Ameen Qudir

Published:
2019-08-05 21:25:48 BdST

কাশ্মীরে যে কোন ভারতীয় জমিজমা কিনতে পারবেন: বিশেষ মর্যাদা বিলোপ


 

ডেস্ক / বিবিসি
_______________________


গত দশদিনে ভারত শাসিত কাশ্মীরে প্রায় বাড়তি পঞ্চাশ হাজার সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।
ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ, যেটা কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা দেয়, তা বিলোপ করার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার।

৩৭০ অনুচ্ছেদের কারণে জম্মু ও কাশ্মীর অন্য যেকোন ভারতীয় রাজ্যের চেয়ে বেশি স্বায়ত্বশাসন ভোগ করতো।

এই ধারাটি খুবই তাৎপর্যপূর্ণ, কারণ এর ভিত্তিতেই কাশ্মীর রাজ্য ভারতের অন্তর্ভূক্ত হয়েছে।

অনুচ্ছেদ ৩৭০ ভারতীয় রাজ্য জম্মু ও কাশ্মীরকে নিজেদের সংবিধান ও একটি আলাদা পতাকার স্বাধীনতা দেয়। এছাড়া পররাষ্ট্র সম্পর্কিত বিষয়াদি, প্রতিরক্ষা এবং যোগাযোগ বাদে অন্যান্য সকল ক্ষেত্রে স্বাধীনতার নিশ্চয়তাও দেয়।

সোমবার সংসদে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বিরোধীদের তুমুল বাধা ও বাগ-বিতণ্ডার মধ্যে এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন।

এই মর্মে সরকারের পক্ষ থেকে একটি বিজ্ঞপ্তিও জারি করা হয়েছে, যাতে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোভিন্দ স্বাক্ষরও করেছেন।

এই সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগে সকালে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভার এক বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা হয়।

মন্ত্রীসভার ঐ বৈঠক শুরু হওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাথে একান্ত বৈঠক করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

এই ৩৭০ অনুচ্ছেদের সুবাদে কাশ্মীরের স্থায়ী বাসিন্দারাই শুধুমাত্র সেখানে বৈধভাবে জমি কিনতে পারতেন, সরকারি চাকরি করার সুযোগ পেতেন এবং সেখানে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারেন।

ঐ অনুচ্ছেদ বিলোপ করার বিষয়টি বিজেপি'র পুরনো রাজনৈতিক এজেন্ডাগুলোর একটি।

এই সিদ্ধান্তের ফলে সেখানে তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এখন জম্মু এবং কাশ্মীর 'ইউনিয়ন টেরিটরি' বা কেন্দ্রীয়ভাবে শাসিত রাজ্য হিসেবে পরিচালিত হবে।

লাদাখ কেন্দ্রশাসিত তৃতীয় একটি এলাকা হিসেবে বিবেচিত হবে।
________________________

 

@MehboobaMufti এর টুইটার
Today marks the darkest day in Indian democracy. Decision of J&K leadership to reject 2 nation theory in 1947 & align with India has backfired. Unilateral decision of GOI to scrap Article 370 is illegal & unconstitutional which will make India an occupational force in J&K.

— Mehbooba Mufti (@MehboobaMufti) ৫ আগস্ট, ২০১৯
_______________________

কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি টুইট করেছেন যে, এই সিদ্ধান্ত কার্যকরভাবে ভারতকে ঐ রাজ্যের দখলদার বাহিনী হিসেবে প্রমাণ করেছে।

ভারত এবং পাকিস্তান দুই দেশই মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ কাশ্মীর রাজ্যের পুরো অংশের নিয়ন্ত্রণ দাবি করে, তবে উভয় দেশই সেখানকার অংশবিশেষ নিয়ন্ত্রণ করে।

গত তিন দশক ধরে ভারত শাসিত কাশ্মীরের কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ হচ্ছে।

 

যেভাবে বদলে যাবে ভারতের অধীন কাশ্মীর

_______________________
ভারতের সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপের মধ্য দিয়ে এতদিন বিশেষ মর্যাদায় থাকার জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের সাথে ভারতের বাকি অংশের জটিল সম্পর্কের ধরণটি সম্পূর্ণভাবে বদলে দেয়া হয়েছে।

 

গত সাত দশক ধরে এই ৩৭০ অনুচ্ছেদের সুবাদে এই রাজ্যটি ভারতের অন্যান্য রাজ্যের চেয়ে বেশি স্বায়ত্বশাসন ভোগ করতো। এবং ক্ষমতাসীন বিজেপি একেই বদলে দিতে চাইছে।

তাহলে ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর মধ্যে কাশ্মীরে কী ধরনের পরিবর্তন আসছে?

ভারতের একজন সংবিধান বিশেষজ্ঞ কুমার মিহির বলছেন, কাশ্মীরের পুনর্গঠনের প্রস্তাবগুলো এখন সংসদের উভয় কক্ষের মধ্য দিয়ে যেতে হবে।

তিনি বলছেন, এর আগে সংবিধানের ৩৫-এ অনুচ্ছেদের সুবাদে জম্মু ও কাশ্মীরে যারা 'স্থায়ী বাসিন্দা' ছিলেন শুধু তারাই সেখানে জমিজমার মালিক হতে পারতেন। এখন যে কেউ ঐ রাজ্যে গিয়ে জমি কিনতে পারবে।

এর আগে কাশ্মীরের স্থায়ী বাসিন্দাদের জন্য রাজ্য সরকারের চাকরিগুলো নিশ্চিত করা ছিল। এখন ভারতের অন্যান্য রাজ্য থেকে প্রার্থীরা কাশ্মীরে সরকারি চাকরির জন্য আবেদন করতে পারবেন।

অনুচ্ছেদ ৩৭০ অনুযায়ী এতদিন জম্মু ও কাশ্মীরের নিজস্ব সংবিধান ও একটি আলাদা পতাকার স্বাধীনতা দেয়া ছিল। ভারতের সংসদের উভয় কক্ষ ভবিষ্যতে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। পররাষ্ট্র, অর্থ ও প্রতিরক্ষা বিষয়টি এতদিন কেন্দ্রীয় সরকারের হাতে ছিল। এখনও তাই থাকবে।

কুমার মিহির বলছেন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব এতদিন ছিল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর হাতে। কিন্তু নতুন ব্যবস্থায় রাজ্যটিতে কেন্দ্রের সরাসরি শাসনের প্রস্তাব রাখা হয়েছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতিনিধি হিসেবে রাজ্যটি পরিচালনা করবেন একজন লেফটেন্যান্ট গভর্নর।

জম্মু ও কাশ্মীরের রাজ্য বিধানসভা গত কয়েক দশক ধরে কেন্দ্রের যেসব আইনের অনুমোদন করেছেন, সেগুলো এখন সরাসরি কার্যকর হবে।

ভারতের সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তগুলো এখন এই রাজ্যের জন্য সরাসরিভাবে প্রযোজ্য হবে।

সংবিধান বিশেষজ্ঞ কুমার মিহির জানাচ্ছেন, এর বাইরে ভারতের দণ্ডবিধি কিংবা স্থানীয় রনবীর পিনাল কোড-এর ভবিষ্যৎ নিয়েও কেন্দ্র সরকার কিংবা সংসদকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রথা থাকবে কি না, সেটার প্রশ্নেও সিদ্ধান্ত নেবে ঐ দুটি প্রতিষ্ঠান।

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়