Ameen Qudir

Published:
2018-05-24 04:04:21 BdST

রোগীর লোক খুব অভদ্রভাবে বলে বসলেন: কথা না শুনেই ঔষধ লেখা হয়ে গেল


রোগীস্বজনের অভদ্রতা। প্রতিকী অভিনয়মূলক ছবি। বিবিসির সৌজন্যে।

 

 

ডা. আসিয়া চৌধুরী
___________________________

এবার আসি বিচ্ছিন্ন ঘটনায়।

# ডাক্তার সাহেব খুব মনোযোগ সহকারে রুগীর কথা শুনছেন আর হিসট্রি লিখছেন।প্যাশেন্ট পার্টি হঠাৎ বলে উঠলেন কথা শুনুন আগে তারপর লিখুন!!!

#ক্রনিক কেয়ারের ক্ষেত্রে কিছু ড্রাগ হিসট্রি ডাক্তাররা লিখে রাখেন।অতি অভদ্র একজন শিক্ষিত খুব তাচ্ছিল্যের সাথে বলে বসলেন কথা না শুনেই ঔষধ লেখা হয়ে গেল?

#রুগী যখন চেম্বারের উদেশ্যে রওনা দেয়।তখন তার হাজার রকম ঝামেলা থাকে।এই যেমন বাসায় গিয়ে রান্না করতে হবে,বাচ্চা বাসায় রেখে এসেছে,বাসায় মেহমান,জামাই আসবে অথবা শ্বাশুড়ি আসবে,বাজার করতে হবে।যেন উপচে পড়া ভীড় আর হাজার ব্যস্ততা সেদিনই তাকে ঘিরে বসেছে।শত ব্যস্ততার মাঝে ভিসিট দিয়ে রুগী যেন আপনারই উপকার করতে এসেছেন।আর আপনি সময় দিবেন না মানে?
আসুন দেখে নিই এই রুগী যখন চেম্বারে ঢুকল তখন কি হতে পারে।এই রুগীর ধরুন এক মেজাজ খারাপ তারপর সিরিয়াল পেতে দেরী। নিশ্চয় আপনাকে আদর-সোহাগ করে কথা বলবেনা সেটা আপনার কমনসেন্স দ্বারা বুঝে নিতে হবে এবং যাবার সময় আপনার এসিসটেন্টের সামনে আপনাকে গালিগালাজ করে সময় দেননি সেই অপবাদও দিয়ে যাবে। যদিওবা তারই তাড়াহুড়ো ছিল।

# সামান্য জ্বর-কাশি। রুগী ভেবে বসল পাশের বাড়ির ৯০বছরের ভদ্র লোক এই রোগে মারা গেছে।ছুটলেন নামী দামী প্রফেসরের কাছে। আর আপনি প্রফেশর লেভেলের লোক আপনার কাছে সব শুনে সামান্যই মনে হয়েছে।আপনি তার হিসট্রি শুনে ঔষধ লিখে ছেড়ে দিলেন।যে লোকের মারা যাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে এল বেচারা তার মারা যাবার গল্পই আপনি শুনলেন না তাহলে রুগীর কথা শোনেনা এই অপবাদ তো মাথা পেতে নিতে হবে স্যার।

তারপর ও বলব সব কিছু সিস্টেম মোতাবেক ই চলে,যা ডাক্তাররা মানবিক কারনে করে দেখাতে পারেন না।এই গল্প আসলে বিস্তর,বলে শেষ করবার মত না।
_______________________________

ডা. আসিয়া চৌধুরী । সুলেখক।Caption
Diabetic Association of Bangladesh,Chapai Nawabgonj

 

 


মেডিক্যাল ক্যাম্প এর জনপ্রিয়