Ameen Qudir

Published:
2018-08-04 10:06:11 BdST

স্কুলছাত্রদের সড়ক নিরাপদ আন্দোলনে পর্দার আড়ালের মতলববাজ শকুনরা ঢুকে পড়ছে


ছবির লোকটি আন্দোলনকারীদের মাঝে ঢুকে জিগাতলা বাস স্ট্যাণ্ডে গাড়ি ভাঙচুর করছিলো।
পরে তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। ছবি সৌজন্য লেখক।

 


ডা.আতিকুজ্জামান ফিলিপ
_________________________________

প্রিয় অনুজ,
তোমাদেরকে ন্যূনতম দুটি বিষয়ে লক্ষ্য রাখার অনুরোধ করছি-

০১.
তোমাদের আন্দোলন ছিনিয়ে নিতে শকুনেরা মুখিয়ে আছে। খেয়াল রেখো। ছবিটা দেখো। আন্দোলন যত দীর্ঘায়িত করবে এরকম অনুপ্রবেশকারীর আশঙ্কা ততই বাড়বে।

০২.
তোমাদের জানতে হবে কোথায় তোমাদের থামতে হবে।

তোমাদের প্রতি সাধারন মানুষসহ সরকারের উর্ধ্বতন মহলের সহানুভূতি ও ভালোবাসা এখনো রয়েছে।
আন্দোলন দীর্ঘায়িত হলে সাধারন মানুষও বিগড়ে যাবে, আজ যে মানুষটি তোমাকে প্রশংসা করছে সেই মানুষটিই দু'দিন পর তোমাকে গালমন্দ করবে!

প্রখ্যাত এবং বুদ্ধিমান খেলোয়াড়রা তাদের ফর্ম থাকতেই অবসর নেন।
বেশী বয়স পর্যন্ত খেলে ফর্ম হারিয়ে যারা অবসর নেয় তাদেরকে কেউ মনে রাখে না।

 

ছবির লোকটি আন্দোলনকারীদের মাঝে ঢুকে জিগাতলা বাস স্ট্যাণ্ডে গাড়ি ভাঙচুর করছিলো।
পরে তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।

একজন অনুপ্রবেশকারী চিহ্নিত হয়েছে তাই তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।
পর্দার আড়ালে এরকম আরো অসংখ্য অনুপ্রবেশকারী শকুনের মতো তোমাদের মাঝে ঢুকতে মুখিয়ে আছে!


খ.
_______________


বাচ্চারা, তোমরা দিনে রাস্তায় গাড়ির লাইসেন্স চেক করছো!
ভালো লাগছে।

রাতে বাসায় ফিরে বাবার ইনকামের লাইসেন্সটাও চেক করো!
আরো ভালো লাগবে।
সমাজে আরো দ্রুত পরিবর্তন আসবে!


বাচ্চারা, তোমরা রাস্তায় মন্ত্রীকেও 'রং ওইয়ে' থেকে 'রাইট ওইয়ে'তে এনেছো!
ভালো লেগেছে।

তোমরা যখন ক্লাসে ফিরবে তোমাদের টিচারদেরকেও বাধ্য করো তারা যেন তোমাদের সব পড়া ক্লাসেই পড়িয়ে দেন!
তারা যেন প্রাইভেট টিউশনির নামে শিক্ষা বানিজ্য না করেন।
আমাদের আরো ভালো লাগবে।
সমাজে আরো দ্রুত পরিবর্তন আসবে।


বাচ্চারা, তোমরা ড্রাইভিঙ লাইসেন্স সাথে না থাকায় পুলিশের গাড়িও আটকে দিয়েছো।
ভালো লেগেছে।

তোমরা যখন আন্দোলন থেকে ফিরবে তখন যেন নিজেরাও ট্রাফিক আইন মেনে চলো।
রাস্তায় রাস্তায় বেআইনী বাইক রেস থেকে নিজেদেরকে দূরে রেখো।
আরো ভালে লাগবে।
সমাজে আরো দ্রুত পরিবর্তন আসবে।


বাচ্চারা, তোমরা বিচারপতির গাড়িকেও আটকে দিয়েছো!
তোমরা দেখিয়ে দিয়েছো আইন না মানার সংস্কৃতি দেশের কতো গভীরে প্রোথিত!
প্রবল প্রচণ্ড ঝাকি লেগেছে!

