Desk

Published:
2022-05-18 09:52:40 BdST

ক্রাইম পেট্রল বাংলাদেশ"আল্লাহর দান" নামের ৭টি বিরিয়ানি সুপার শপে কুকুরের মাংস দিয়ে কাচ্চি বিরিয়ানি, অবশেষে ধরা


 



সংবাদদাতা
____________________

আল্লাহর দান নামে ৭টি বিরিয়ানি সুপার শপে কুকুরের মাংস দিয়ে তৈরি হচ্ছে কাচ্চি বিরিয়ানি! আর তা পেট পুরে খাচ্ছেও বাসিন্দারা। খাওয়ার জন্য বিরাট লাইনও বেশ। কিন্তু কেউ জেনেশুনে কুকুরের মাংস খাচ্ছিল না। তারা জানত , জমজমাট ব্যবসা জমিয়ে তোলা আল্লাহর দান হোটেল শরীয়া সম্মতভাবে খাসি বা ছাগল কেটে তাদের খাসির বিরিয়ানি খাওয়াচ্ছিল নিয়মিত। আল্লাহর দান এর মালিকরা সবাইকে খাসির মাংস বলে প্রচার চালাত।

মহম্মদ বিল্লাল হোসেন ও মহম্মদ রাজিব হোসেন ৭টি দোকান খুলে রমরমিয়ে খাসির ( বাস্তবে কুকুর ) মাংসের বিরিয়ানির ব্যবসায় ফেঁদে বসেছিল।
ঢাকার আশুলিয়ায় প্রতারণার ব্যবসা ফেঁদে বসার অভিযোগে বিরিয়ানি হাউসের মালিক রাজীবকে গ্ৰেপ্তার করেছে পুলিশ। ওই বিরিয়ানি হাউসের মাংস এবং হাড় বাজেয়াপ্ত করে পরীক্ষাগারে পাঠিয়েছে। এই ঘটনায় পলাতক রয়েছেন মালিক রাজীবের অন্যতম সহযোগী বিল্লাল হোসেন। তারা দ্বীনদার মুসল্লির লেবাস পরে দিব্যি হারাম ব্যবসা করছিল।



আশুলিয়ার বিভিন্ন জায়গায় ‘আল্লাহর দান’ নামে বিল্লাল হোসেনের ৭টি বিরিয়ানি দোকান রয়েছে। স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরেই তুলনামূলক কম দামে খাসির কাচ্চি ও বিরিয়ানি বিক্রি করছিল রাজীব। তার ব্যবসাও ছিল জমজমাট। আলমগির হোসেন নামে এক ক্রেতা জানান, তিনি নিয়মিত কাচ্চি খান। রবিবার দুপুরে ওই দোকানে কাচ্চির মাংস মুখে দিতেই তার সন্দেহ হয়। কীসের মাংস, তা জিজ্ঞেস করতেই খাসি বলে জানানো হয়। সন্দেহ দানা বাঁধতেই তিনি খাবার শেষ না করেই ১৮০ টাকা দিয়ে চলে যান।

রাজীব ও   বিল্লাল কুকুরের মাংস সংগ্রহ করে তা খাসি বলে চালিয়ে বিক্রি করছেন। রবিবার রাতে বিষয়টি ফাঁস হয়ে যায়। তাতেই শোরগোল পড়ে যায় আশুলিয়ায়। তথ্য সংগ্রহ করতে রাত ১২টা নাগাদ আশুলিয়ার নরসিংহপুর বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন ‘আল্লাহর দান’ নামে পাঁচ দোকানে যান সংবাদকর্মীরা। সেসময় বিরিয়ানির দোকানের  বিল্লাল বিষয়টি ধামাচাপা দিতে সাংবাদিকদের অর্থের প্রলোভন দেখান বলেও অভিযোগ। এমনকী কর্মীদের উপর হামলা চালানো হয়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিরিয়ানি হাউজের মালিক রাজীবকে গ্ৰেপ্তার করে। আশুলিয়া থানার এসআই সুব্রত রায় জানান, প্রাথমিকভাবে ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্তকে গ্ৰেপ্তার করা হয়েছে। প্রমাণ পেতে বিরিয়ানির দোকানের মাংস ও হাড্ডি সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে। খাসি বলে কুকুরের মাংস বিক্রির ঘটনা জানাজানি হওয়ার ওই বিরিয়ানির দোকানের সব শাখা বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ।

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়