমনে করে ।
শরীর চর্চা উদ্দীপিত করে সেরোট নিনের মত রাসায়নিক যা শিথিল হতে সাহায্য করে ।
২। স্মৃতি শক্তি করে উন্নত ।
ব্যায়াম করলে মগজে রক্ত চলাচল বাড়ে । রক্ত চলাচল বাড়াতে মগজ চলে দুরন্ত ।
৩। রোগের ঝুঁকি কমায়
ব্যায়াম করলে বাড়ে ভাল কোলেস্টেরল এইচ ডি এল আর কমে ট্রাই গ্লি সা রাইড । এতে প্রতিরোধ হয় প্রান সংশয়ী রোগ যেমন ডায়ে বে টি স , হৃদ রোগ , উচ্চ রক্ত চাপ , আরথ্রাই টি স ।
৪। উজ্জীবিত করে শক্তি
নিয়মিত শরীর চর্চা পুরো শরীরে অক্সিজেন আর পুষ্টি উপকরণ সরবরাহ করে ঠিক ঠাক /
৫। ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা হয় ।
শরীরে অক্সিজেন পর্যাপ্ত সরবরাহ হলে সঞ্চিত মেদ দহন হয় আর ওজন নিয়ন্ত্রনে সহায়তা হয় ।

৩.
মুখের ভেতর হিত কর জীবাণুর বসতি
গবেষকরা বলেন ১৩০০ প্রজাতির হিতকর ব্যক টে রিয়া থাকে মুখের ভেতর । এই জীবাণুগুলো মুখ গহ্বরের স্বাস্থ্য ভাল রাখে । শরীরের স্বাস্থ্য ও ভাল রাখে । কিন্তু আমাদের কিছু বদভ্যাস যেমন ধূমপান , চিনি মিষ্টি খাবার খাওয়ার জন্য এই ভাল জীবাণুর সংখ্যা কমে যায় । আর তখন জন্ম নেয় ক্ষতিকর জীবাণু । এই ব্যক টে রিয়া উৎপন্ন করে অম্ল রস আর এটি ক্ষয় করে দাঁত । মাড়ির রোগের প্রবণতা বাড়ে । বাড়ে হৃদ রোগের প্রবণতা এবং ক লো ন ক্যান্সারের সম্ভাবনা । তাই বিজ্ঞানীরা মুখের ভেতর ভাল ব্যক টে রিয়া গজানোর জন্য তিনটি অভ্যাসের ব্যবস্থা পত্র দিয়েছেন ।
১। প্রতিদিন ঠিক মত দাঁত ব্রাশ আর ফ্লস করা ।
২। চিনি, মিঠাই , চিনি মিশ্রিত জল খাওয়া কমানো আর ধূমপান ত্যাগ করা ।
৩। ফ্লরাই ড মিশ্রিত জল পান করুন ।
আগামি দিনে ভাল ব্যক টে রিয়া দৈনন্দিন ব্যবহার্য জিনিষে যুক্ত করা হবে যেমন টু থ পেস্ট , মাউথ ওয়াস, চিউইইং গাম

৪.

দেশে খাদ্যাভাব নেই কিন্তু পুষ্টিজ্ঞানের যথেষ্ট অভাব , শর্করা আর শ্বেত সার বেশি খাওয়া ,আর অন্যান্য পুষ্টি উপকরন কম আহরন করার জন্য এমন কোনও কোনও ক্ষেত্রে ঘটছে অ পুষ্টি আর স্থূলতাও বাড়ছে দেশে , তাই ক্রনিক রোগ বাড়বে আর তরুণ রা বেশি আক্রান্ত হবে । পুষ্টি জ্ঞান সম্বধে আরও জন সচেতনতা প্রয়োজন তেমনি সব পর্যায়ের শিক্ষা কার্যক্রমে যেন থাকে পুষ্টি বিজ্ঞান , স্কুল থেকে বিশ্ব বিদ্যালয় পর্যন্ত ।পুষ্টিবিদ আর ডায়ে টি শিয়ান রা যেন আরও বেশী গুরুত্ব পায়


