|

আজকের দিনটি শুধু পুরুষের , জানেন কি !!


Published: 2016-11-19 12:18:52 BdST, Updated: 2017-04-25 10:37:39 BdST

 

 

ডাঃ রাজীব দে সরকার
________________________________

 

 

আজ ১৯ নভেম্বর। "বিশ্ব পুরুষ দিবস" । জানতেন কি?
অনেকেই হয়তো জানেন না জাতিসংঘ স্বীকৃত একটি দিবস আছে শুশু পুরুষদের জন্য। বিশ্ব পুরুষ দিবস। বিশ্ব নারী দিবস বিশ্বব্যাপী নানা আয়োজনে পালিত হয়। আড়ম্বরে প্রচারিত হয় নারীর অধিকার ও ক্ষমতার সমতার কথা। অনেকেই প্রশ্ন করতেন এরকম ছেলেদের জন্য কী কিছু আছে??
গুগলে গিয়ে সার্চ দিন। ইন্টারন্যাশনাল মেনস' ডে লিখে সার্চ দিন। আপনার কৌতুহলের উত্তর পেয়ে যাবেন।
মজা হলো www.internationalmensday.com নামে একটি ডেডিকেটেড ওয়েব পোর্টালও আপনার চোখে পড়বে।
২০১৬ সালের প্রতিপাদ্য হলোঃ স্টপ মেইল সুইসাইড অর্থাৎ "ছেলেদের আত্নহত্যা রোধ করুন" ।
সমীক্ষা বলছে বিশ্বে এখন মেয়েদের থেকে ছেলেদের আত্নহত্যার প্রবণতা বেশী। অবশ্য এ সমীক্ষার কীভাবে চালানো হয়েছে তা বলা হয়নি। মেয়েদের থেকে ছেলেদের আত্নহত্যার সংখ্যা ৩ গুণ। খোদ রাশিয়াতেই অনুপাত ৬ঃ১। অর্থাৎ ৬টি ছেলে ও ১টি মেয়ে গড়ে সেখানে আত্নহত্যা করে। ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের একটি ডাটা মতে বিশ্বে এখন মেয়েদের চেয়ে ছেলেদের স্বাস্থ্যের অবনতি বেশী ঘটছে।

 

 

  

বিশ্ব পুরুষ দিবসের উদ্দেশ্যঃ
১. ছেলেদের স্বাস্থ্য ও শরীর উন্নয়ন,

২. লৈঙ্গিক সম্পর্ক বিষয়ক,
৩. ছেলেদের বিভিন্ন সেকটরে অবদান বৃদ্ধিকরণ,
৪. ছেলেদেরকে রোল মডেল হিসেবে উপস্থাপন।

 


দিবস পালনঃ
বাংলাদেশে দিবসটি পালনে তেমন কোন সাড়া শব্দ পাওয়া যায়নি। কিংবা হলেও তা নীরবে নিভৃতে মিডিয়ার অগোচরেই রয়ে গেছে। তবে শোনা যায় এই দিনটটি উপলক্ষ্যে 'হাউজ অব কমন্স' এ রেগুলার ডিবেট হয়, আরো নানা আয়োজন থাকে। 'গোফ'কে সিম্বল হিসেবে ব্যবহার করে একটি দলও নাকি আত্নপ্রকাশ করেছে।

 

কিছুটা মহোত্তর দিকও আছে দিবসটির। এই দিনে বিশেষ ভাবে পুরুষদের স্বাস্থ্য সচেতনতা ও রোগের প্রতি সচেতনতা বৃদ্ধি করতে কাজ করা হয়। যেমন ধরুন, দক্ষিণ আফ্রিকার কেপ টাউনে এই দিনে পুরুষুদের কোলন কারসিনোমা, প্রোস্টেট এর ক্যান্সার, হাইপারটেনশন, ডায়াবেটিকস ও এইডস নিয়ে জনসচেতনতামূলক নানা অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়।


ইতিহাসের কথাঃ
১৯৯৯ সালের নভেম্বরে ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্ট ইন্ডিজ এর ড. জেরোমী তিলকসিংহ এই দিবসটি ঘটা করে পালনের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তার প্রচেষ্টাতেই জাতিসংঘ দিবসটিকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দেয়। তলকসিংহের বাবার জন্মদিন ছিলো ১৯ নভেম্বর। বাবাই ছিলেন তার আদর্শ। পরবর্তীতে মালটায় এ দিবস পালিত হয় ২০০৯ সালে। ১৯৯০ এর দশকে যুক্তরাষ্ট্রের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে সেই দেশটিতে এবং যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রিয়াতেও এই দিবদের মতো করেই পুরুষদের জন্য বিশেষ কিছু আয়োজনের ব্যবস্থা করা হতো।
কোনভাবেই নারী দিবসের সাথে পাল্লা দিয়ে এই দিবসের আয়োজন করা হয়নি। অন্তঃত ইতিহাস তাই বলে। বিশ্ব পুরুষ দিবস নিয়ে এখনো কোন গুণীজন বা সেলিব্রিটির লেখা চোখে পড়লো না। ব্যাপারটি উদ্বেগজনক কি না তাও বুঝতে পারছি না।


_______________________________


লেখক
ডাঃ রাজীব দে সরকার
চিকিৎসা কর্মকর্তা, ওএসডি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর
পোস্ট গ্রাজুয়েশন অধ্যয়নরত (শিশু সার্জারী)
সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ, সিলেট

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।