ডাক্তার প্রতিদিন

Published:
2020-05-24 08:50:55 BdST

মূল্যহীন টাকার পাহাড় এবং একটা আইসিইউ বেড



ডাঃ জোবায়ের আহমেদ

_______________________

আপনার হাজার হাজার কোটি টাকা।
টাকার পাহাড় আপনার ও আপনার পরিবারের।
ধরাকে সরা জ্ঞান করতে পারেন টাকা দিয়ে।
টাকার দাপটে বাঘ মহিষকে এক ঘাটে জল খাইয়েছেন।

আজ আপনি আইসিইউ তে একটা বেড পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা।

আপনার বুকে পাহাড় পরিমান চাপ।।।একটু অক্সিজেন যদি ফুসফুসে যেত, শ্বাসটা আরামে নিতে পারতেন।।বাঁচবেন না বুঝলাম কিন্ত একটু শান্তিতে মরতে চাওয়া কি অন্যায়???

এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হলে কেমন লাগে ভাবুন তো একবার??

এস আলম গ্রুপ দেশের বৃহৎ শিল্প গোষ্ঠী ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান।
যাদের আয়ত্তে দেশের ৭ টি বানিজ্যিক ব্যাংকের অধিকাংশ মালিকানা।।
সিংগাপুরে তাদের দুই হাজার কোটি টাকার ইনভেস্টমেন্ট।।
অনলাইন পোর্টাল দেশেবিদেশে.কম এর নিউজ অনুযায়ী হলমার্কের কেলেংকারী এস আলম গ্রুপের কাছে শিশু।।
এস আলম গ্রুপ দেশের বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ইনল্যান্ড বিল পার্চেস এর ছায়ায় হাতিয়ে নিয়েছিলো ১৭ হাজার কোটি টাকা।।
এত বড় দূর্নীতির তদন্ত দুদক এগিয়ে নিতে পারেনি রহস্যজনক কারণে ও প্রভাবশালী মহলের চাপে।।

সেই এস আলম গ্রুপের পরিচালক ও গ্লোবাল এনআরবি ব্যাংকের ডাইরেক্টর মোর্শেদুল আলম মারা গেলেন গতকাল চট্রগাম জেনারেল হাসপাতালের আইসিইউ তে।।

উনার ছোট ভাই আগে থেকেই আইসিইউ তে ছিলেন।
আর কোন বেড খালি নাই।
উনার শ্বাসকষ্ট বাড়লে ভাইকে নামিয়ে উনাকে ভেন্টিলেটরে রাখা হয়।
যদিও শেষ রক্ষা হয়নি।।

এত টাকা এত ব্যাংক এত শিল্প প্রতিষ্ঠান এত কিছুর পর একটু অক্সিজেন এর অভাব,একটা আইসিইউ বেডের অভাবে চিরবিদায়টা ব্যাথাতুর হয়ে গেলো।।

আমাদের শিল্পপতিরা কখনো আমাদেরকে নিয়ে, সাধারণ মানুষকে নিয়ে ভাবেন না।।
উনারা সামান্য ফোঁড়ার চিকিৎসা করাতেন বামরুমগ্রাদ, মাউন্ট এলিজাবেথে।।

অথচ একটা কেন একশতটা বামরুনগ্রাদ,মাউন্ট এলিজাবেথ করার ক্ষমতা একা এস আলম গ্রুপেরই আছে।।
কিন্ত কোনদিন ভাবেননি একটা আইসিইউ বেড এর জন্য অপেক্ষা ও আক্ষেপ সব কিছু, এই টাকার পাহাড় মূল্যহীন করে দিতে পারে।।

ড. এম আকবর আলী খানের পরার্থপরতার অর্থনীতি বইয়ের একটা প্রবন্ধের নাম " শুয়োরের বাচ্চাদের অর্থনীতি"
সেই প্রবন্ধে তিনি উল্লেখ করেছেন,বৃটিশ ভারতের আসানসোল মহকুমার প্রশাসক মাইকেল ক্যারিটের সাথে এক পাঞ্জাবি ঠিকাদার এর কথোপকথন।
পাঞ্জাবি ঠিকাদার বলেছিলেন,হুজুর এই দেশে তিন ধরণের লোক পাওয়া যায়।।
এক। যারা ঘুষ খায়না
দুই। যারা ঘুষ খায় এবং কাজ করে।
তিন। কিছু শুয়োরের বাচ্চা যারা ঘুষ খাবে কিন্ত কাজ করবে না।।।

ঘুষ দূর্নীতিতে যারা আকুন্ঠ নিমজ্জিত থেকে এই দেশটাকে শোষণ করছেন, তাদের জন্য শিক্ষা নেওয়ার উপাদান আছে এস আলম গ্রুপের মৃত পরিচালকের জীবন থেকে।।

করোনা ভাইরাস এত শত নিষ্ঠুরতম গল্প জন্ম দিচ্ছে,তা থেকে শিক্ষা নিলে আগামীর বাংলাদেশ মানবিক হয়ে উঠবে নিঃসন্দেহে।।
আমি আশাবাদী মানুষ সবসময়।।
মানবিক বাংলাদেশ এর স্বপ্ন দেখছি।।
.........................................

আপনার মতামত দিন:


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়