|

পৃথিবীর ধূলিকণায় -৪গ্রান্ড ক্যানারী দ্বীপপুঞ্জ থেকে বলছি


Published: 2017-09-25 09:50:05 BdST, Updated: 2017-11-22 09:55:18 BdST



মেজর ডা. খোশরোজ সামাদ

________________________________


১।ডিসেম্বর,২০১৬।ছুটি কাটাতে স্পেনের গ্রান্ড ক্যানারী দ্বীপপুঞ্জের রাজধানী লাস পালমাসে এলাম। এখানে স্প্যানিশ আর্মির লজিষ্টিক ঘাঁটি আছে। জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী হবার সুবাদে প্রায় পানির দামে থাকা -খাওয়া জুটলো।

২।দ্বীপ মানেই বালিয়াড়ি, সাগর মেখলা,নারিকেল বীথি,নীল পানি - সবকিছুই এখানে মিললো।পাহাড়ের সাথে আটলান্টিকের ঢেউএর অপরুপ সংগম দ্বীপটিকে লীলারসে লাস্যময়ী করে তুলেছে। পাহাড়ের বুক চিরে সুরম্য সড়কে লিমুজিন,বি এম ডাব্লিও চোখে পরলো। নিপুন তুলিতে বিমূর্ত ক্যানভাসে যেন অমিয় চিত্রকল্প আঁকা। স্বল্পবসনারা মিঠে কড়া রোদে গায়ের রঙ তামাটে করতে সূর্যস্নানে মেতে উঠেছে।
৩।ক্যানারী দ্বীপে চিরবসন্ত বিরাজমান। তীব্র তুষারপাতে মস্কোর জনজীবন যখন অচল তখন হালকা পোষাকে আমি দিব্যি সময় পার করে দিলাম। সাগর থেকে জীবন্ত মাছ ধরে আগুনে ঝলসে বিক্রি হয়। রসনা তৃপ্ত করতে ভুল হল না।

৪। আদি হিসপানিওয়ালারা দীঘল,নির্মেদ,গৌরবর্ণ দিব্যকান্ত।অনেকেই নীলনয়না,সোনালীকেশী। অথচ দুর্ধর্ষ জলদস্যু হিসেবে এরা এক সময় দুনিয়া কাঁপিয়ে দিয়েছিল। আমেরিকা বিজয়ী ক্রিষ্টোফার কলম্বাসের বাড়ি দেখবার সময় আলাদা এক রোমাঞ্চে গা ছমছম করছিল। ক্যাথেড্রাল চোখে পরলো। অধুনা প্রযুক্তি ব্যবহার করলেও ক্যাথলিক খ্রিষ্টানরা শত বছরের ঐতিহ্যকে ধরে রেখেছে।চিত্রশালাগুলিতে বিশ্বের সেরা অনেক শিল্পকর্মকে দেখবার সুযোগ হল।
৫।শহরতলীতে লোকজ স্প্যানিশ গান শুনলাম। তার একটি কলির অর্থ না বুঝলেও মিষ্টি সুরের অনুরণন আজো কানে বাজে। পথে ক্লাউনের ভাঁড়ামো দেখার সাথে মণিকাঞ্চন যোগ হল মঞ্চে ' সিন্ডেরেলা' নাটক দেখা। কাস্তে - হাতুড়ির ছাপ দেয়া কমিউনিষ্টদের ' চিকা' চোখে পরলো। পায়ে গোদরোগ নিয়ে ভিক্ষুক ভিক্ষা চাইলো। সাধ্য অনুযায়ী সাহায্য করবার সময় সভ্যতার পিলসুজের নীচে অন্ধকারের তিক্ত সত্য আরেকবার উপলব্ধি করলাম।
৬।প্রিয়জনদের জন্য উপহার কিনতে ভুল হল না। দ্বীপটি দেখবার লোভে হেঁটে হেঁটে যখন ফিরছিলাম তখন মধ্যরাত পেরিয়ে গেলেও কোথাও নিরাপত্তাহীনতার একবিন্দু ব্যত্যয় চোখে পরে নি।

 

 

 

___________________________


মেজর ডা. খোশরোজ সামাদ ।

আর্মড ফোরসেস ফুড এন্ড ড্রাগ ল্যাবরেটরির উপ অধিনায়কের দায়িত্ব ভার গ্রহণ করেছেন। ঐতিহ্যবাহী এই ইউনিটটি সেনা, নৌ,বিমান বাহিনী তথা সশস্ত্র বাহিনীতে ব্যবহারকৃত সকল খাদ্যসামগ্রী এবং ড্রাগ তথা ওষুধ পথ্য পরীক্ষা - নিরীক্ষা করে ব্যবহারের উপযুক্ততা/ অনুপযুক্ততা নিরুপন করে।

এর আগে ছিলেন আর্মড ফোরসেস মেডিকেল কলেজএ ।
ওয়েস্টার্ন সাহারায় শান্তিরক্ষী হিসেবে সফলভাবে এক বছরের কাজ শেষে আর্মড ফোরসেস মেডিকেল কলেজে সহকারী অধ্যাপক, ফার্মাকোলজি বিভাগে যোগ দিয়েছিলেন।

khoshroz@yahoo.com

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।