Ameen Qudir

Published:
2019-10-30 18:14:02 BdST

স্যার বললেন, সে সময় আমিও তো আমার চোখ বন্ধ করেই তোদের ঘড়ি তল্লাশি করেছিলাম


লেখকের ছবি

অনিমেষ বন্দোপাধ্যায়
কর্তৃক ভাষান্তরিত ও সংগৃহীত জীবন কাহিনি
_________________________

এক বিয়ের অনুষ্ঠান।
সবে কৈশোর পেরোন এক যুবক, হঠাৎই এগিয়ে গেল এক ব্যাক্তির দিকে।
বহুকাল পরে দেখা -- তার বাল্য বয়সের শিক্ষকের সাথে।
টপ করে প্রণাম সেরেই বললো --
স্যার কেমন আছেন?
চিনতে পারলেন স্যার আমাকে?
খানিকটা দ্বিধা নিয়ে স্যার তাকিয়ে --
ঠিক মনে করে উঠতে পারছেন না।
কে যেন ?
কোন ক্লাস ?

তখন ক্লাস ৪ আমার।
আমি সেদিন একজনের হাত ঘড়ি সুযোগ বুঝে সরিয়ে নিয়েছি।
পয়সাওলা ঘরের ছেলের হাতে -- অমন চমৎকার ঘড়ি, পারিনি লোভ সামলাতে।
মনে পড়ল স্যার -- আমি সেই চোর ছেলেটি।
সেদিন ঘড়ি চুরি যাওয়ায় , কাঁদতে কাঁদতে আপনাকে গিয়ে নালিশ জানায় যার ঘড়ি --সে।
তখন আপনি ক্লাসরুমের দরজা বন্ধ করে, আমাদের সকলকে দাঁড়াতে বললেন।
আর বললেন -- সকলে পেছন ফিরে, চোখ বন্ধ করে দাঁড়িয়ে থাকবে -- আমি সার্চ করব প্রত্যেককে।
সেই মূহুর্তে স্যার --
লজ্জায় - ঘেন্নায় মরে যেতে ইচ্ছে করছিল।
নিশ্চয়ই আপনার সব মনে আছে স্যার।
একি ভোলার কথা? ?
আপনি একে একে সবার পকেট পরীক্ষা করতে শুরু করলেন --
আমার পকেট থেকেই ঘড়িটা বেরোল।
আমি তখন বোধহীন।
জড় পদার্থ একটা যেন।
কিন্তু স্যার তাও আপনি থামলেন না।
সকলের তল্লাশি নিয়ে-- টেবিলে গিয়ে আমাদের চোখ খুলে বসতে বললেন।
আর যার ঘড়ি তাকে ডেকে ঘড়িটা পরিয়ে দিলেন।
আমার বুকের স্পন্দন তখন পুরো শরীর জুড়ে।
এবার সেই ক্ষন --
স্যার আমায় ডাকবেন।
কিন্তু স্যার -- আপনি ক্লাস ছুটি দিয়ে দিলেন।
একটা কথাও উচ্চারণ না করে চলে গেলেন।
তারপর বাকি স্কুল জীবনে কেউ কোনদিনই ঘড়ি চুরির সাথে আমার নাম বলেনি।
বদনাম করেনি।
আমার সম্মান কোনদিন ক্ষুণ্ন হয়নি স্কুলে।
এবার চিনতে পারছেন তো স্যার আমাকে ? ?
কি করে ভুলতে পারেন সেই ঘটনা।
স্যার এবার ম্লান হেসে বললেন -- নাঃ রে -- পারলাম তো চিনতে।

তোদের চোখ বন্ধ করে -- যখন ঘুরে দাঁড়িয়ে থাকতে বলেছিলাম --
সে সময় আমিও তো আমার চোখ বন্ধ করেই তোদের পরীক্ষা করেছিলাম।

কি করে সইতাম চোখ চেয়ে পরীক্ষার অসহনীয় ফল।

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়