তোমরা বাসায় ফিরে পরিবারের সবাইকে আইন মানতে বাধ্য করো!
আরো বড় ঝাকি লাগবে!
বিন্দু বিন্দু জলে যেমন সিন্দু গড়ে উঠে তেমনি একটি একটি পরিবার করে দেশের প্রতিটি পরিবারে আইন মানার সংস্কৃতি গড়ে উঠবে।
সমাজে আরো দ্রুত পরিবর্তন আসবে!


বাচ্চারা, আমরা দেখেছি ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকায় তোমরা বিজিবি'র পিকআপ ভ্যান কিংবা সেনাসদস্যের বাইকও ছাড় দাওনি!
সর্বোচ্চ দুঃসাহসের পরিচয় দিয়েছো তোমরা!
ভালো লেগেছে।
তোমাদের সাহসে আস্থা রাখলাম।

তোমরা আন্দোলন থেকে ফিরে গিয়ে সামনের দিনগুলোতে নিজের পরিবার ও সমাজের অনাচারগুলো রুখতে এমনি দুঃসাহস নিয়ে এগিয়ে এসো।
আরো ভালো লাগবে।
সমাজে আরো দ্রুত পরিবর্তন আসবে।


বাচ্চারা, তোমরা ড্রাইভিঙ লাইসেন্স না থাকায় সাংবাদিককেও আটকে দিয়েছো।
তোমরা দেখিয়েছো যারা সমাজ শুধরানোর নামে সকলের ছিদ্র খুঁজে বেড়ায় তাদের পেছনেই রয়েছে অনেক বড় বড় ছিদ্র!
ভালো লেগেছে।

তোমরা আন্দোলন থেকে ফিরে গিয়ে ব্যক্তিজীবনে অন্যের ছিদ্র খুঁজার আগে নিজের ছিদ্র খুঁজতে সকলকে বাধ্য করো।
আরো ভালো লাগবে।
সমাজে আরো দ্রুত পরিবর্তন আসবে।


শুধু ভালো লাগেনি ঘৃণ্য অশ্লীলতায় আঁকা তোমাদের কিছু পোস্টার স্লোগান।

চক্রান্তকারীরা তোমাদের কিছু পোস্টার এডিট করে অশ্লীলতা ঢুকিয়ে স্যোসাল মিডিয়ায় ছেড়ে দিয়েছে -এটা যেমন সত্যি,
ঠিক একইভাবে কিছু অশ্লীল পোস্টার স্লোগান তোমরা নিজেরাই করেছো -আমি নিজে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে দেখেছি!

আবার তোমাদের হৃদয় ছোয়া প্রতিবাদি স্লোগানগুলো ছেলে-বুড়ো আমাদের সকলের মন কেড়েছে, স্লোগানগুলো সময়ের মাপকাঠিতে কালোত্তীর্ণ হয়ে থাকবে নিঃসন্দেহে।

তোমরা যেমন সমাজ ও রাষ্ট্রের খাঁজে খাঁজে বহুদিন থেকে জমে থাকা বিভিন্ন গোমড় ফাঁস করে দিয়েছো ঠিক একইভাবে তোমাদের এই অশ্লীল স্লোগানগুলোও তোমাদের উন্নাসিক মানসিকতার গোমড় ফাঁস করে দিয়েছে!

তোমরা যেমন সমাজ ও রাষ্ট্রের ফাঁক হয়ে যাওয়া গোমড়গুলোর সংস্কার চাও আমরা যারা তোমাদের অগ্রজ আমরাও তোমাদের উন্নাসিক মানসিকতার সংস্কার চাই।

তোমাদের নিজেদের পরিবর্তন না হলে সমাজ ও রাষ্ট্রের যে পরিবর্তন তোমরা চাচ্ছো তা কখনোই লাগসই ও টেকসই হবেনা।
কারন তোমরাই তো আগামীতে সমাজ ও রাষ্ট্রের হাল ধরবে!!

__________________________________

ভিডিও লিঙ্ক

https://www.facebook.com/Stop.Conspiracy/videos/2043887862334292/?t=73

গাজীপুরের ছাত্রজনতা জঙ্গি আবদুল গাফফারকে পুলিশে সোপর্দ করেছে। গাফফার স্কুল অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র দাবি করে শিক্ষার্থীদের সাথে মিশে গাড়ি ভাংচুরের চেষ্টা চালায়। উপস্থিত ছাত্র জনতার সন্দেহ হলে ধাওয়া করে পুলিশে সোপর্দ করে।

______________________________

ডা. আতিকুজ্জামান ফিলিপ
সহ-তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ;স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ
যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক;চিকিৎসক পরিষদ, বিএসএমএমইউ।

সাবেক সাধারণ সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ শাখা ,দিনাজপুর।

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়