Ameen Qudir

Published:
2019-05-08 16:30:50 BdST

নড়াইলের সাংসদ মাশরাফিকে নিয়ে ফেসবুকে সমালোচনা-মন্তব্য করায় ৬ চিকিৎসককে শোকজ



ডেস্ক
____________________

নড়াইল-২ আসনের সাংসদ ও বাংলাদেশ ক্রিকেট ওয়ান ডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার নড়াইল হাসপাতালে তৎপরতার সমালোচনা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাটাস দেওয়া, মন্তব্য করা ও পোস্ট শেয়ার করায় দেশের বিভিন্ন হাসপাতালের ছয় চিকিৎসককে কারণ দর্শানোর বা শো কজ নোটিশ পাঠিয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। ৬ মে মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের উপসচিব শামীমা নাসরিন স্বাক্ষরিত পৃথক নোটিশে তাদের কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।

নোটিশগুলো পেয়েছেন বগুড়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পেডিয়াট্রিকস বিভাগের রেজিস্ট্রার ডাঃ আইরিন আফরোজ; কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের নিউরোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ পঞ্চানন দাশ; নওগাঁ জেলা হাসপাতালের ইনডোর মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ মৌমিতা জুলি; মুন্সিগঞ্জের রসুলপুর ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ ফাহমিদা হাসান; চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের হেমাটো অনকোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডাঃ এ কে এম রেজাউল করিম ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের রেসপিরেটরি মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম। তাদেরকে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।

এদের মধ্যে ডাঃ আইরিন আফরোজ, ডাঃ পঞ্চানন দাশ ও ডাঃ এ কে এমকে মাশরাফিকে নিয়ে পাবলিক পোস্টে মন্তব্য; ডাঃ মৌমিতা জুলি ও ডাঃ আমিনুল ইসলামকে মাশরাফিকে নিয়ে পোস্ট দেওয়া এবং ডাঃ ফাহমিদা হাসানকে এমন একটি পোস্ট শেয়ার দেওয়ায় নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

নোটিশগুলোতে বলা হয়, তাদের দেওয়া ফেসবুক স্ট্যাটাসগুলো একজন সরকারি কর্মকর্তার জন্য মানানসই নয়। এ ধরণের স্ট্যাটাস দেওয়া অশোভনীয় আচরণ ও সরকারি কর্মচারী আচরণ বিধিমালার পরিপন্থী। সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ২০১৮ এর ৩ (খ) ধারা মোতাবেক তাদের এসব কার্যক্রম ‘অসদাচরণ’ হিসেবে গণ্য হবে।

নোটিশে ছয় চিকিৎসককে কেন সংশ্লিষ্ট ধারার অধীনে অভিযুক্ত করা হবে না সে বিষয়ে নোটিশ প্রাপ্তির তিন কর্মদিবসের মধ্যে কারণ দর্শাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আপনার মতামত দিন:


কলাম এর জনপ্রিয়