|

ডাক্তারদের বিরুদ্ধে বানোয়াট কুৎসা করলেই আপনি রাতারাতি সেলিব্রেটি


Published: 2017-01-03 11:36:03 BdST, Updated: 2017-11-22 09:51:51 BdST

ডা. শিরিন সাবিহা তন্বী
_________________________

এইদেশে এই মুহূর্তে রাতারাতি সেলিব্রেটি হবার কেবল একটা রাস্তাই খোলা আছে।আর তা হলো ডাক্তারদের বিরুদ্ধচারন।

হোক সেটা রিপোর্টিং,বক্তৃতা কিংবা কোন ফেসবুক টাইম লাইন থেকে আসা কোন পোষ্ট।


আর এই সুযোগ ছাড়ে এমন এটেনশন সিকার এদেশে কম আছে।যাদের শুধু ফেইসবুক প্রোফাইল না,লাইফ প্রোফাইলে ও কোথাও কোন সফলতা,জনহিতকর কর্মকান্ড বা নিজেকে পরিচিত করার মত কোন গুন নাই সে ও যদি ভুল বানানে কুৎসিৎ ভাষায় ডাক্তারদের নিয়ে দুকথা বলতে পারেন কিংবা ডাক্তারের দরজায় টানানো ভিজিট লিষ্ট টা ছবি তুলে আপ দিতে পারেন কিংবা ডাক্তার ভিজিট বিষয়ক দু পাঁচটা নোংরা কথা বলতে পারেন - আপনার সেলিব্রেটি হওয়া ঠেকায় এমন সাধ্যি কারো নেই।।

 

আপনারা ডাক্তারের ভিজিট দেখেন,স্ক্যাবিস নামক ছোঁয়াচে রোগে আক্রান্ত হন ঠিক আছে।কিন্তু এগ্রাভেটিং ফ্যাক্টর শুধু ডাক্তার কেন?

 


আপনি জানেন,বাংলাদেশের এক নায়ক শাকিব খান নামক মানুষটি জ্ঞাত কত কোটি টাকার মালিক?৪৭০ কোটি!এক টিভি অভিনেতা মোশাররফ করিম কত কোটি টাকার মালিক? ২২৭ কোটি।।


এরা দুজন এই টাকা কোথায় পেয়েছে??কোন দেশের টাকা?সরকারী মেডিকেলে ডাক্তাররা জনগনের টাকায় পড়ে বলে গলায় রক্ত তোলা নির্বোধরা বলুক এই টাকা আয় করতে তারা কত জন মানুষকে সত্যিকারের বিনোদন দিয়েছে!একজন মানুষের কি উপকার করেছে???

আমার অতি প্রিয় শিল্পী রুনা লায়লা কিংবা অতি অপ্রিয় শিল্পী মমতাজ যখন আপনাদের কোন আনন্দঘন মুহূর্তে আনন্দ বাড়াতে আসে আপনি ৩০ থেকে ৫০ মিনিট গান শুনেন।৫/৬ টি গান,যা আপনার বহুবার শোনা।আপনি গুনে গুনে ১২/১৫/২০ লক্ষ টাকা দেন।গান শোনার জন্য শীতের রাতে ঘুমন্ত শিশু কাঁধে নিয়ে ঠাঁয় দাঁড়িয়ে থাকেন।


কই আপনার তো স্ক্যাবিস হয় না।এই আপনি ই হাসপাতালে কিছু সময় অপেক্ষা করতে অস্থির হয়ে যান!এই আপনিই আপনার পিত্তে পাথর,ওভারীতে টিউমার অপারেশন করে দশ বিশ হাজার টাকা খরচ করে ডাক্তারকে কসাই বলেন।আপনাদের বিনোদন এত প্রিয়,তো শরীরে অসুখ নিয়ে বিনোদন করুন।ডাক্তারের কাছে কেন আসেন?

 

রুনা লায়লা যেমন আপনার বাড়ী গিয়ে খটখটায় না যে,আসুন গান শুনুন।তেমনি ডাক্তার ও আপনার বাড়ী যাচ্ছে না।আপনার রোগ আপনাকে ডাক্তার খানায় নিয়ে যাচ্ছে।গালি দিলে রোগকে দিন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মেহতাব খানম।ছাত্র পড়ান।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বসেই আপনার মানসিক সমস্যাতে কাউন্সিলিং দেন।কিন্তু ফ্রি নয়।এক ঘন্টার একটি সেশনে তিনি নেন ২৫০০ টাকা।শুধু তাই নয় এক সমস্যা নিয়ে আপনাকে মাসের পর মাস সেশন দিতে হবে আর টাকা গুনতে হবে।আর এতেও আপনার সমস্যা সমাধানের নিশ্চয়তা উনি দেবেন না।

আর আমাদের মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক গন??ছাত্র পড়ান।এবং ফ্রি রুগী চিকিৎসা দেন।শত শত অপারেশন করান।এমনকি সাইকিয়াট্রি অধ্যাপক ঐ সমস্যাতেই আপনাকে ফ্রি চিকিৎসা দেবেন।।

 

এত কথার কারন কি জানেন??আপনি ডাক্তারদের নিয়ে যত কথা বলবেন তার নব্বই শতাংশ ই মিথ্যা,বানোয়াট।আপনারা শুধু কিছু সংখ্যক খারাপ চিকিৎসককে সুযোগ করে দিচ্ছেন আরো খারাপ করবার।ডাক্তারদের সাথে ভালো করে দেখুন।ভালো কথা বলে দেখুন।এই দেশে এত কম সুযোগ সুবিধার মধ্য থেকে একদল মেধাবী চিকিৎসক এদেশের প্রায় সব রুগীর চিকিৎসা দিচ্ছে।প্রশংসা করে দেখুন।রাতারাতি সেলিব্রেটি হয়ত হবেন না।কিন্তু এর সুফল বাংলাদেশের জনগন একদিন পাবে।।

_______________________________

ডা. শিরিন সাবিহা তন্বী । জনপ্রিয় কলামিস্ট। কথাশিল্পী। মেডিকেল অফিসার, শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।