Ameen Qudir

Published:
2020-03-21 20:40:50 BdST

হাত ধোয়া: কখন ধোবো,কিভাবে ধোবো? কার্যকর পদ্ধতি বাতলে দিলেন এক্সপার্ট ডাক্তার


ডাঃ অসিত বর্দ্ধন,কানাডা থেকে
___________________________

হাত ধোয়ার কথকতা
হাত ধুয়ে নিন, করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকুন, নামের অনেক স্লোগান এখন জনপ্রিয় । সবার বাড়িতেই মার্শাল’ল। আজ হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরতেই চিফ মার্শাল ল এডমিনিস্ট্রেটর হুকুম জারি করেছেন, যে লন্ড্রি ঘরের মধ্যে কাপড় ছেড়ে, হাত, মুখ ভাল করে সাবান দিয়ে ধুয়ে তবেই ঘরে ঢোকা যাবে। নিজের জন্য, পরিবারের সবার জন্য এই নিয়মের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করা হয়নি। না হলে হয়ত বিদ্রোহী আম জনতার মত“ আমি বিদ্রোহী বীর ...” বলে একটা হুঙ্কার দেওয়া যেত!

এই যে হাত ধোয়া, এটা কখন ধোবো , কিভাবে ধোবো?

কখন হাত ধুতে হবে
১। বাড়ির বাইরে থেকে ফিরলে ( সে যে কোন জায়গা থেকেই হোক না কেন, যত অল্প সময় হোক না কেন। )।
২। বাথরুম, কিম্বা টয়লেট থেকে বের হওয়ার আগে, সেটা নিজের হোক কিম্বা পাবলিকের, প্রত্যেকবার ধুতে হবে। সাবান দিয়ে।
৩। যে কারো সাথে হাত মেলানো বা কোলাকুলি করার পরে ( যদি এখনো কেউ এটার চর্চা করে থাকেন)
৪। খাবার রান্নার আগে, পরে, ও রান্না চলাকালীন সময়ে, বিশেষত কাঁচা খাবারে হাত দিলে।
৫। খাবার খাওয়া শুরুর আগে।শেষেও ধুতে হবে, যদি না ...
৬। অসুস্থ কাউকে সেবা দিলে , বিশেষত যারা ডায়ারিয়াতে আক্রান্ত, কিম্বা কোন কারণে বমি করছেন।
৭। শরীরে কোন কাটা অংশে অথবা ক্ষত স্থানে হাত দিলে, চিকিৎসা দিলে
৮। শিশুর ডায়াপার বদলালে, কিম্বা পায়খানার পরে তাকে পরিষ্কার করে দিলে।
৯। নাক ঝাড়লে, হাতে কাশি দিলে , কিম্বা হাঁচি দিলে।
১০ পোষা প্রাণীর গায়ে হাত দিলে, বা পোষা প্রাণী পরিষ্কার করলে
১১। পোষা প্রাণীর খাবারে হাত দিলে
১২। যে কোনো ময়লা বা আবর্জনাতে স্পর্শ লাগলে
১২। নিজের বা অপরের জুতোয় হাত দিলে।
এবং
যে কোন পাবলিক কম্পিউটারে হাত দিলে, নিজের নয় এমন যে কোন টেবিল, বা যে কোন বস্তুর উপরে স্পর্শ লাগলে, অন্য কারো ফোনে হাত দিলে, টাকা কিম্বা কয়েনে হাত দিলে, দরজার হাতল স্পর্শ করলে।

কতক্ষণ ধোবেন?
কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড। সময়টা খুব বেশি মনে হচ্ছে? আপনার খুব কাছের মানুষের জন্যে “ হ্যাপি বার্থডে টু ইউ “ কলিটি দুইবার আওড়ান । মনে প্রশান্তি আসবে, মুখে হাসি ফুটবে, হাত ধোয়ার সময়টুকুও আনন্দে পার হবে।

স্যানিটাইযার না সাবান?
সাবান ও পানি দিয়ে হাত ধোয়া সব চাইতে ভাল। এর কোন কিন্তু নেই।
যে সমস্ত স্যনিটাইযারে ৬০% এলকোহল আছে, ( এদের এলকোহল বেসড স্যানিটাইযার বলা হয়) সেগুলো জীবাণু ও ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা করে। স্যানিটাইযার তখন ব্যবহার করবেন , যখন হাতের কাছে সাবান ও পানি নেই। হাতের কাছে পকেট সাইজ স্যানিটাইযার রাখুন, গনপরিবহনে উঠলে, বা পাবলিক প্লেসে কোথাও বসলে, রেস্তোরায়, চার্চে , মসজিদে মন্দিরে, জমায়েত হয় এমন যে কোন পরিস্থিতে একবার নিজের হাত জীবাণুমুক্ত করে নিন। একটা বড় ফোঁটা নিয়ে হাতের দুই পিঠ , আঙ্গুলের ফাঁকে, এবং আঙ্গুলের ডগা পর্যন্ত ঘষে নিন।

