Ameen Qudir

Published:
2018-08-01 10:15:36 BdST

এ দেশে প্রানীর চিকিৎসা নিশ্চিত করা অনেক বড় একটা চ্যালেঞ্জ


 


সামিয়া কালাম
___________________________

ফেইসবুকে অনেক গুলো এনিম্যাল লাভার গ্রুপের সাথে আছি। ছোট বেলা থেকেই পশু পাখির প্রতি মমতা নিয়ে বড় হয়েছি। সংসার শুরুর আগ পর্যন্ত বাসায় বিড়াল পালতাম। তারা আমার পরিবারের অংশ ছিল। এই সব গ্রুপ গুলোর মাঝে রবিন হুড দা এনিমাল রেস্কিউয়ার গ্রুপটা কিছুটা অন্য রকম। কেবল হেল্প পোস্ট নয়, বরং সশরীরে স্পটে যেয়ে অসহায় বা বিপদগ্রস্ত প্রানীটিকে উদ্ধার করার নজির এই গ্রুপে দেখতে পাই। যিনি নিজের জীবন বাজি রেখে এই উদ্ধার কাজ করেন, তিনি অভিনেতা আফজাল খান।।পরিত্যাক্ত সাত তলা বাড়ির তিন তলায় আটকা পড়া বেড়াল। গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়া আহত কুকুর। যেখানেই খবর পান সেখানেই ছুটে যান। এভাবে উদ্ধার করে আনা কুকুর বিড়ালের সংখ্যা এখন পঞ্চাশটি। তাঁর ছাদ এবং শেলটারে ধারণ ক্ষমতার ওপরে এই সংখ্যা। এদের খাবার, চিকিৎসা, পরিচ্ছন্নতা সব কিছুর দায়িত্ব ব্যক্তি উদ্যোগে করা হয়। যার অধিকাংশই আফজাল খান নিজে বহন করেন।


সেদিন আফজাল খানের এপয়েনমেন্ট পেলাম দুপুরে। জানতে পারলাম তাঁর রবিন হুড হয়ে ওঠার গল্প। ২০০৮ সালে এক বর্ষার মধ্যরাতে নিজের স্পোর্টস কার ড্রাইভ করে বাড়ি ফেরার পথে দেখতে পেলেন একটি ল্যাম্প পোস্টের নীচে দুটি অসহায় বিড়াল ছানা বৃষ্টিতে ভিজে যাচ্ছে। দ্বিধা কাটিয়ে সেই ছানা দুটিকে বাসায় নিয়ে এলেন। পরদিন সকালে নিয়ে গেলেন একটি পশু হাসপাতেলে। চিকিৎসা এবং ভ্যাকসিন দেবার জন্য। এবং সেদিন থেকেই প্রত্যয়ী হলেন এই অসহায় প্রানীর পাশে থাকার। কেননা বাস্তব চিত্রটি ভীষণ করুণ।

“চিকিৎসক তার নির্ধারিত সময়ে সেখানে থাকেন না। প্রাণী দের ভ্যাক্সিন দেয় কেরানী এমন কি টি-বয় রা। আমার একাধিক প্রানী সেই হাসপাতালের কর্মীদের অবহেলা আর ভুল চিকিৎসায় মারা যায়। আমি তার পর থেকেই সিদ্ধান্ত নেই এদের জন্য কিছু করার।”

জানতে চাইলাম, আপনি ঠিক কী করতে চাচ্ছেন?
“আমার স্বপ্ন, একটি ওয়েল এস্টাবলিশ পশু হাসপাতাল গড়ে তোলা, যেখানে ফ্রি (বিনামূল্যে) চিকিৎসা দেওয়া হবে।”

জানতে চাইলাম, ফ্রি চিকিৎসা দেওয়ার দিকে এতো গুরুত্ব দিচ্ছেন কেন?
তিনি বললেন,
“আমার কাছে যারা অসহায় এবং অসুস্থ প্রানীদের নিয়ে আসে, বা রেস্কিউ করতে অনুরোধ করে, তাদের অধিকাংশই স্টুডেন্ট। হয়তো এই বয়সটা এমনই, যখন আবেগ এবং স্নেহ মমতা মানুষের মনে অনেক বেশি কাজ করে, কিন্তু সামর্থের অভাবে সে তার শখের প্রানীটির সঠিক টেইক কেয়ার করতে পারেনা। তখন বাধ্য হয়েই তার ভালোবাসার পোষা প্রানীটিকে এডপশানে দিতে হয়, অথবা ফেলে দিতে হয়। আমি সেই জায়গাটায় কাজ করতে চাই।প্রানীদের চিকিৎসা নিশ্চিত করা অনেক বড় একটা চ্যেলেঞ্জ।”


