Dr. Aminul Islam

Published:
2021-09-18 05:06:11 BdST

মর্গ থেকে ক্রাইম রিপোর্ট আজান নিয়ে কুমিল্লায় মসজিদে এক মুসল্লিকে হত্যা করলো প্রতিপক্ষ মুসল্লীরা, রূপগঞ্জে মসজিদে লাশ


 

সংবাদ দাতা
_________________

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় জুমার নামাজে আজান দেওয়া নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষ মুসল্লীরা এক নামাজীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে । এ ঘটনায় আরও ১১ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার বেলা সোয়া একটায় কুড়াখাল বাইতুন নুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত ব্যক্তির নাম হানিফ খান (৪৩)। তিনি মুরাদনগর উপজেলার কুড়াখাল গ্রামের মৃত আবদু খানের ছেলে। এ ঘটনায় আটক হওয়া ব্যক্তির নাম শাহীন ভুইয়া।

 

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, কুড়াখাল বাইতুন নুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদটি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই ইমামের সামনে সানি আজান দেওয়া হয়। গত শুক্রবার মসজিদের দরজায় সানি আজান দেওয়া নিয়ে দুই দল মুসল্লীর মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। দুই দলই শরিয়ার ফতোয়া অনুযায়ী নিজ নিজ অবস্থানে অটল ছিলেন। শুক্রবারও দরজায় সানি আজান দিতে গেলে প্রতিবাদ করেন মসজিদ কমিটির সহসভাপতি হাবিব খান। একই সঙ্গে তিনি মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবদুল মালেকের কাছে এ বিষয়ে জানতে চান। এই সময় অন্য মতের একদল মুসল্লী ছুরি, রামদা, লোহার রড, টেঁটা, লাঠিসোঁটা নিয়ে প্রতিপক্ষ মুসল্লিদের ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়। এতে আহত হন ১১ জন।

 

প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ব্যক্তিদের মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিত্সক হানিফ খানকে (৪৩) মৃত ঘোষণা করেন। তিনি ওই গ্রামের আবদু খানের ছেলে। গুরুতর আহত ইমন খান (২৫) ও খায়ের সরকারকে (৪০) উন্নত চিকিত্সার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

নিহত হানিফ খান মা, স্ত্রী ও চার শিশুসন্তান রেখে গেছেন। তাঁর স্ত্রী আফরোজা বেগম বলেন, ‘আমি স্বামী হত্যার বিচার চাই।’

বাঙ্গরা বাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, জুমার নামাজের সময় সানি আজান মসজিদের ভেতরে ও বাইরে দেওয়া নিয়ে এ ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় জড়িত শাহীন ভুইয়া নামের একজনকে আটক করা হয়েছে।

ওদিকে রূপগঞ্জ উপজেলার কাঞ্চন পৌরসভার চৌধুরীপাড়া বায়তুল আলা কবরস্থান জামে মসজিদের বারান্দায় থেকে গতকাল দুপুরে এক যুবকের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তার নাম শরিফ। তিনি উপজেলার কাঞ্চন পৌরসভার বিরাব খালপাড় এলাকার মৃত আবদুল হালিমের ছেলে।

ভোলাব ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) আমিনুল ইসলাম জানান, শুক্রবার সকালে চৌধুরীপাড়া বায়তুল আলা জামে মসজিদের বারান্দায় মসজিদে নামাজ পড়তে আসা মুসুল্লিরা এক যুবকের রক্তাক্ত লাশ দেখে পুলিশে খবর দেন। লাশের মাথায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। লাশের পাশে পড়েছিল একটি রক্তমাখা ছুরি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, গত বৃহস্পতিবার রাতের কোনো একসময় দুর্বৃত্তরা শরীফকে মাথায় ছুরিকাঘাত করে হত্যা করেছে।

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়