SAHA ANTAR

Published:
2021-02-15 11:36:36 BdST

করোনার টিকা নিতে মানুষের ব্যাপক আগ্রহ : এখন যা করণীয়


ডেস্ক 

----------------------

বাংলাদেশে বিশ্ব খ্যাত অক্সফোর্ড উদ্ভাবন কৃত ও বিশ্বের সেরা টিকা উৎপাদন প্রতিষ্ঠান সেরামের করোনা টিকা নিয়ে শত অপপ্রচারকে কবর দিয়ে সাধারণ মানুষ এখন এই টিকা নিতে ব্যাপক  আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।

শত শত মানুষ ভিড় জমিয়েছেন টিকা নিতে।

এ এমতাবস্থায় কি করণীয়গুলো জানাচ্ছেন বাংলা দেশের বিশিষ্ট লেখক চিকিৎসক জাহিদুর রহমান। 

তিনি এক লেখায় বলছেন বিস্তারিত। 

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কেউ ভ্যাকসিন কার্ড ছাড়া টিকা কেন্দ্রে গেলে তাকে নিবন্ধন করতে সহায়তা করা হবে বলেছেন। সেদিনই তাকে টিকা দেয়া হবে, এরকম কিছু বলেননি। কয়েক হাজার মানুষ আপনার আগে নিবন্ধন করে অপেক্ষা করছেন। তাদের পরে আপনি টিকা দেয়ার সুযোগ পাবেন। বর্তমানে যে পরিমাণ কাজের চাপ এবং সুরক্ষা ওয়েব সাইটের যে করুণ অবস্থা তাতে নিবন্ধনও যে আপনি চাইলেই করে দেয়া যাবে সেই নিশ্চয়তাও নাই। তাছাড়া লিমিট ক্রস করে গেলে আপনি পছন্দমত কেন্দ্রে টিকা নিতে পারবেন না। সেক্ষেত্রে একটার পর একটা সেন্টার নির্ধারণ করে দেখেতে হবে সিরিয়াল আছে কিনা। তবে কাজ হোক না না হোক, আপনাকে সহায়তা করার জন্য প্রতিটি কেন্দ্রেই কম্পিউটার এবং ইন্টারনেট সংযোগসহ লোকজন আছেন। এখন আপনার কাজ সম্পন্ন করতে আপনার এবং তাদের, দুই পক্ষেরই নুন্যতম ফিটনেস লাগবে, ইন্টারনেট সংযোগ কাজ করা লাগবে, সুরক্ষা ওয়েবসাইট সচল থাকা লাগবে। ওয়েবসাইট বানিয়েছে তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে গালি দিয়ে লাভ আছে? গালি দেয়ার আগে ঠিক করেন, কে আপনার সেই গালি খাওয়ার যোগ্য।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বর্তমান সক্ষমতা অনুযায়ী প্রতিদিন সাড়ে তিন লাখ মানুষের ভ্যাকসিন দেয়া যাবে। কিন্তু সুরক্ষা ওয়েব সাইটের কি কয়েক লাখ মানুষের একসেস ডিল করার সক্ষমতা আছে? যারা এই বিষয়ে জানেন, তারা উত্তর দিতে পারবেন। তবে ব্যবহারকারী হিসেবে বলব, ভ্যাকসিন দিতে যেয়ে মানুষের যতটুকু দূর্ভোগ হচ্ছে তার ৯৯% নিবন্ধন সংক্রান্ত। দুঃখজনক হলেও সত্যি সুরক্ষা ওয়েবসাইটটি বানাতে যে পরিমাণ দক্ষতা এবং আন্তরিকতা প্রয়োজন ছিল, যেই পরিমাণ আমরা পাইনি। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সারা দেশে এত অল্প সময়ের মধ্যে এক হাজার হাসপাতাল প্রস্তুত করে ফেলল আর আপনারা একটা ওয়েবসাইট ঠিকমত বানাতে পারলেন না! অথচ আপনাদের কারণে কথা শুনতে হচ্ছে সেই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের। ইন্টারনেটের গতি তো ইদানিং মনে হচ্ছে আফ্রিকার দেশগুলোর চাইতেও ধীর গতি। ডিজিটাল বাংলাদেশ শুধু ছবি এবং ব্যানারে না, কাজেও লাগবে। দেশের মানুষ সচেতন হচ্ছে, চাহিদা বাড়ছে, কিছু একটা বুঝিয়ে দেয়ার সুযোগ কমে যাচ্ছে। দয়া করে নিবন্ধন জনিত জটিলতা গুলো দূর করুন। নিবন্ধন প্রক্রিয়ায় সাধারণ জনগণকে সাহায্য করতে প্রতিটি টিকাদান কেন্দ্রে নিবন্ধণ ব্যবস্থাকেও আরো গতিশীল করতে হবে।

আপনার মতামত দিন:


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়