আমার প্রশ্ন থাকে এ মুহুর্তে আপনার সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা কী?
তিনি বলেন
“রবিনহুড গ্রুপটা অনেক বড়। সদস্যরা যত হেপ্ল চায় তাদের আমি করি কিন্তু ততোটা হেল্প আমি পাইনা, যখন আমার প্রয়োজন হয়। আর এই শেলটারটা চালাতে আমাক নানা রকম সাপোর্ট দরকার। মেডিসিন, প্রপার ফুড এবং প্রপার কেয়ার।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন সিভিলিয়ান এবং আর্মি পারসন ছাড়া আমি তেমন কারো কাছ থেকে সাপোর্ট পাইনা। তবে আমি খুব কনফিডেন্ট এবং স্বপ্নবাজ একজন মানুষ। আমি বিশ্বাস করি লক্ষে পৌছাবই। আরো একটা বিষয় আমাকে কষ্ট দেয়, যখন মানুষ আমার এই শেলটার দেখতে আসে, আমার সাথে সেলফি তোলে ফেইসবুকে পোস্ট দিয়ে নাম কামাতে চায়। একটা সেলফির চেয়ে কিছু ফিন্যানশিয়াল এইড অনেক বেশি জরুরী এই মুহুর্তে।”

ভেবে অবাক হই, কেবল মাত্র এই শেলটার টি সঠিক ভাবে পরিচালনার জন্য নিজের শখের স্পোর্টস কারটি ক-দিন আগে বিক্রি করে দিয়েছেন! প্রাণীর উপর অত্যাচারের দায়ে জরিমানা আদায় করেছেন একাধিক অমানুষের কাছ থেকে।
কথায় কথায় সময় ফুরিয়ে আসে। আমি অনুরোধ করি শেলটার টি দেখবার। তিনি এবং তাঁর ছোট বোন ‘রাকা’ আমাকে নিয়ে শেলটারে যায়। আমি চোখের জল ধরে রাখতে পারিনা। এর আগে কখনো অন্ধ কুকুর দেখিনি, প্যারালাইজ বিড়ালের ঘোস্টে ঘোস্টে পথ চলা দেখিনি।ট্রমাটাইজ কুকুরের, অচেনা কাউকে দেখলে আতংকিত হয়ে কিভাবে কাঁপতে থাকে তা নিজের চোখে না দেখলে জানতে পারতাম না। সুলতান নামের এক পা কাটা কুকুরটি আমাকে দেখে প্রায় ঝাঁপিয়ে পড়ল কোলে। সে খুবই বন্ধু বৎসল। যে টুকু সময় আমি শেলটারে ছিলাম, মনে হচ্ছিল এক অবাক কল্প লোকে চলে এসেছি! এই অসহায় জীবেরা তাদের অভিব্যাক্তি দিয়ে প্রকাশ করছিল উচ্ছাস নিস্বার্থ ভালোবাসা।

আফজাল খান যে স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন তাঁর চেষ্টাএবং প্রত্যয় যেমন দৃঢ়, ঠিক তেমন দৃঢ় ভাবে আমরা সবাই যদি এই অসহায় প্রানীদের পাশে থাকতে পারি, তাহলে মানুষ এবং পশুপাখির সুস্বাস্থ্যে পরিপুর্ন একটি দেশ হবে বাংলাদেশ, সেই আশা আমরা করতেই পারি। আর আফজাল খানের মত হৃদয় স্পর্শী মানুষেরা আছেন বলেই হয়তো লেখা হয়েছিল সেই আমোঘ বানীঃ
“জীবে প্রেম করে যে জন সে জন সেবিছে ঈশ্বর”
_________________________________

সামিয়া কালাম
প্রোডিউসার এবং আর জে
সিটি এফ এম ৯৬.০

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়