Ameen Qudir

Published:
2020-01-16 17:24:51 BdST

প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েও দৌড় শেষে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ল শিক্ষার্থী


একটি স্কুলে দৌড় প্রতিযোগিতার ফাইল ছবি। সংশ্লিষ্ট স্কুলের ছবি নয়।

শৈলকূপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ও প্রতিনিধি:
___________________

দৌড় প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েও পুরস্কার নেওয়া হলো না ছোট্ট মেরাজ হোসেন রাফির। চামচে মারবেল রেখে ১০০ মিটার দৌড় প্রতিযোগিতা শেষে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে সে। ১৫ জানুয়ারি ২০২০ বিকেলে মর্মান্তিক এ ঘটনা ঘটেছে ঝিনাইদহ জেলার শৈলকূপার উমেদপুর স্কুল মাঠে। রাফি  শীতকালীন আন্তঃস্কুল প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিল। দৌড় পারদর্শী এই শিশুটিকে হারিয়ে শোক স্তব্ধ তার পরিবার।

শৈলকূপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক তৌকির আহম্মেদ বলেন, শিশু রাফিকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসেন শিক্ষক ও স্বজনরা। শৈলকূপা থানার ওসি বজলুর রহমান বলেন, স্কুলে ক্রীড়া প্রতিযোগিতাকালে রাফি নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।
রাফি উপজেলার সষ্ঠিবর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র ও পার্বতীপুর গ্রামের মহমম্মদ ফকির  ছেলে। খেলার সময় শিশুটি অসুস্থ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই শৈলকূপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়।তার আগেই মাঠেই তার মৃত্যু ঘটে।

শিশুটির মৃত্যু শারিররীক কি উপসর্গের জন্য হল, তা বিস্তারিত জানা যায় নি। তবে কয়েকজন অভিভভাবক মুখে চামচ প্রতিযোগিতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তবে অন্যদের বক্তব্য, চামচ মুখে দৌড় দীর্ঘদিন ধরে স্কুল স্পোর্টসএ হয়ে আসছে। তেমন কোন দুর্ঘটনা হয়েছে , শোনা যায় নি।

সষ্ঠিবর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক উজ্জ্বল হোসেন জানান, উমেদপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় খেলার মাঠে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শুরু হয় সকালে। বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে মুখে চামচে মারবেল রেখে ১০০ মিটার ভারসাম্য দৌড় প্রতিযোগিতা শুরু হয়। তার আগে তিনি রাফিকে বলেছিলেন , সাবধানে আস্তে আস্তে যাবে। সে উত্তরে বলেছিল, স্যার আপনি চিন্তা করবেন না। দৌড় শেষে সে চামচ গালে রেখেই ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে। এরপর তাকে অচেতন অবস্থায় শৈলকূপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। সে দৌড় প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেছিল বলে জানান তিনি।

 

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়