SAHA ANTAR

Published:
2022-04-25 12:01:54 BdST

বিএপি গাইডলাইন ফর ম্যানেজমেন্ট স্কিজোফ্রেনিয়া‌'র মোড়ক উন্মোচন হল জমজমাট আয়োজনে


 

ডেস্ক
____________________


বিএপি গাইডলাইন ফর ম্যানেজমেন্ট স্কিজোফ্রেনিয়া‌ ( ভগ্নমনস্কতা) এর মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান হয়েছে । এ গাইডলাইন বাংলাদেশের মানসিক রোগ চিকিৎসা ও রোগী ব্যবস্থাপনায় অনন্য ভূমিকা রাখবে বলে জানিয়েছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞগন। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বরেণ্য মনোরোগ বিশেষজ্ঞবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। তাদের অংশগ্রহণে আয়োজন সফল ও সমৃদ্ধ হয়। অনুষ্ঠানে অংশ নেন, অধ্যাপক ডা. ওয়াজিউল আলম চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. খুরশিদ আলম, অধ্যাপক ডা. নাহিদ মেহজাবিন মোরশেদ, অধ্যাপক ডা. মোহিতুজ্জামান, অধ্যাপক ডা. সালাউদ্দিন কাউসার বিপ্লব, ডাক্তার প্রতিদিন সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোরোগ বিদ্যার অধ্যাপক ডা. সুলতানা আলগিন , সহযোগী অধ্যাপক ডা. তারিকুল আলম সুমন,
সহযোগী অধ্যাপক ডা. অভ্র দাস ভৌমিক, সহযোগী অধ্যাপক ডা.হেলাল উদ্দিন আহমেদ, সহযোগী অধ্যাপক ডা.মেখলা সরকার প্রমুখ সহ বাংলাদেশের বিশিষ্ট মনোরোগ চিকিৎসকগন।

আয়োজন সম্পর্কে
সহযোগী অধ্যাপক ডা. অভ্র দাস ভৌমিক জানান,
" ২৪ শে এপ্রিল ২০২২ হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে আকর্ষণীয় ও জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যান মন্ত্রী জাহিদ মালেক এম পি "BAP Gidelines for management of Schizophrenia" এর মোড়ক উন্মোচন করেন। BAP এর সকল সদস্য ও আমার সকল শিক্ষকমন্ডলীর প্রতি আমার আমার আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাচ্ছি আমাকে এই গাইডলাইনের Working Committee এর Convener হিসাবে দায়িত্ব পালনের সুযোগ দেবার জন্য। আশাকরি এই গাইডলাইনটি বাংলাদেশের সিজোফ্রেনিয়া রোগীদের চিকিৎসা ক্ষেত্রে বিশেষ সহায়ক হবে।"

স্কিজোফ্রেনিয়া নিয়ে কিছু কথা/ অন্তর সাহা

শারীরিক রোগের গালভরা নাম শুনলে আমরা যেমন সমীহ করি, ঠিক তার উল্টোটা হয় মানসিক সমস্যার ক্ষেত্রে। এখনও মানসিক রোগ নিয়ে আমাদের ট্যাবু কাটেনি। তাই পরিবারের কেউ মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত হলে চিকিত্সা করানোর আগে সমস্যা লুকোতেই ব্যস্ত হয়ে পড়েন সদস্যরা। এমনই এক কঠিন মানসিক সমস্যা স্কিজোফ্রেনিয়া।

প্রাথমিক পর্যায়ে স্কিজোফ্রেনিয়ার চিকিত্সা না করানো হলে তা ক্রনিক সমস্যা হয়ে উঠতে পারে। আমাদের দেশে মানসিক রোগ সম্পর্কে ধারণায় স্বচ্ছতার অভাব থাকায় অধিকাংশ ক্ষেত্রেই চরম অবস্থায় পৌঁছে যায় স্কিজোফ্রেনিয়া। এই রোগে আক্রান্তের ভাবনা-চিন্তা, অনুভূতি, কাজের উপর প্রভাব ফেলে।

 

ঠিক কী কারণে কেউ স্কিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত হন তার কোনও নির্দিষ্ট কারণ এখনও খুঁজে পাননি বিজ্ঞানীরা। কোনও অভিজ্ঞতার ফলে অত্যধিক মানসিক চাপ থেকে এই সমস্যা হতে পারে। এ ছাড়াও বংশগত কারণ, মস্তিষ্কে রাসায়নিকের ভারসাম্যের অভাব, অনেক সময় ভয়াবহ ভাইরাল ইনফেকশন থেকেও হতে পারে স্কিজোফ্রেনিয়া।

 

 

যে কোনও বয়সের মানুষই স্কিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত হতে পারেন। সাধারণত ১৬-৩০ বছর বয়সের মধ্যেই এই রোগের প্রথম লক্ষণ দেখা যায়। পুরুষদের ক্ষেত্রে তুলনামূলক কম বয়সেই প্রথম লক্ষণ ধরা পড়ে।

এখনও পর্যন্ত স্কিজোফ্রেনিয়া স্থায়ী নিরাময়ের কোনও উপায় বের করতে পারেননি মনোবিদরা। তবে ওষুধের সাহায্যে রোগের লক্ষণ ও প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। তাই যত কম বয়সে রোগ ধরা পড়ে ও চিকিত্সা শুরু যায়, ততই ভাল।

অারও বিস্তারিত তথ্য জানলে নিচের লিংক খুলে পড়ে নিতে অনুরোধ রইল। 

https://roar.media/bangla/main/lifestyle/schizophrenia-where-mind-is-the-habitats-of-the-sickness

 

 

 

আপনার মতামত দিন:


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়