|

সুন্দর প্রেসক্রিপশন ও সাইজ, ওষুধের সংখ্যা নির্ধারণ প্রসঙ্গে খোলা চিঠি


Published: 2017-01-10 10:04:22 BdST, Updated: 2017-02-26 13:47:19 BdST

ডা. সাঈদ সুজন
___________________________

 

ভালো হাতের লেখা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে অনেকবার পুরষ্কার পেয়েছিলাম স্কুল লাইফে । চিকিৎসক হইয়া খারাপ লেখার বদনাম। এই বেদনা কেমনে সই। লেখা খারাপ হওয়ার পিছনের কারন গুলো দেখা জরুরি। । মেডিকেল এক্সামে যখন ৯০ মিনিটে ১৫ টা প্রশ্ন লেজ সহ লিখতে হয়, তখন বুঝা যায় লেখা কি জিনিস। । লেখার কোয়ালিটির চেয়ে সব এন্সার করা জরুরি হয়ে পড়ে।

আউটডোরে সকাল আটটা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত যদি ২০০ জন রোগী দেখা লাগে। ।প্রতি রোগীর প্রেস্ক্রিপশন করতে সময় পাওয়া যায় মাত্র দেড় মিনিটে । এই দেড় মিনিটে এক পৃষ্ঠা তে রোগীর সিম্পটম, মেডিসিন, এডভাইস ইত্যাদি যদি সুন্দর হাতের লেখার মতো করা হয়, তাহলে পরের রোগীদের ঠেলা, গালি শুনতে হবে। । তখন কিছু রোগী পিছনে থেকে ডাক্তার কসাই বলে ভাগবে।

একজন বিসিএস ক্যাডারের অফিসে ভাঙা চেয়ার জুটলে সেখানে কম্পিউটার প্রিন্টেড প্রেস্ক্রিপশন কোন মুখে আশা করে। আগে চিকিৎসকদের সুবিধা দিক, তাহলে সবকিছুই সম্ভব ।

আরেকটা কমপ্লেইন হলো- ফার্মেসির লোক প্রেস্ক্রিপশন পড়তে পারে না, তাই ভুল ঔষধ কিনে। । ঘটনা সত্যি। ক্লাশ থ্রি পাশ ফার্মেসির লোক মেডিসিনের বানানের প্যাচ কেমনে ধরবে।

ফার্মেসি তে ব্যাচেলর ডিগ্রী বাদই দিলাম, ন্যূনতম প্রেসক্রিপশন পড়ার যোগ্যতা নাই, তারা যদি ফার্মেসির দোকান দেয়, তাহলে এই ঘটনা ঘটা অস্বাভাবিক না।

ফার্মেসির দোকানের কর্মচারীর যোগ্যতা কমপক্ষে এইচ এস সি পাশ লাগবেই- এই আইন কেন আসছে না।অশিক্ষিত নাপিতকে ফোড়া কাটতে দিলে আর্টারি ভেইন ইঞ্জুরি অবধারিত, কারন তার কোনো ব্যাকগ্রাউন্ড নলেজ নাই। ।

শুনেছি - প্রেসক্রিপশন সাইজ নির্ধারণ করে দিবে সরকার । কতগুলেঅ মেডিসিন দিতে পারবে, সেটাও সরকার বলে দিবে।

ওকে, নো প্রব্লেম। এতে করে রেফারাল সিস্টেমটা ভালো ভাবে চালু হবে। । ধরে নেই - এক চাচা আসছে আমার কাছে যার, BEP, HTN, DM, B.Asthma with heart failure আছে। । আমাকে তো তিনটার বেশি মেডিসিন লিখতে দেয়া হবে না।

আমি BEP এর জন্য তিনটা মেডিসিন লিখে বাকী HTN এর জন্য এক বন্ধুর কাছে, DM এর জন্য আরেক বন্ধুর কাছে,
Asthma & heart failure এর জন্য আরেক বন্ধুর কাছে রেফার করবো। । এতে করে প্রেসক্রিপশনে মেডিসিন সংখ্যা লিমিটেড থাকবে, কিন্তু প্রেসক্রিপশন সংখ্যা আনলিমিটেড হয়ে যাবে।

এইসব উদ্ভট চিন্তার লোকজনকে বলতে ইচ্ছা করে - দয়া করে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করুন যেন আল্লাহ রোগ কম দেয়, তাহলে মেডিসিন কম লাগবে। । দেখা গেলো - রোগ চারটা রোগীর, কিন্তু আইনের জন্য মেডিসিন তিনটার জন্য দিলো, চতুর্থ রোগে রোগী মারা পড়বে চিকিৎসার অভাবে।


_____________________________

লেখক ডা. সাঈদ সুজন । সুলেখক।

Director , Endeavour Orientation

Studies MS Urology at Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।