ডাক্তার প্রতিদিন

Published:
2021-01-07 18:18:59 BdST

একজন চিকিৎসক বাবার উপলব্ধি


 

 

অধ্যাপক ডা: দীপক নাগ
বিভাগীয় প্রধান, ভিট্রিও-রেটিনা
জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতাল
________________________

কোথায় চলেছে আমার প্রিয় স্বদেশ ?
“ যে দেশে জ্ঞানের মুল্য দেয়া হয়না, সে দেশে জ্ঞানীলোক জন্মায় না”
অতি পরিচিত এই প্রবাদটি অনেকদিন পূর্বে একবার ফেবু লিখেছিলাম, আজকে আবার লিখছি।
আমরা স্বামী স্ত্রী দুজনেই চক্ষু বিশেষজ্ঞ (রেটিনা রোগ বিশেষজ্ঞ) । আমরা বিশ্বাস করি আমরা নিজ নিজ ক্ষেত্রে সুনামের সাথে আজ অবধি কর্ম করে যাচ্ছি।আমার এক ছেলে ও এক মেয়ে । বলতে গেলে সমসাময়িক সময়ে দুজনেই মেধাবী। আমাদের এবং ওদেরও ইচ্ছা দুজনেই ডাক্তার হবে। শুধু ডাক্তার বললে ভুল হবে, ওদের মা তো বলে ওরা ডাক্তার না, ডাক্তার বৈজ্ঞানিক হবে। আমার ছেলে অনেক কিছু আবিষ্কার করবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। এরে মধ্যে আমার ছেলে একাডেমিক ক্ষেত্রে দেশে ও বিদেশের লেবেল এ ভাল রেজাল্ট ছাড়াও, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের একাধিক বিষয়ে পদকপ্রাপ্ত হয়েছে। একবার এক অলিম্পিয়াডে আন্তর্জাতিক পদক পাওয়ার পর আমাকে তাদের জাতীয় কমিটি ছেলের বাবা হিসাবে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল বিশেষ অতিথি হিসাবে। সেখানে বেশ কয়েকজন বিশ্ববিদ্যালয় এর শিক্ষক, ডীন ও প্রাক্তন ভিসিও ছিলেন। আমি বলেছিলাম, আমার ছেলে যে বিষয়ে জাতীয় পর্যায়ে প্রথম হয়েছে, আপনারা কি পারবেন পরীক্ষা ছাড়া বৃত্তি দিয়ে আপনার প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করতে, উত্তর নিশ্চই আপনাদের জানা, পারবে না।আমি বললাম, ওর এতটুকু অর্জন দেখেই, বিদেশের অনেক নামকরা প্রতিষ্ঠান বৃত্তি দিয়ে ওকে নিয়ে যেতে চায়। এবার বুঝুন দেশে মেধার মুল্য কতটুকু।

এবার অন্য প্রসংগে আসি। ধরুন আমার ছেলে ডাক্তার হলো। কর্ম জীবনে সে এমন ভাবে তথাকতিত বিধি এবং ব্যক্তির ধারা নিয়নত্রীত হবে যে নিজেই কমপ্লেক্সসিটিতে পড়ে যাবে। পেশা আর নেশা গোল পাকিয়ে যাবে বৈকি। যেমনটিতে আমরাও পড়ি মাঝে মাঝে।ওর চেয়ে কম যোগ্যতা সমপন্ন ওরই ক্লাসমেট হবে ওর বস্।বিধির ভয় দেখিয়ে ওকে করবে কন্ট্রোল অন্যতায় পরিনাম তো সবাই জানেন। যে দেশে ভালরা নিয়নথিত হয় তাদের চেয়ে কম যোগ্যতা সম্পন্ন দের দিয়ে, সে দেশে অন্তত মেধার বিকাশ সম্ভব নয়।যারা এ কমপ্লেক্সসিটির উর্ধে উঠতে পারে তারা হয়তো মহামানব। বিদ্যা যদি গর্বের হয়, তবে অধিকতর বিদ্বান ব্যক্তির এধরনের প্রথাতে মনোকষ্ট তো হতেই পারে।

আমার এক বন্ধু আমেরিকা থেকে লিখেছে, সেদেশে প্রতিবৎসর ডাক্তার তৈরী হয় ষোল হাজার আর তাদের প্রয়োজন একুশ হাজার।এই অতিরিক্ত পাঁচ হাজার কি ওরা তৈরী করতে পারে না? পারে, কিন্তু এই পাঁচ হাজার ওরা সারা বিশ্ব থেকে বাচাই করে সেরা দেরকে নিয়ে যায়।
“জননী জন্ম ভুমিসচ সরগাদপি গরিওসি” । যারা আমাদের দেশ থেকে জন্ম ভূমি ও জননী ছেড়ে চলে যায় তাদের মনেও কষ্ট থাকে। আমিও দুই বৎসর পড়াশুনার জন্য লন্ডনে থাকাকালীন দেশের জন্য খারাপ লেগেছে।
আজ আমার সন্তান বিদেশে চলে যাবে পড়াশুনার জন্য, সন্তান না আসলে মেধা চলে যাচ্ছে , মেধা শুন্য হচ্ছে দেশ।একদিন আমাদের দেশকে এরজন্য চরম মুল্য দিতে হবে।

যারা দেশকে এ অবস্থায় নিয়ে যাচ্ছে তাদের হয়তো কিছু হবে না। VIP বিদেশে চলে যাবে দেশের টাকা খরচ করে। কষ্ট হবে দেশের আমজনতার।
আজ কাদঁছি আমরা, একদিন কাদঁবে স্বদেশ।
খুঁজবে হয়তো এর জন্য দায়ী কে?
#

আপনার মতামত দিন:


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়