SAHA ANTAR

Published:
2020-10-20 11:59:11 BdST

কন্যা সন্তান ও নারীর আত্মরক্ষায় যে ১২ পয়েন্ট শেখানো অত্যাবশ্যক


 



ডা. সুলতানা আলগিন

সহযোগী অধ্যাপক, মনোরোগবিদ্যা বিভাগ এবং

কনসালট্যান্ট ,ওসিডি ক্লিনিক ও জেরিয়াট্রিক ক্লিনিক,

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা
_________________________________

১. নারী শিক্ষা অত্যাবশ্যক। কন্যাকে লেখাপড়া শিখান। সে লেখাপড়া শিখে যত বড় হতে পারে, হতে দিন। শিক্ষা , দক্ষতা তার জন্য সবচেয়ে মোক্ষম শক্তি। জীবনের প্রতিটি চ্যালেঞ্জে শিক্ষা পরম অস্ত্র। তার লেখাপড়া কোন অবস্থাতেই রুদ্ধ করবেন না। যত দূর পড়তে পারে , পড়াবেন। যতরকম দক্ষতা অর্জন করতে পারে, সাধ্য অনুযায়ী শেখাবেন।

২. কন্যা শিশু সন্তানকে ভাল স্পর্শ , খারাপ স্পর্শ মানে ব্যাড টাচ: গুড টাচ সম্পর্কে সচেতন করুন।

৩. পরিবারের নারী আত্মীয় যেমন মা, বড় বোন , নানী , দাদী , ফুপু, খালা , জেঠি, মাসি পিসি চাচী নিজ নিজ সন্তান বা সন্তানপ্রতীম নারী শিশুকে নারী স্বাস্থ্য সম্পর্কে সময়োপযোগী শিক্ষা দান অব্যাহত রাখবেন। সবসময় নানা বিষয়াদি সম্পর্কে আপটুডেট রাখবেন। কোন বিষয়ে আলোচনায় দ্বিধা করবেন না।

৪. তার মানসিকতায় নিরাপত্তাহীনতা নয়, নিরাপত্তাবোধের জন্ম দিন।

৫. নারী শিশুকে সাহসী করে গড়ে তুলুন।

৬. নারী শিশুকে নানারকম সমস্যার নামে ভয়ভীতি দেখাবেন না। তার জন্য সমাজ সংসার একটা আতঙ্কের জায়গা, এমন ভীতিপ্রদ মনোজগত তার চারপাশে গড়ে তুলবেন না।

৭. নারী শিশুকে আত্মরক্ষা শেখান। আত্মরক্ষার পদ্ধতি শেখান। বিপদে আপদে সে যেন আত্মরক্ষা করতে পারে, সেই সাহসী শিক্ষা দিন।

৮. জুডো, কারাতে, তায়কোয়ান্ডো, শারীরিক কসরৎ শেখাতে পারেন। তাকে শক্তিশালী করুন মননে। শক্তিশালী করুন শারিরীক শক্তিতে। কোন বিপদে সে যেন সাহস না হারায়। বরং প্রয়োজনে রুখে দাঁড়াতে পারে। ভয় না পায়। ভয়কে জয় করার শিক্ষা দিন।

৯. প্রতিটি নারী বিভিন্ন শারিরীক সুস্থতার বিধি পালন করুন। হাঁটুন। ব্যায়াম করুন। জিমে যেতে পারেন। শত্রুকে মোকাবেলার কসরতগুলো শিখে নিন। সন্তানকে শেখান।

১০. নারীর শারিরীক শক্তি অর্জন, বিপদে আত্মরক্ষা নারীর পরম দরকারি অধিকার। সেই অধিকার বলে বলিয়ান করুন। মনে রাখবেন, বিশ্বের সকল ধর্মের ইতিহাসে , মিথে , ধর্ম কথায় নারীর শক্তিমত্তার জয়গান আছে। দেবী দূর্গা, দেবী কালী ই শুধু শক্তিমতী নন। মহাভারত , রামায়নেও আমরা শক্তিশালী নারীশক্তির দেখা পাই। যুগে যুগে শক্তিশালী নারীর জয়গান হয়েছে।

১১.
ইসলামে র মহান প্রবর্ত্তক হজরত মহম্মদ দ. এর প্রথমা স্ত্রী হজরত খোদেজা একজন অগ্রগন্য অর্থনৈতিক শক্তিশালী নারী ছিলেন। হজরত মহম্মদ দ. এর প্রিয়তমা স্ত্রী হজরত আয়েশা একজন অমিত শক্তিশালী যোদ্ধাও ছিলেন। তিনি স্বয়ং যুদ্ধ করেছেন প্রত্যক্ষ সমরে। তার জামাল (উট) যুদ্ধের ইতিহাস সবার কাছে সম্মানীয়। একই ভাবে ইহুদি ধর্ম , খ্রীস্টান ধর্মের ইতিহাসেও শক্তিমান নারীর জয়গান আছে।
পরবর্তী মানবিক ইতিহাসেও নারী শক্তির জয়গান আছে।

১২.
মনে রাখতে হবে, শক্তিমান নারীকে ডাইনি আখ্যা দিয়ে , নারীকে জলন্ত পুড়িয়েও তাকে দমিয়ে রাখা যায় নি। নারী আপন শক্তিতে তার শক্তির স্বাক্ষর রেখেছেন।
আপনার কন্যা শিশুও তেমনি অমিত শক্তিধর। তার মনোবলকে জাগিয়ে তুলুন। দেখবেন সেও বিশ্ব জয় করবে।

আপনার মতামত দিন:


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়