Ameen Qudir

Published:
2019-10-15 09:57:00 BdST

যেভাবে , যে কারণে নোবেল পুরস্কার পেলেন অভিজিৎ ব্যানার্জী, ডুফলো ও ক্রেমার


 

ডেস্ক
____________________


আবারও বিশ্বসভায় মাত করে দিয়েছে বাঙালি প্রতিভা। আবারও বিশ্ব জয় এক মহান বাঙালির। নোবেল পুরস্কার পেলেন তিনি ও তার স্ত্রী এবং সহকর্মী । তিন জনেই বিশ্বজয়ী অর্থনীতিবিদ। কিন্তু কিভাবে , কি কারণে তারা বিশ্ব জয় করলেন, তা নিয়ে কৌতুহল সকলের। এ বিষয়ে এক অনলাইন খোলা লেখায় বিস্তারিত আলোকপাত করেছেন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের প্রাক্তন শিক্ষার্থী ডা. মানিক চন্দ্র দাস। তার লেখাটি পাঠকদের জন্য প্রকাশ করা হল।
এবারের অর্থনীতিতে নোবেল পেলেন সন্মিলিত ভাবে তিনজন মানুষ। অভিজিৎ ব্যানার্জী, ঈষ্টার ডুফলো, মাইকেল ক্রেমার।

এই তিনজনের কর্মকান্ড এবং গবেষণা ছিলো বৈশ্বিক দারিদ্র্য নিরসন নিয়ে। গোটা বিশ্বের গরীবি হালহকিকত, খুব বিশাল একটা ব্যাপার। অকল্পনীয় রকমের বিশাল, ব্যাপ্তি। মজার ব্যাপার হচ্ছে বিশাল ব্যাপারটিকে খুব ছোট ছোট ভাগে ভাগ করে নিয়ে, মূল সমস্যার খুব কাছাকাছি থেকে এঁরা তিনজন সমস্যা সমাধানের রাস্তা খোঁজার চেষ্টা করেছেন।

এইযে সমস্যার একদম কাছাকাছি চলে যাওয়া, এখানে একটা চমৎকার বিষয় আছে। যেখানে সমস্যা বা যারা সমস্যায় ভুগছেন তাদের কাছ থেকেও বা তাদের চিন্তাভাবনা থেকেও সমস্যা সমাধানের একটা উপায় বের হয়ে আসে। আবার কখনো কখনো কাছাকাছি গেলে সমস্যাটার আসল চেহারা দেখতে পাওয়া যায় যেটা আসলে তাত্বিকভাবে ভাবাও অনেক ক্ষেত্রে সম্ভব না।

মাইকেল ক্রেমার ১৯৯০ এর দিকে পশ্চিম কেনিয়াতে স্কুলের শিশুদের পড়াশোনার মান উন্নয়নের জন্যে খুব কাছে থেকে অতি সামান্য কিছু বিষয় বদলে ফেলে হতাশার ছবিটা একেবারে বদলে দিয়েছিলেন। গোটা পশ্চিম কেনিয়ার শিক্ষা ব্য়বস্থা আমূল বদলে গেলো। পরিবর্তন গুলো এতই সামান্য ছিলো যে আমরা আমজনতা সেগুলোকে আমলেই আনবো না সম্ভবত।

আবার অভিজিৎ ব্যানার্জী আর ঈষ্টার ডুফলো মিলে ভারতে দারিদ্রতা নিরসনের জন্যে কিছু কাজ করলেন। এর মাঝে বাচ্চাদের ইমিউনাইজেশন থেকে শুরু করে শিশুশিক্ষার ব্যাপার ও ছিলো। এই দুজনেও সেই গরীবির মতো খুব বিশাল এবং প্রায় অদৃশ্য একটি সমস্যাকে ছোট ছোট টুকরো টুকরো করে ভাগ করে প্রতিটি সমস্যা নিয়ে রেনডোমাইজড কন্ট্রোল ট্রায়াল করে করে খুব সাধারন কিন্তু প্রচন্ড কার্যকর কিছু সিদ্ধান্তে পৌঁছে গেলেন।

তাঁদের গবেষণায় এখন পর্যন্ত শুধু ভারতে ৫ মিলিয়ন শিশু লাভবান হয়েছে। কি অসাধারন একটা ব্যাপার! রেনডোমাইজড কন্ট্রোল ট্রায়াল শুধু স্বাস্থ্য ক্ষেত্রেই ব্যবহার হয় ব্যাপারটা যে এমন না তা ডুফলের বক্তৃতায় জেনেছি। কি অসাধারন একটা কনসেপ্ট!

গত ১৫-২০ দিন ধরে একটা বিশেষ কারনে ইকোনোমিষ্ট দের টেড-টক শুনছি। বিভিন্ন গবেষকের কথাবার্তা শুনছি। ঈষ্টার ডুফলোর টেড-টক শুনেছি দিন দশেকের মতো হবে। এর মাঝে মানুষটা নোবেলই পেয়ে যাবেন বুঝিনি। তিন সহকর্মী মিলে একটা নোবেল ভাগাভাগি করে নিচ্ছেন, আমার কাছে মনে হয় দৃশ্যটা সুন্দর হবার কথা। তার উপর ঈষ্টার ডুফলো আর অভিজিৎ ব্যানার্জী একজন আরেকজনের বেটার হাফ। সুন্দর না?

এই তিনজনের কাছ থেকে একসাথে অটোগ্রাফ নিতে পারলে দারুন হতো!

আপনার মতামত দিন:


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়