Ameen Qudir

Published:
2020-01-09 13:54:14 BdST

১১ বছরে ২০১০২ চিকিৎসক এবং ২১৬৯৭ নার্স নিয়োগ


  
ডেস্ক
_________________
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, , বিগত ১১ বছরে ২০ হাজার ১০২ জন নতুন চিকিৎসক এবং ২১ হাজার ৬৯৭ জন নার্স নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি জেলায় কমপক্ষে একটি করে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল স্থাপনের কাজ চলছে।
প্রধানমন্ত্রী হিসেবে চতুর্থবার শপথ নেওয়ার বছর পূর্তি উপলক্ষে ৭ ডিসেম্বর ২০২০ জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে এ কথা বলেন তিনি।এই প্রতিবেদনে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে বক্তব্য প্রকাশ করা হল।


প্রধানমন্ত্রী বলেন, সাড়ে আঠার হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক এবং ইউনিয়ন স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থসেবা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে ।

শেখ হাসিনা বলেন, উপজেলা এবং জেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে শয্যাসংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি সুযোগ সুবিধা বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া হৃদরোগ, কিডনি, ক্যান্সার, নিউরো, চক্ষু, বার্ন, নাক-কান-গলাসহ বিভিন্ন বিশেষায়িত ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল স্থাপন করা হয়েছে। আর অব্যাহত নার্সের চাহিদা মেটাতে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে নার্সিং ইনস্টিটিউট।


সরকারের বিভিন্ন সফলতার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘খাদ্যশস্য, মাছ এবং মাংস উৎপাদনে আমরা স্বয়ং-সম্পূর্ণতা অর্জন করেছি। চাল উৎপাদনে বিশ্বে বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থান ৪র্থ এবং মাছ ও সবজি উৎপাদনে তৃতীয়। কৃষি উপকরণের দাম কয়েক দফা হ্রাস করা হয়েছে। সর্বশেষ গতমাসে ডাই-অ্যামোনিয়াম ফসফেট বা ডিএপি সারের দাম কেজি প্রতি ৯ টাকা কমিয়ে কৃষক পর্যায়ে ১৬ টাকা করা হয়েছে। ভর্তুকি মূল্যে কৃষকদের মধ্যে কৃষি উপকরণ ও যন্ত্রপাতি বিতরণ করা হচ্ছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে যখন সরকার পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করি, তখন দেশে দারিদ্র্যের হার ছিল প্রায় ৫৫ ভাগ। ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে আমরা দারিদ্র্য বিমোচনে বেশ কিছু যুগান্তকারী উদ্যোগ গ্রহণ করি। দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য বিভিন্ন ভাতা চালু, তাঁদের জন্য বিশেষ কর্মসূচি—যেমন আশ্রয়ণ প্রকল্প, ঘরে ফেরা, কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপনের মতো কর্মসূচি দারিদ্র্য বিমোচন এবং প্রান্তিক মানুষের জীবনমান উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা রাখে।’

 

আপনার মতামত দিন:


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়