Ameen Qudir

Published:
2019-08-04 20:43:18 BdST

'উপরের লেভেলে যোগাযোগ করতে গেলে মনে হয়েছে আমি দাস, মনিবের সাথে কথা বলছি'


 

 

ময়মনসিংহবাসীর কাছে ব্রিগেডিয়ার জে. ডা. নাসিরউদ্দিন আহমেদের খোলা চিঠি ।

ব্রিগেডিয়ার জে. ডা. নাসিরউদ্দিন আহমেদ
পরিচালক
ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
___________________________

প্রিয় ময়মনসিংহ বিভাগ বাসী

আমি আপনাদের কৃতজ্ঞতা জানাই।, আপনারা সাধারন প্রান্তিক মানুষ ও গুনী নিরপেক্ষ মানুষগন আমাকে সাহায্য করেছেন।পরামর্শ দিয়েছেন। সহযোগিতা করেছেন।আমি আপনাদের কাছে আমৃত্যু কৃতজ্ঞ।

১লা নভেম্বর ২০১৫ সালে আমি ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব নেই। তার পরের ইতিহাস আপনারা অনেকেই জানেন না।অমানবিক পরিশ্রম আর স্রোতের বিপরীতে যেয়ে একা একজন মানুষ সেনাবাহিনীর ইউনিফর্ম পরে অত্যন্ত ধৈর্য ধরে নানামুখী ষড়যন্ত্র সহ্য করে ৩ বছর ৯ মাস দায়িত্ব পালনে সর্বচ্চো নিষ্ঠা নিয়ে কাজ করেছি। এত লম্বা সময় পরিবার পরিজন ছেড়ে ক্যান্টনমেন্ট এ একাকী কক্ষে আনন্দ হীন জীবনের জন্য আমার কোন দুঃখ নেই।আল্লাহ মানুষের তকদির নিয়ন্ত্রণ কারী। আমি আল্লাহর প্রতি সম্পুর্ন সন্তুষ্ট।

কিন্তু অতীব দুঃখ ও বেদনার বিষয় এই যে হাসপাতালের সকল পর্যায়ের বৈরীতা,দায়িত্বহীনতা,জবাবদিহিহীনতা, স্বেচ্ছাচারী আচরণ এবং অদৃশ্য ক্ষমতাধর শক্তির নিপিড়ন, রোগী সেবায় ব্যর্থতার দায় ভার পুরোটাই পরিচালক কেই নিতে হয়।

উপরের লেভেলে যোগাযোগ করতে গেলে মনে হয়েছে আমি দাস, মনিবের সাথে কথা বলছি।উনাদের কথা শুনতে ২ মিনিট সময় হয় না।

দালাল নিয়ন্ত্রন,আয়াদের চাঁদাবাজি, ট্রলিম্যান দের টাকা নেওয়া,নার্সদের শৃংখলাবহির্ভূত কাজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া, গুরুত্বপূর্ণ পদে বদলীর বিষয়ে পরিচালকের সুপারিশ আমলে নেয়া হয় না।
কিছু কিছু ডাক্তার দের আচরণ জনিত সমস্যা,অনুপ্সিতিথি,মেডিকেল কলেজের শিক্ষকদের জবাবদিহিতার অভাব, কর্মস্থলে অনুপ্সথিতি, রোগীর অস্বাভাবিক চাপ,অবকাঠামোর অপ্রতুলতা নিয়ে ভাল ভাবে হাসপাতাল চালানো সম্ভব নয়।সুশাসন কাগজে কলমে, বাস্তবতা ভিন্ন।

আমি আল্লাহ কে ভয় করি। বিদ্যমান অবস্থায় সন্মান ও মর্যাদা নিয়ে যেহেতু চাকুরী করা যাবে না সেহেতু বেতন নেওয়ার কোন মানে হয় না। আমার পিতা এম বি বি এস ডাক্তার ছিলেন। ৬৯ থেকে ৭৫ পর্যন্ত এম পি ছিলেন।মুক্তিযুদ্ধ করেছেন। বিত্তবান ছিলেন না।আমিও গ্রামে খালি পায়ে হেটে গ্রামের সরকারি প্রাইমারী স্কুলে,গ্রামের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ও মফস্বলের কলেজ সাধারণ ভাবে লেখা পড়া করেছি।

চাকুরির শেষ বছরে অতিরিক্ত মানসিক চাপ,নিপিড়ন, অবজ্ঞা আল্লাহর খাতিরেই সহ্য করেছি। আর জীবনের শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত আল্লাহর উপরই ভরসা করব।আমি ক্রটিমুক্ত মানুষ নই।কর্মজীবন এ আমারো ভুল হয়েছে। সেটা ছিল অনিচ্ছাকৃত বা জ্ঞানের অভাবে।

আমি অতিশীঘ্র অবসরে চলে যাব। হাসপাতালের গুরুত্বপূর্ণ কাজ সেনানিবাসে বসে করব অবসর যাওয়া পর্যন্ত ।অসন্মানিত হতে হাসপাতালে যাব না।

আমার সকল ব্যার্থতার দায়ভার আমি নিচ্ছি।ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উন্নতি কামন করছি।আল্লাহ যেন এ প্রতিষ্ঠান কে সুরক্ষা দেন।আমিন।
বিনীত
পরিচালক
ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়