Dr. Aminul Islam

Published:
2021-01-05 21:23:01 BdST

সিরাম প্রতিমাসে ১০ কোটি ডোজ করোনার ভ্যাকসিন উৎপাদন করবে: পাবে বাংলাদেশ


 

ডেস্ক/ ডা. আব্দুল্লাহ
____________________

বিশ্বশ্রেষ্ঠ ভ্যাকসিন উৎপাদক সিরাম ইনস্টিটিউট এখন প্রতিমাসে ১০ কোটি ডোজ করোনার ভ্যাকসিন উৎপাদন করবে। সিরাম ও ভ্যাকসিন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা জানান , বাংলাদেশের মানুষের করোনার ভ্যাকসিন প্রাপ্তিতে কোনরকম সংশয়ের অবকাশ নেই।

ভ্যাকসিনের জগতে সারা বিশ্বে প্রধানতম উৎপাদক প্রতিষ্ঠান হল সিরাম ইনস্টিটিউট । আমাদের শরীরে ইউনিসেফসহ নানা কল্যাণ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে যেসব জীবনরক্ষার টিকা ও ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে শৈশব থেকে নানা পর্যায়ে; তার বেশীর ভাগ এই সিরাম ইনস্টিটিউট-এর তৈরী।
এই বিশ্বশ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠানটির হর্তাকর্তা হল ভারতীয় পার্সি সম্প্রদায়ের কল্যাণপুরুষরা।
পাকিস্তানের জনক বাবায়ে আজম বা পাকিস্তানের জাতির পিতা মহম্মদ আলী জিন্নাহ এই পার্সি সম্প্রদায়ের কন্যা রত্না বাঈকে বিয়ে করেছিলেন। জিন্নাহর কন্যাও পার্সি সম্প্রদায়ের অতি সম্মানিতা নারী ছিলেন।
বিশ্বস্বাস্থ্য ও কল্যাণ ব্যবসাতে পার্সিদের সুনাম বিশ্বজোড়া।
এদেরই মহতী প্রতিষ্ঠান সিরাম ইনস্টিটিউট তৈরী করছে করোনার ভ্যাকসিন।

বাংলাদেশের প্রখ্যাত জনস্বাস্থ্য সচেতক ডা.

জাহিদুর রহমান তার এক লেখায় জানান ,

ভারত সরকারের প্রাথমিক চাহিদা ১০ কোটি ডোজ আর সিরাম ইনস্টিটিউট প্রতি মাসেই এখন এই পরিমাণ ভ্যাকসিন উৎপাদন করতে সক্ষম। ৫ কোটি ডোজ ইতিমধ্যে বানানো হয়ে গিয়েছে। আর বাংলাদেশের প্রাথমিক চাহিদা ৫০ লাখ ডোজ, চুক্তি অনুযায়ী সেটি অনুমোদনের এক মাসের মধ্যে দেয়ার কথা। গতকাল পর্যন্ত তাও সংশয় ছিল, এখন প্রায় নিশ্চিত হয়ে গেলাম যে আমরা এক দেড় মাসের মধ্যেই ভ্যাকসিন পাচ্ছি। বাংলাদেশ ওষুধ প্রশাসন গতকালই এই ভ্যাকসিন আমদানির অনুমোদন দিয়ে দিয়েছে। আজকের মধ্যে সিরাম ইনস্টিটিউট অগ্রিম টাকা পৌঁছে যাচ্ছে। সিরাম ইনস্টিটিউটের সিইও সাহেব মনে হচ্ছে আগাম টাকা পয়সা উঠানোর জন্যই ফোনে সাক্ষাৎকার দিয়েছিল। আদতে সেটি আমাদের জন্য ভালো হয়েছে। পিছনে আগুন না লাগলে আমরা তো কাজ করতে চাই না। স্বাস্থ্য খাতের গুরুজন অনেকে জানতেনই না এটি কেমন চুক্তি। বাংলাদেশের যে চাহিদা এবং সক্ষমতা তাতে এই মুহূর্তে অন্য কোন ভ্যাকসিনের পিছনে দৌড়ানোর কোন প্রয়োজন নেই। বিপ্লবীরা একখানা স্ট্যাটাস প্রসব করেই আবার শীতনিদ্রায় চলে যাবে। ভ্যাকসিন দেয়ার কাজটা সরকারকেই করতে হবে এবং এখন পর্যন্ত সব ঠিকঠাক আছে। কি করলে কি হতো, সেসব ভেবে আফসোস করতে গেলে ভবিষ্যতেও আর কোন কাজ করা যাবে না। তবে দয়া করে কেউ শুধুমাত্র আওয়ামী লীগ বা ভারতের দালাল ট্যাগ খাওয়ার ভয়ে বিশেষজ্ঞ মত প্রকাশ করতে দ্বিধা করবেন না।

আপনার মতামত দিন:


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়