৫.
৪ নভেম্বর হল সাধারন জ্ঞান ব্যবহার দিবস
Common sense is the most uncommon thing in this world ?
ডাক্তারদের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন পেশাগত বাস্তব জীবনে
প্রতিদিন আমরা সাধারন জ্ঞানের ব্যত্যয় দেখি ,কি যে বোকামি মনে হয় পরে ,/
একজন কেরিয়ার ম্যানটার ব্যাড বিলানিচ এই দিবস প্রতিষ্ঠা করেন , অনেক টি ভি অনুষ্ঠানে এর প্রচার হল , তিনি কয়েকটি বই লিখলেন এতে দেওয়া ছিল জীবনে উন্নতির নানা উপায়। তার লেখা ১৯ টি বইতে তিনি জোর দিয়েছেন যে সাধারন জ্ঞানের প্রয়োগ সাফল্যের চাবি কাঠি
ত ত্ব হিসাবে সাধারণ জ্ঞানের অন্তর্ভুক্তি প্রাচীন । প্রথমে ধারনা এরিসট টো লের এরপর এল এর রোমান ব্যখ্যা । সাধারন জ্ঞান হল সহজ ,কাণ্ড জ্ঞান সম্পন্ন জিনিষ জানা বোঝা সে সম্বন্ধে জ্ঞান । আই ফোন যেন রিচারজ করার জন্য মাইক্র ওয়েভে না বসান হয় । সাধারন বিষয় সম্বন্ধে জ্ঞান
বেশির ভাগ মানুষ সাধারন পরিস্থিতিতে কই করবে সাধারন জ্ঞান তা বলে দেয় কিন্তু কিছু লোক সাধারণ জ্ঞান অনুসরণ করেনা । এজন্য ব্যাড বিলানিচ সৃষ্টি করলেন সেই দিবস । সবাই কাজে কর্মে , ঘরে , ব্যবসায় কাজে লাগান উচিত সাধারন জ্ঞান ।
নভেম্বর ৪ কে বেছে নেওয়া হল এই দিবস পালনের জন্য কারন সে দিনটি ছিল উইল রগারস এর জন্মদিন । তিনি একজন বিখ্যাত আমেরিকান হিউ মারিস ট । তাঁর বিখ্যাত উক্তি "common sense ain't all that common " Thomas Edison once said " many people miss opportunity because it comes dressed all in overalls and looks like work "
চলুন আমরা আমদের সাধারন জ্ঞান ব্যবহার করি ।
৬.


জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব কি করে ঠেকাবেন ? শুনুন এক কথোপকথন
কার্বন নিঃসরণ হ্রাস করার জন্য কি প্রয়োজন হবে উন্নত প্রযুক্তি?
কোস্টা রিকার পরিবেশ ও এনার্জি মন্ত্রী ম্যানুয়েল রদ্রিগেজ কথা বলছলেন তার কন্যার সাথে ।
একদিন পরিবারের সবাই বসে ডিনার করছিলেন , তাঁর কন্যা বলল , বাবা জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে ভেবনা , একদিন একজন বিজ্ঞানী এমন এক মেশিন আবিষ্কার করবেন যা বাতাসের সব কার্বন শুষে নেবে , আমরা হব নিরাপদ ।
আমি বললাম মেয়েকে , তুমি জান? লক্ষ লক্ষ বছর আগে প্রকৃতি এই আবিষ্কার করে রেখেছে , মেশিনটি হল বৃক্ষ ।
আমরা যদি গ্রীষ্ম মণ্ডলে বৃক্ষ নিধন বন্ধ করি , বন্ধ করি বৈশ্বিক পর্যায়ে তাহলে আমরা সেই মেশিনের কার্যকর ব্যবহার পাব ।
বিশ্ব জুড়ে প্রতি বছর আমরা হারাচ্ছি ১৮.৭ মিলিওন একর অরণ্য ।
অরণ্য বিনাশের ফলে কেবল যে আমরা প্রাকৃতিক আবাস ভুমি হারাচ্ছি তাই নয় , হারাচ্ছি জীব বৈচিত্র্য । আর বাড়ছে কার্বন নিঃসরণ কারন একে শুষে নেবার মত যথেষ্ট বৃক্ষ থাকছেনা ।
১৯৪৯ সালে কোস্টা রিকার ৭০ শতাংশ ছিল বনাঞ্চল বিশেষ করে গ্রীষ্ম মণ্ডলীয় বৃষ্টি বন । ১৯৮৩ সালে কয়েক বছর অরন্য বিনাশের ফলে তা নেমে এল ২৬ শতাংশে ।
এরপর এল প্রধান নীতি পরিবর্তন । লগিং পারমিট সীমিত করে , যে সব জমিদাররা জমি সং রক্ষণ করেন তাদেরকে অর্থ প্রদান করে , ইকো ট্যুরিজমে বিদেশি বিনিয়োগ উৎসাহিত করে , কোস্টা রিকা এই ধারাকে উল্টে দিল । অরন্য বেড়েছে দ্বিগুণ আর দেশের অর্ধেক এখন অরণ্য ,। আরও বাড়ছে কারন সরকার তৈরি করছে অনেক অনেক ন্যাশনাল পার্ক প্রাকৃতিক ইকো সিস্টেম বজায় রাখার জন্য । জনগণকেও এ কাজে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে , তারা প্রকৃতি সং রক্ষণে নেমেছে ।
ইকো ট্যুরিজম আমাদেরও অগ্রাধিকার হতে পারে এতে আমরাও বিদেশী বিনিয়োগ উৎসাহিত করতে পারি। দেশি বিনিয়োগকারীরা ও এগিয়ে আস্ তে পারেন । আর জনগন যখন বুঝবেন এতে আর্থিক সম বৃদ্ধি ও হবে তাহলে তারাও পিছিয়ে থাকবেনা ।

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়