যেভাবে হাত ধোবেন?
হাত ভিজানোঃ ট্যাপের নীচে হাত দিয়ে পরিষ্কার পানিতে ভাল করে হাত ভিজিয়ে নিন। কখনো বেসিনে বা অন্য পাত্রে জমানো পানিতে হাত ধোবেন না, অন্য কেউ ব্যবহার করলে তো অবশ্যই নয়।তবে যদি আপনার সহ মরণের আকাঙ্ক্ষা থাকে তবে এঁদো পুকুরেও হাত ধুতে পারেন। ।

ফেনা তুলুন ঃ অন্যের সাবান মনে করে ( নিজের মনে করলে কম ব্যবহার হতে পারে) যথেষ্ট পরিমাণ সাবান নিয়ে ডলে ফেনা তুলুন।

ঘষুন ঃ হাতের তালু, উলটা পিঠ, আঙ্গুলের ডগা ভাল করে ঘষুন।

ধুয়ে ফেলুন ঃ ট্যাপের পানির নীচে হাত নিয়ে আলতো করে হাত ধুয়ে ফেলুন।

শুকিয়ে নিন ঃ হাত মুছে শুকিয়ে ফেলুন। পেপার টাওয়েল ব্যবহার সুবিধাজনক কারণ এতে জীবাণু সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকে না। ( যারা বাংলাদেশের হোটেল/ রেস্তোরাঁয় খেতে যেয়ে, হাত ধুয়ে ওখানকার তোয়ালেতে হাত মুছেছেন, তারা জানেন সেগুলো কি পরিমাণ ধবধবে পরিষ্কার! অন্যান্য পাবলিক প্লেসে তোয়ালে যতই সুন্দর লাগুক না কেন জীবাণু ছড়ানোতে তারা একই প্রজাতির! যদি এয়ার ড্রায়ার থাকে, সেটাও যে কোন তোয়ালের চাইতে ভাল।
ভাল কথা, হাত তো শুকিয়েছেন, এখন পানির ট্যাপ বন্ধ হবে কিভাবে? যাদের আরও “দুটো হাত” আছে তাদের কথা থাক। আমাদের মত সাধারণ মানুষ যাদের সাড়া জীবন দুটো হাত থেকেছে, কখনো কখনো অন্যের “হাত” হতে হয়েছে, তাদের উচিৎ হবে পেপার দিয়ে ট্যাপ বন্ধ করা।

ঝুঁকি এড়াবেন যেভাবে ঃ দরজার হাতল, কমোডের ফ্লাশের হাতল, পানির ট্যাপ এড়িয়ে চলুন হাত ধোয়ার পরে। জামার হাতা, পেপার টাওয়েল, কনুই, স্কার্ফ কিম্বা ওড়না , কিম্বা ডিসপোসেবল গ্লাভস ( পুরনো দিনের দস্তানা রাজসিক হলেও, জীবাণু ছড়াবে বেশি , ব্যবহার আপনার আত্মহত্যার উদগ্র বাসনার সমানুপাতিক ) ব্যবহার করুন।

সবশেষে ঃ হ্যান্ড স্যানিটাইযার ব্যবহার করবেন ভালো কথা, কিন্তু ওটা শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন। কেউ খেয়ে ফেললে মাতাল হবে ভাবছেন? তা নয়। শিশুর জীবন ঝুঁকিতে পড়তে পারে। হতে পারে মৃত্যুও!

যারা ভাবছেন এগুলো সব আমি নিজে লিখেছি ঃ তারা ঠিক। অভ্রতে লিখেছি
যারা ভাবছেন আমি কপি করেছি ঃ ভুল, কারণ অরিজিনাল লেখাটা ইংরেজিতে ছিল। কপি পেস্ট মারতে পারিনি। “চোথা“ ছিল না।
যারা ভাবছেন আমি ইংরেজি ভাল জানি ঃ ভুল। আসল ইংরেজি পড়লে বুঝতে পারবেন কোথায় কি ভুল আছে।
কষ্ট করে ইংরেজিটা পড়তে চান ঃ মন খারাপ হলো। ঠিক আছে। নীচে লিঙ্ক।
https://familydoctor.org/handwashing-and-covid-19 

__________________________

 ডাঃ অসিত বর্দ্ধন,কানাডা থেকে

 

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়