Ameen Qudir

Published:
2018-10-15 15:52:28 BdST

ব্রেস্টের (স্তনের) সমস্যা : নারীরা নিজেই ,পুরুষরা স্ত্রী কন্যা মা বোনের জন্য যত্নবান হোন


 


ডা. নাহিদ ফারজানা
_____________________________

ব্রেষ্টের (স্তনের) বিভিন্ন সমস্যা সম্পর্কে সচেতন হোন। অজ্ঞানতা,সচেতনতার অভাবে ঝরে যাচ্ছে কত প্রাণ। মহিলারা পোস্ট গুলো পড়ুন,বুঝুন,সচেতন হোন,আপনার পরিচিত সকল মহিলার মাঝে এই তথ্যগুলি ছড়িয়ে দিন।যেসব পুরুষ এই লেখাগুলো পড়ছেন,তারা স্ত্রী, কন্যা,মা,বোনের স্বাস্থ্যের বিষয়ে যত্নবান হোন।

এখন যে বিষয় নিয়ে আলোচনা করব,তার নাম ফাইব্রোসিস্টিক ডিজিজ/ফাইব্রোএডিনোটিক চেন্জ।, তারমাঝেও মূলত ম্যাসটালজিয়া (স্তনে ব্যথা)

আমরা এই রোগে আক্রান্ত অসংখ্য রুগি পাই এবং রুগীরা হাজার বোঝানোর পরেও এই রোগ নিয়ে বেশি টেনশনে, আতংকে থাকেন।অথচ এই রোগে ভয়ের কিছু নেই।

লক্ষণ :

১.ব্রেস্টে ব্যথা.......অল্প/মাঝারি /বেশী।
২.মাসিকের আগে ব্যথা বাড়ে,মাসিক হয়ে গেলে কিছু টা কমে বা ভাল হয়ে যায়। অনেকের আবার সব সময় বা মাঝেমাঝে ব্যথা হয়।
৩.অনেকের ব্রেস্টে চাকা চাকা ভাব থাকে। হিস্ট্রী শুনলে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে শুনি,ব্যথা বাড়লে দানা গুলো আরও বড় হয়ে যায়,এমনকি পুরো ব্রেস্ট চাকা হয়ে যায়,ব্যথা কমলে এই শক্ত ভাব কমে যায়। কাজেই আমার অনুজ চিকিৎসকদের বলছি,কারো ব্রেস্টে যদি একের বেশি চাকা ভাব থাকে,আর সেগুলো যদি বাড়া কমা করে,তবে সেগুলি টিউমার নয়।
৪.বোঁটা দিয়ে পানি বা তরল কিছু পড়া(রুগী বোঁটায় চাপ দিবেন না)
৫.অনেকের ক্ষেত্রে ব্রেস্টের ব্যথা পিঠে,হাতেও ছড়িয়ে যায়।

কেন এমন হয়?

একজন মেয়ের দুই বুকে অনবরত পরিবর্তন হচ্ছে। এত পরিবর্তন সবার ব্রেষ্ট মেনে নিতে পারেনা। তাদের ব্রেষ্টের ডেভেলপমেন্ট সোজা রাস্তা থেকে একটু বাঁকা পথে যায়। তাদের ব্রেষ্টের ভিতরে পানিভরা ছোট ছোট অসংখ্য থলে হয়,ফেটে যায়। এইসব পানিভরা থলেকে সিষ্ট (cyst) বলা হয়।নরম টিস্যুর জায়গায় কিছু শক্ত টিস্যু ( fibrous tissue) চলে অাসে। এসব কারণে ব্রেষ্টে কম/বেশি ব্যথা হয়/শক্ত ভাব হয়/ দুধ নামলে বুকে যেমন শির শির করে,তেমন অনুভূতি হতে পারে/ রুগির ভাষ্য অনুযায়ী চিলিক মেরে ব্যথা হয় ইত্যাদি। টেনশন -অশান্তিতে ব্যথা আরও বেশি মনে হয়।

চিকিৎসা : ১.অভিজ্ঞ চিকিৎসক দিয়ে পরীক্ষা করিয়ে রোগটি নিশ্চিত করতে হবে, ক্যান্সার নেই এ বিষয়ে নিশ্চিত হতে হবে।

২.তারপরে টেনশন ফ্রী থাকতে হবে।
৩.জন্মনিয়ন্ত্রণের জন্য পিল খাওয়া যাবেনা,চামড়ার সুই, চামড়ার পিল ব্যবহার করা যাবেনা। স্বামী কনডম ব্যবহার করবেন/লাইগেশন করে নিতে পারেন।
৪.সবসময় পরিস্কার মাপমতো ব্রেসিয়ার পরে থাকবেন।যদিও পাঠ্যবই এ বলেছে,দিনে টাইট,রাতে সফ্ট ব্রা পরতে,কিন্তু আমার এতদিনের অভিজ্ঞতায় মনে হয়,দিনে মাপমতো ব্রা পরে রাতে ঘুমানোর সময় খুলে রাখা ভাল।
৪.কোক-পেপসি ইত্যাদি কোল্ড ড্রিংক, ফাস্টফুড, জান্ক ফুড,বাইরের ভাজা-পোড়া,চিপস -চানাচুর,তৈলাক্ত -চর্বি জাতীয় খাবার,বেশি গরু/খাসীর মাংস,অতিরিক্ত চা-কফি খাওয়া যাবেনা। রান্নায় ভুলেও পুরানো তেল দিবেন না।
৫.নিয়মিত, পরিমিত পুষ্টিকর খাবার ও প্রচুর পানি খেতে হবে।
৬.নিয়মিত হাটাচলা করতে হবে।
৭.ওষুধ :(চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী)

ওষুধের অপশন: অভিজ্ঞ চিকিৎসক অবস্থা অনুযায়ী দিবেন।

 

লেখকের সবিনয় নিবেদন
____________
এই লেখার পাঠক হিসেবে
সম্মানিত সার্জন ও শিক্ষকবৃন্দ,বন্ধুস্হানীয়,অনুজপ্রতীমদের কাছে আমার লেখার ভুল যদি নজরে পড়ে
অবশ্যই তা উল্লেখ করবেন। লেখালেখির মাধ্যমে অঅমরা সঠিক উপায় জানবো।
_____________________________

 

ডা. নাহিদ ফারজানা
২৫ তম ব্যাচ, শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ,বরিশাল।


মানুষের জন্য এর জনপ্রিয়