Ameen Qudir

Published:
2019-07-01 21:02:18 BdST

মাশরাফি-কান্ড নিয়ে ফেসবুকে মন্তব্যের জেরে চিকিৎসক বদলি: তুমুল সমালোচনা বিশ্ব মিডিয়ায়


 


ছবি: সংগ্রহ

ডেস্ক
___________________

  বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার কথিত হাসপাতাল অভিযান নিয়ে ফেসবুকে মন্তব্য করেছিলেন বাংলাদেশের একজন শীর্ষ চিকিৎসক ও সুবিদিত বিশেষজ্ঞ ডা. রেজাউল করিম। সে জন্য তাকে শাস্তিমূলক বদলি করা হয় চিকিৎসা-পরিবেশহীন হাসপাতালে।সেখানে ক্যান্সার চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা নেই। তার অভাবে বৃহত্তর চট্টগ্রাম সহ দক্ষিণ পূর্ব বাংলাদেশের লাখ লাখ রোগী ক্ষতিগ্রস্থ হবেন। এই ঘটনা বিশ্ব মিডিয়া গুরুত্বসহকারে প্রকাশ করেছে।


আলোচিত ওই বদলির ঘটনা নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি ও ব্রিটেনের প্রভাবশালী সংবাদ মাধ্যম গার্ডিয়ান, ভারতের দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ও সৌদি আরবের শীর্ষস্থানীয় সংবাদ মাধ্যম আরব নিউজসহ বিশ্বের বিভিন্ন গণমাধ্যম।

এএফপির খবরে উল্লেখ করা হয়, বদলি হওয়া চিকিৎসক রেজাউল করিম একজন শিশু ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ। ফেসবুকে মাশরাফির সমালোচনার কয়েক সপ্তাহ পরে তাকে রাঙামাটিতে বদলি করা হয়।

বার্তা সংস্থা এএফপি ওই চিকিৎসককে ফোন দিয়ে তার বক্তব্যও নেয়। এএফপিকে দেয়া সাক্ষাতকারে ডা. রেজাউল করিম বলেন, আমাকে রাঙামাটি মেডিকেল কলেজে বদলি করা হয়েছে। কিন্তু সেখানে ক্যান্সার চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা নেই। এটা আমার কাছে এক ধরনের অস্বাভাবিক প্রক্রিয়া বলে মনে হয়েছে।

বদলির আদেশে সই করা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোহসিন উদ্দিন বলেন, এটা কেবল একটি প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত। এটাকে শাস্তি বলে তিনি মনে করেন না।

মাশরাফিকে বাংলাদেশের জনপ্রিয় ক্রীড়াব্যক্তিত্ব ও জাতীয় সংসদের সদস্য উল্লেখ করা হয় প্রতিবেদনে। ওইদিন মাশরাফি বিন মুর্তজা নিজ আসনের একটি সরকারি হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে বেশ কয়েকজন চিকিৎসকে অনুপস্থিত দেখতে পেয়ে ক্ষুব্ধ হন। পরবর্তী সময়ে এ নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে বিতর্কের ঝড় ওঠে। তিনি চিকিৎসক নিয়ে মন্তব্য করেন , বলেন, ডাক্তার, আপনাকে নিয়ে এখন কি করতাম।

সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে টেলিফোনে এক জ্যেষ্ঠ চিকিৎসককে ফোনে তিরস্কার দেখা গেছে নড়াইল এক্সপ্রেস নামে খ্যাত মাশরাফিকে।

রেজাউল করিম বলেন, ফেসবুকে মাশরাফিকে সমালোচনা করে পোস্ট দেয়ার পর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নোটিশ পাওয়া ছয় চিকিৎসকের মধ্যে তিনি একজন। দুই মাস পরেই তাকে দুর্গম রাঙামাটিতে বদলি করা হয়েছে।

চট্টগ্রামের যে ক্যান্সার হাসপাতাল থেকে তাকে হঠাৎ বদলির আদেশ হয়, সেটিতে শতাধিক রোগীর চিকিৎসা দিচ্ছিলেন তিনি। তার বদলি স্থানীয় গণমাধ্যমেও ফলাও করে প্রচার করা হয়েছে।

অবসরের পর খেলোয়াড়দের রাজনীতিতে যোগ দেয়া দক্ষিণ এশিয়ার পশ্চাদপদ দেশগুলোতে অস্বাভাবিক কোনো ঘটনা না। কিন্তু মাশরাফি এখনো খেলছেন। বাংলাদেশের ওয়ানডে ক্রিকেটের অধিনায়ক তিনি। বিশ্বকাপের পরেও দলকে নেতৃত্ব দিতে পারেন এই পেসার।

আপনার মতামত দিন:


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়